Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

কার কার বিয়েবাড়ি দিল্লিতে স্পনসর করেছিল কে ডি সিং! ইঙ্গিতপূর্ণ মন্তব্য শুভেন্দুর

1 min read

।। শর্মিলা মিত্র ।।

ভগবানপুরের অর্জুন নগরে ভারতীয় জনতা পার্টির তফসিলি মোর্চার জনসভা থেকে তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে একের পর এক বিষয় আজ তোপ দাগেন শুভেন্দু অধিকারী (Shubhendu Adhikari)।সভার পর সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে কেডি সিং-এর গ্রেফতার থেকে শুরু করে শিশির অধিকারীকে অপসারণ সব বিষয়ে মুখ খোলেন শুভেন্দু অধিকারী (Shubhendu Adhikari)। প্রসঙ্গত, আজই বেআইনি আর্থিক লেনদেন মামলায় তৃণমূল কংগ্রেসের প্রাক্তন রাজ্যসভার সাংসদ তথা অ্যালকেমিস্টের কর্ণধার কে ডি সিং-কে দিল্লিতে গ্রেফতার করে ইডি বা Enforcement Directorate-এর সদর দফতরের আধিকারিকরা।

এরপর তাকে আদালতে তোলা হলে ১৬ই জানুয়ারি পর্যন্ত কে ডি সিং-কে ইডি হেফাজতের নির্দেশ দেন বিচারক। এই প্রসঙ্গে সাংবাদিকরা প্রশ্নে করলে ভগবানপুরের সভার পর শুভেন্দু অধিকারী (Shubhendu Adhikari) বলেন, ‘পশ্চিমবঙ্গের প্রায় ৭০ লক্ষ পরিবার প্রতারিত হয়েছে অ্যালকেমিস্টের দ্বারা। তৃণমূল কংগ্রেস নেতা ও প্রাক্তন রাজ্যসভার সাংসদের হাতে সর্বস্ব খুইয়েছেন বহু প্রান্তিক ও গরিব মানুষ।’ তিনি জানান, ‘শুধু গ্রেফতারি নয়, কেডি সিং-এর সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করে এদের টাকা ফেরতেরও ব্যবস্থা করা হোক।’ এর পর কী বাকিরাও যারা জড়িত আছে তারাও কী আস্তে আস্তে বেরোবে? সাংবাদিকদের এই প্রশ্নের উত্তরে শুভেন্দু অধিকারী (Shubhendu Adhikari) বলেন, ‘কান টানলে তো মাথা আসবে।’

আরো পড়ুন : মাঠ চেনা, প্লেয়ার পুরনো, কিন্তু ঝান্ডাটা নতুন, চেনা লোকের নতুন রূপ, শুভেন্দু অধিকারী

তার মন্তব্য, ‘কে ডি সিং-কে দিয়েই তো নারদ করিয়েছিলেন। এবং কার কার বিয়েবাড়ি দিল্লিতে sponsor করেছিল কে ডি সিং সেটাও সবাই জানেন’ বলে মন্তব্য করেন শুভেন্দু অধিকারী। অন্যদিকে, এবার, পূর্ব মেদিনীপুর জেলা সভাপতির পদ থেকে সরানো হল শিশির অধিকারীকে। এই বিষয় শুভেন্দু অধিকারী (Shubhendu Adhikari) বলেন, ‘তার কোন মন্তব্য নেই। যারা করছেন তারা বলতে পারবেন’ বলেও মন্তব্য করেন তিনি। পাশাপাশি, সবাই বলছে আপনি দল পরিবর্তন করলেন বলে, সাংবাদিকদের সেই প্রশ্ন শেষ হওয়ার আগেই শুভেন্দু অধিকারী বলেন,

‘আমার পরিবার আছে। আমার বাবা মা সুস্থ থাকুক এটা চাইব।’ পাশাপাশি তার মন্তব্য, ‘আমি কী রাজনীতি করব আমার বাবা মা বলেনা। আর আমার বাবা মা কী রাজনীতি করবে এটা আমি বলিনা।’ তিনি আরও বলেন, ‘এটা তাদের পার্টির ব্যাপার। আমি তৃণমূল কংগ্রেস প্রাইভেট লিমিটেড কম্পানি করিনা, আমি ওই প্রাইভেট লিমিটেড কম্পানি সম্পর্কে বলবোনা। ওরা কর্মচারী খোঁজে, কর্মচারী খুঁজে নেবে। যারা কর্মচারী হিসেবে থাকতে চায়না তারা বেরিয়ে আসবে।’ এইভাবেই বলা যায় আজ নিজের অবস্থান স্পষ্ট করে দেন শুভেন্দু অধিকারী (Shubhendu Adhikari)।