Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

কেন আক্রান্ত হচ্ছেন প্রার্থীরা? শাসকের গলায় কেন অসহায় আর্তি?


।। ময়ুখ বসু ।।


তৃতীয় দফার ভোট বাংলায় কার্যত নজিরবিহীন হয়ে থাকল। তৃতীয় দফায় সবথেকে বেশী অভিযোগ শোনা গেল রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের গলায়। যা এর আগে সেভাবে কখনও দেখা যায়নি। বাম জমানার শেষ লগ্নে দাঁড়িয়ে বামেরা এমন অভিযোগ তুললেও এদিন যেভাবে দিকে দিকে তৃণমূলের হেভিওয়েট প্রার্থীরা মানুষের কাছে ধাওয়া খেলেন তেমন ছবি বামেদের বিদায় বেলাতেও সেভাবে দেখা যায়নি। তৃতীয় দফার ভোটে দিকে দিকে সবথেকে বেশী আক্রন্ত হয়েছেন তৃণমূলের প্রার্থী থেকে কর্মীরা। যদি বিরোধী রাজনৈতিক দলের তরফের প্রার্থী আক্রান্ত ও নানা অশান্তির অভিযোগ তোলা হয়েছে, তবে রাজ্যের শাসক দল হিসাবে তৃণমূল কংগ্রেস যেভাবে নিরুপায়ভাবে অভিযোগ তুলেছেন তা কার্যত নজিরবিহীন ।

শাসক দলের এমন অভিযোগ ও প্রার্থী আক্রন্তের ঘটনা অত্যন্ত তাৎপর্যবাহী বলে মনে করছেন রাজনৈতিক মহলের একাংশ। কেন শাসক দলের এমন অসহায় আর্তনাদ? তাহলে কি বাংলায় শাসকের পায়ের তলার জমি সরে যাচ্ছে? নাকি বিরোধীদের (বলা ভালো বিজেপির) বাহুবলের কাছে হার মানতে হচ্ছে তাদের? রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা এ নিয়ে অনেক তথ্যই সামনে নিয়ে আসছেন। তবে সব তথ্যের শেষে একটাই কথা উঠে আসছে, তা হলো, একটা দুটো নয় একাধিক কেন্দ্রে তৃণমূল প্রার্থীর উপর হামলার ঘটনা একই দিনে কি করে সম্ভব? তাহলে কি প্রার্থী নিয়ে অসন্তোষের ছবি প্রকট হয়ে উঠেছে ভোটের দিনেই? যা নিয়ে আলোচনা সমালোচনা চলছে চলবেও।

হুগলির খানাকুলে তৃণমূল প্রার্থী নাজবুল করিমকে প্রকাশ্য রাস্তায় হেনস্থা ও মারধোর করার অভিযোগ উঠেছে। তৃণমূলের অভিযোগ, রাস্তায় বাঁশ লাঠি দিয়ে তাকে মারধোর করা হয়। অন্যদিকে, হুগলির আরামবাগের পারুলে আক্রান্ত হয়েছেন তৃণমূল প্রার্থী সুজাতা মন্ডল খাঁ। জানা যায়, বেশ কয়েকজন তাঁকে বাঁশ নিয়ে তাড়া করলে তিনি নিরাপত্তারক্ষীদের নিয়ে ধান খেতের আলে নেমে আসেন। এরপর বাঁশ দিয়ে সুজাতার মাথায় আঘাত করা হয় বলে অভিযোগ। এমনকী তিনি ওই গ্রাম থেকে ফেরার সময় তাঁর গাড়ি ঘিরে দফায় দফায় বিক্ষোভ দেখান গ্রামবাসীরা। একইভাবে উলুবেড়িয়া উত্তর কেন্দ্র পরিদর্শনে গিয়ে আক্রান্ত হলেন তৃণমূল প্রার্থী নির্মল মাঝি। নির্মল মাঝির গাড়ি লক্ষ্য করে ইট ছোঁড়া হয় বলে অভিযোগ।

গ্রামবাসীদের হাতে আক্রান্ত হন তাঁর নিরাপত্তারক্ষী শ্যামল ওঁরাও। এরপর হেলমেট পরে এলাকা ছাড়তে হয় তাঁকে। তবে শুধু তৃণমূল প্রার্থীরাই নন, এখানে অবশ্যই বলে রাখা ভালো একইভাবে বিজেপি ও জোটের প্রার্থীরাও বিভিন্ন স্থানে আক্রান্ত হয়েছেন। বিরোধীদের অনেক নেতা কর্মীদেরও মাথা ফেটেছে। রক্ত ঝরেছে। বিক্ষোভের মুখে পড়েছেন বিজেপি প্রার্থী পাপিয়া অধিকারীও। তবে রাজনৈতিক মহলের মতে রাজ্যের শাসক দলের হেভিওয়েট প্রার্থীরা যেভাবে অসহায়ের মতো অভি্যোগ তুলেছেন তা এর আগে বাংলার বুকে সেভাবে দেখা যায়নি। এমনকী তৃণমূলের উপর এমন বেনজির আক্রমণের ছবি দেখে এদিন বিচলিত হয়ে ওঠেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও। তিনি এক ট্যুইট বার্তায় কেন্দ্রীয় বাহিনীকে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়ে লেখেন, কেন্দ্রীয় বাহিনীর নির্মম অপব্যাবহার অব্যাহত রয়েছে। কমিশন নীরব ভূমিকা পালন করছে।