Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

#রাগ কেন দিদি, স্লোগান ঘিরে চড়ছে রাজনীতির পারদ

1 min read

।। শর্মিলা মিত্র ।।

কেউ গান বাঁধছেন তো কেউ হাতিয়ার করছেন পথনাটিকাকে। কেউ আবার ওয়ান লাইনার স্লোগানে বুক বাঁধছেন, তো কেউ রঙিন ফ্লেক্স দিয়ে দেওয়াল ভরাচ্ছেন। কেউ গাইছেন ‘খেলা হবে’ তো কেউ গাইছেন ‘টুম্পা সোনা’। কেউ বা ‘বেলা চাও’-এর অনুকরণে গাইছেন ‘পিসি যাও’। ২০২১ বিধানসভা নির্বাচনের এই অন্যরকম প্রচারের মধ্যেই এবার জায়গা করে নিল ‘#রাগ কেন দিদি’ স্লোগান।

শহরের রাজপথে একাধিক গুরুত্বপূর্ণ রাস্তার মোড়ে শোভা পাচ্ছে লাল রঙের এই পোস্টার, ব্যানার, ফ্লেক্স। তবে, কারা টাঙাচ্ছে এই ফ্লেক্স ? প্রশ্ন উঠলেও, তা এখনও স্পষ্ট নয়। তবে ওয়াকিবহাল মহল কিন্তু আঙুল তুলছেন গেরুয়াশিবিরের দিকেই। মনে করা হচ্ছে, এটা তাদেরই মস্তিষ্কপ্রসূত।

সম্প্রতি শহর মুড়েছে এই রঙিন ফ্লেক্সে। যার ব্যাকগ্রাউন্ডে রয়েছে হরেকরকমের রঙ। সামনে রাগী-রাগী মুখের একটি কার্টুন। সঙ্গে লেখা ‘#রাগ কেন দিদি?’ কে বা কারা এই ফ্লেক্স, পোস্টার লাগাচ্ছেন, তার কোনও উল্লেখ নেই। প্রসঙ্গত, গত কয়েকদিন ধরেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বাংলায় নির্বাচনী সভা করতে আসলে বারবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে ‘দিদি’ বলে যে সম্বোধন করছেন।

প্রশ্ন করেছেন, ‘এত রাগ কেন?’ ওয়াকিবহাল মহলের মত, প্রধানমন্ত্রীর সেই উক্তিকেই এবার প্রচারের হাতিয়ার করছে গেরুয়া শিবির। যদিও প্রধানমন্ত্রীর এই সম্ভাষণ নিয়ে প্রবল আপত্তি রয়েছে ঘাস ফুল শিবিরের। ‘দিদি ও দিদি’ এই সম্ভাষণের মধ্যে একটা তীব্র শ্লেষ ও কটাক্ষের ইঙ্গিত রয়েছে বলে মনে করছে জোড়াফুল শিবির।

আরো পড়ুন : উলুবেড়িয়ার ঘটনায় ভিডিও বার্তায় তদন্তের আবেদন জয়প্রকাশ মজুমদারের

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি যতবার প্রচারে এসে তার বিশেষ ভাবে সুর করা ‘দিদি’ সম্ভাষণ করছেন ততই উজ্জীবিত হচ্ছে গেরুয়া শিবির। মোদির এই ‘ও দিদি’র স্বর বিজেপি কর্মীদের মধ্যে বেশ জনপ্রিয়ও হয়েছে। কিন্তু ঠিক ততটাই পাল্টা আক্রমণ শানাচ্ছে ঘাস ফুল শিবির। তৃণমূল কংগ্রেসের অভিযোগ, প্রধানমন্ত্রীর এই সম্ভাষণের মধ্যে লুকিয়ে রয়েছে নারী বিদ্বেষ। রাজ্যের শাসকদল বলছে, মুখ্যমন্ত্রীকে ব্যঙ্গাত্মক সুরেই ‘দিদি’ বলে ডাকছেন প্রধানমন্ত্রী।


তৃণমূল কংগ্রেসের তরফে সাংবাদিক বৈঠক করে শশী পাঁজা, জুন মালিয়া, অনন্যা চক্রবর্তীরা অভিযোগ করেছেন, প্রধানমন্ত্রীর আচরণ দুর্ভাগ্যজনক এবং তিনি নারীবিদ্বেষী। তৃণমূল শিবিরের মন্তব্য, ‘আজ আমরা সবাই উদ্বিগ্ন। দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এবং প্রধানমন্ত্রী নিজেদের আসনকে সম্মান করছেন না। দেশের প্রধানমন্ত্রী টোন কাটছেন। টিটকিরি দিচ্ছেন। ওঁর ভাষণেই স্পষ্ট উনি কতটা নারীবিদ্বেষী।’ ‘দেখেছেন ঠিক কোন ভঙ্গিমায় জনসভাতে উনি ‘দিদি ও দিদি’ বলেন। আপনি কি কারও সম্পর্কে একথা বলতে পারেন? এটা কি ঠিক ?

প্রশ্ন তোলা হচ্ছে শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের তরফে। আরও প্রশ্ন তোলা হচ্ছে যে, ‘সর্বসমক্ষে কীভাবে একজন মুখ্যমন্ত্রীকে কটূক্তি করছে। কেন একজন প্রধানমন্ত্রী এত নিচে নেমে যাবেন যে ওঁকে হেনস্তাকারী, মহিলাদের উত্যক্ত করার মতো মানুষ ভাবা হবে ?’ বলাই যায় প্রধানমন্ত্রীর এই মন্তব্যকে কেন্দ্র করে ভোট যুদ্ধের মধ্যেই চড়ছে রাজনীতির পারদ।

আর এই ফ্লেক্স যুদ্ধ যে চলবে তা পরিষ্কার শহরের আনাচে কানাচে এই পোস্টার ঘিরে৷ পাশাপাশি তৃণমূলের আপত্তিকে যে আদৌ গেরুয়া শিবির পাত্তা দিচ্ছেনা, তা এই ফ্লেক্সগুলি থেকে স্পষ্ট হয়ে গেল বলেই মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল। তবে এখনও পর্যন্ত এই পোস্টার, ফ্লেক্স, ব্যানার নিয়ে দু পক্ষের কোন রাজনৈতিক দলেরই প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।