Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

২০২১ সালে কি বাংলার মাটিতে উত্থান ঘটিয়ে ম্যাজিক দেখাতে পারবে কংগ্রেস!

।। ময়ুখ বসু ।।

তৃণমূল বনাম বিজেপির লড়াইয়ে যখন বাংলা উত্তাল হতে চলেছে, সেই সুযোগে বাংলার মাটিতে উত্থান ঘটতে পারে কংগ্রেসের। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে, তৃণমূল বিজেপির লড়াইয়ের মাঝখানে দাঁড়িয়ে রাজ্যে শক্তি বাড়িয়ে তুলতে পারে কংগ্রেস। কারণ, কংগ্রেসের ভিতের উপর দাড়িয়েই তৃণমূল তৈরি। বর্তমান রাজ্য রাজনীতির ক্ষেত্রে ২০২১ সালের বিধানসভা ভোটের আগেই তৃণমূলে ভাঙ্গনের রেখা স্পষ্ট হচ্ছে। আশংকা তৈরি হয়েছে, তৃণমূল ছেড়ে বহু বিধায়ক কিংবা মন্ত্রীরা বেরিয়ে যেতে পারেন। তাহলে তারা কোথায় যাবেন? অনেকে বিজেপিতে যোগদান করলেও কংগ্রেসী মানসিকতার একটা বড়ো অংশের বিধায়ক বা মন্ত্রীদের কাছে একমাত্র বিকল্প হয়ে উঠতে পারে কংগ্রেসই। আর তৃণমূল ছেড়ে প্রকৃত কংগ্রেসী মানসিকতার যারা বেরিয়ে আসতে পারেন তাদের অধিকাংশই তৃণমূলের উপর যতোটা বীতশ্রদ্ধ ঠিক ততোটাই বীতশ্রদ্ধ বিজেপির উপরেও। সেক্ষেত্রে রাজ্যে ফায়দা তুলতে পারে কংগ্রেস। ইতিমধ্যেই তৃওম্মূলের অন্দরে অনেক নেতা মন্ত্রীরাই বিদ্রোহী হয়ে উঠেছেন। দলে বাড়ছে আভ্যন্তরীণ কোন্দলও। ফলে এবারের বিধানসভা নির্বাচনে রাজ্যে যদি পট পরিবর্তন ঘটে তাহলে আখেরে লাভ হবে কংগ্রেসেরই। এমনটাই মনে করছেন রাজনৈতিক মহল। তৃণমূলে বেসুরো হতে আরম্ভ করে দিয়েছেন ইতিমধ্যে শুভেন্দু অধিকারী, মিহির গোস্বামী, শীলভদ্র দত্ত, কৃষ্ণেন্দু নারায়ন চৌধুরী, নীহার ঘোষ, কৃষ্ণপদ সাতরা, রবীন্দ্রনাথ ঘোষ, উদয়ন গুহ থেকে শুরু করে অনেকেই। এই রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে দাঁড়িয়ে তৃণমূলের প্র্যয় ১০০ জনের উপর বিধায়ক দল ছাড়তে পারেন বলে দাবি করেছেন কংগ্রেস নেতা আব্দুল মান্নান। তিনি বলেন, একটা সময় কংগ্রসকে ভেঙে রাজ্যে তৃণমূল শক্তি বাড়িয়েছিলো। এবারে সেই ঘটনার পালটা ঘটতে চলেছে। তৃণমূলের বিদ্রোহীদের নিয়ে রাজ্যে শক্তি বাড়াতে পারে কংগ্রেস। মান্নানের দাবি, তৃণমুলে ভাঙন অবশ্যম্ভাবী। অনেক তৃণমূল নেতা যেমন শক্তিশালী বিরোধী রাজনৈতিক দলের অভাবে দল ছাড়তে পারছে না, তেমনি অনেকে বিজেপিতেও যেতে চাইছেন না। ফলে কংগ্রেসই যে তাদের কাছে বিকল্প হয়ে উঠতে পারে তা মেনে নিয়েছেন অনেক রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরাই। তবে এক্ষেত্রে রাজ্য কংগ্রেসের সাংগাঠনিক শক্তির যথেষ্ট অভাব রয়েছে বলেও মত রাজনৈতিক মহলের। তারা মনে করছেন, তৃণমূলের বিদ্রোহীদের কাজে লাগিয়ে কংগ্রেস শক্তিশালী হওয়ার ক্ষেত্রে যে সাংগাঠনিক শক্তি ও প্ল্যাটফর্ম প্রয়োজন তার অনেকটাই অভাব রয়েছে কংগ্রেসের। আর ২০২১ সালের বিধানসভা ভোটের আগে কংগ্রেস কি পারবে সেই ঘাটতি পূরণ করে তৃণমূলের বিদ্রোহকে কাজে লাগাতে। আর কংগ্রেস সেই ম্যাজিক দেখাতে পারে কি না তার দিকে তাকিয়ে রাজ্য রাজনীতির একটি বড়ো অংশ।