শাওমির কাছে কিসের জবাব চাইছে টুইটারবাসী?

1 min read

।। স্বর্ণালী তালুকদার ।। কলকাতা ।।

টুইটারে এমন কোনও বিষয় নেই, যা নিয়ে প্রশ্ন করা হয় না। নেটিজেনরা সদাই সজাগ। কোনও সেলিব্রিটি কিংবা সাধারন মানুষ কোনও বক্তব্য পেশ করলেই সঙ্গে সঙ্গে সেই নিয়ে আলোচনা-তর্ক-বিতর্ক সভা বসে যায়। এক্ষেত্রে যেমন একটি মোবাইল প্রস্তুতকারক সংস্থার কাছে উত্তর চেয়েছেন নেটিজেনরা। তারা জানতে চান এমন একটি প্রশ্নের উত্তর, যা রীতিমতো ভাবনার বিষয়। 

টেকিনক্যাল গুরুজী নামে পরিচিত টেক বিশেষজ্ঞ গৌরব চৌধুরি টুইটে লেখেন, শ্রী মানু কুমার জৈন (শাওমির ভারতীয় ম্যানেজিং ডিরেক্টর) আপনি কি  দেখাতে পারবেন ভারতের কোথাায় অরুনাচল প্রদেশ রয়েছে? #শাওমিজবাবদো নামে একটি প্রচারও তিনি শুরু করেছেন। কারণ শাওমির ফোনে অরুনাচল প্রদেশের কোনও খবর বা অস্তিত্বই দেখা যাচ্ছে না। তাই টেক বিশেষজ্ঞের এমন টুইট।

ঘটনাটি প্রকাশ্যে আসতেই অন্যান্য নেটিজেনরাও এই বিষয়টি নিয়ে তাদের ফোনে দেখতে থাকে। এবং যথারীতি তারাও কোনও কিছুই দেখতে পায় না। কার্যত নো রেজাল্টস দেখায় ইটানগর লিখে সার্চ করলে। বিষয়টি নিয়ে যথেষ্ট ক্ষোভ প্রকাশ পায় টুইটার জুড়ে। বহু নেটিজেনদের এমনও মতামত, অরুনাচলকে কি চিনের অংশ ভাবছে শাওমি, যেই কারণে অরুনাচল প্রদেশ নিয়ে কোনও তথ্যই বিশ্ববাসীর কাছে না পৌঁছায়!

সকলেই শাওমির কর্তাকে টুইট করে জিজ্ঞেস করে ভারতের ম্যাপের বাইরে কেন অরুনাচল প্রদেশ? কেন দেখা যাচ্ছে অরুনাচলের আবহাওয়া? কেন দেশের মধ্যে থেকেও দেশের রাজ্যের বিষয়ে সংশ্লরিষ্ট ফোনে কিছুই সার্চ করে পাওয়া যাচ্ছে না? তবে কয়েক ঘন্টা পেরিয়ে যাওয়ার পরে শাওমির তরফে কোনও জবাব আসেনি। টেক বিশেষজ্ঞ ফের একবার টুইট করেন, বলেন একটা সহজ প্রশ্ন, অথচ জবাব মিলল না এখনও।

চীনের সঙ্গে ভারতের কূটনৈতিক সম্পর্কের প্রভাব পড়েছিল টেক দুনিয়াতেও। শাওমি চিনের প্রস্তুতকারক সংস্থা হওয়ায় বহু ব্যবহারকারী ফোন ব্যবহার করবেন না বলে দাবি তুলেছিলেন। পরে শাওমির তরফে জানানো হয়, ভারতেই তৈরী হবে শাওমির ফোন, তাই এর সঙ্গে চিনের কোনও সম্পর্ক থাকবে না। তবে এর সঙ্গে অরুনাচল প্রদেশের বিষয়ে নো রেজাল্টস দেখানোর কি যুক্তি, তা নিয়ে ধন্ধে রয়েছেন বহু ব্যবহারকারী।