Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

বিজেপির ৭ জন তৃণমূলে যোগ দিচ্ছেন কারা তাঁরা? কী বললেন জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক?

1 min read

।। সুদীপা সরকার ।।

নির্বাচন যত এগিয়ে আসছে দলবদলের হিড়িক ততোই বাড়ছে। এই পরিস্থিতিতে জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক দাবি জানান খুব শীঘ্রই বিজেপির ৭ সাংসদ আমাদের দলে অর্থাৎ তৃণমূলে যোগ দেবেন। আমাদের থেকে যেগুলো বিজেপিতে গেছেন তারা ইতিমধ্যেই আবারও আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করছেন। আমাদের থেকে যে সমস্ত এম এল এ রা বিজেপি তে গিয়েছিল তারা ইতিমধ্যেই লাইন দিতে শুরু করেছেন। ইতিমধ্যেই তারা বলতে শুরু করে দিয়েছেন আমরা ভুল করেছি আমাদের দলে জায়গা করে দিন। আজ স্বামী বিবেকানন্দের জন্ম জয়ন্তী দিবসে হাবরার রাজপথে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রায় উপস্থিত থেকে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে এমনটাই দাবি জানালেন হাবড়ার বিধায়ক তথা রাজ্যের খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক (Jyotipriya Mallick)।

ভোটমুখী বাংলায় স্বামী বিবেকানন্দকে নিয়ে বিজেপি ও তৃণমূলের টানাপোড়েন অব্যাহত। এই পরিস্থিতিতে আজ সকালেই শুভেন্দু অধিকারী( suvendu Adhikari) সিমলা স্ট্রীটে যান সেখান বেশ কিছুক্ষণ সময় কাটান।এই প্রসঙ্গে খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক (Jyotipriya Mallick) বলেন শুভেন্দুর ভাবনাচিন্তা আমার কাছে খুব ধোঁয়াশা। আদৌ শুভেন্দু ভারতীয় জনতা পার্টিতে থাকবেন।শুভেন্দু ভারতীয় জনতা পার্টির কাজকর্ম শেষ করে নির্বাচনের পর পার্টি ছেড়ে দেবেন। কি করবেন শুভেন্দু সে নিজেই জানে। আবার সৌমিত্র খাঁ দাবি করেছিলেন একুশের নির্বাচনে হাবরা জেলায় ৫০ থেকে ৬০ হাজার ভোটে হারবে খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। তার পাল্টা জবাবে জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক বলেন যে পরিবারকে ধরে রাখতে পারেনা সে কিভাবে বাংলার রাজনীতি করবে।

জঘন্য অনৈতিক নীতিহীন কথা বলেন সাংসদ সৌমিত্র খাঁ তাকে আমি ঘৃণার চোখে দেখি। ঘৃণিত বস্তু হল সৌমিত্র খাঁ।এই ধরনের কথার পেছনে শিক্ষাগত যোগ্যতা কাজ করে বলে কটাক্ষ করেন আজ জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। তাঁর দাবি আমাদের থেকেও যারা বিজেপিতে গেছেন খুব বেশি হলে মাধ্যমিক পাস তার উপর পাস নেই।তার জন্যই তারা এই ধরনের কুরুচিকর মন্তব্য করে থাকেন।পাশাপাশি জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক( jyotipriyo Mallik ) দাবি জানান ২০১৬ র নির্বাচনের চেয়ে বেশি আসন নিয়ে ২০২১ এর নির্বাচনে হাবরা জেলা জয়লাভ করবে‌ তৃণমূল কংগ্রেস। আবার গতকালই শোভন চট্টোপাধ্যায় (sobhan chattopadhyay )অভিযোগ তুলেছিলেন অনেক স্বপ্ন দেখে তৃণমূল থেকে লড়াই করেছিলাম।

আরো পড়ুন :স্বামীজির মঞ্চে রাজনীতি নয় বলে পুরোটাই রাজনৈতিক ভাষণ দিলেন অভিষেক

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলছেন সোনার বাংলা গড়েছেন। কিন্তু গরু পাচারের কয়লা পাচারের সোনার বাংলা আমি চাইনি। এর উত্তরে আজ সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক বলেন দুর্নীতির কথা যারা বলছেন তাদের অধিকাংশ সারদায় যুক্ত রয়েছেন তাই ডাক পেয়ে ভারতীয় জনতা পার্টিতে চলে যাচ্ছেন ‌। যা উপার্জন করা উচিত ছিল তার থেকে বেশি উপার্জন করে ফেলেছে তাই হজম হয়নি। ২০২৪ হোক বা ২০২৯ সত্যি উদঘাটন হবেই।এরা দেখবেন মে মাসের ৩১ তারিখের পর গুটিসুটি মেরে আবার তৃণমূল কংগ্রেসের দিকে লাইন লাগাবে। তখন কিন্তু ঢোকার রাস্তা থাকবে না গেটটি বন্ধ থাকবে।

পাশাপাশি আজ জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক দাবি রাখেন পশ্চিমবঙ্গের ১০০ % সংখ্যালঘু ভাইরা আমাদের সাথে রয়েছেন তাদের উপর বারবার অত্যাচার হচ্ছে এই অত্যাচারের ফলে তারা বুঝে গিয়েছেন ভারতবর্ষে তাদের বাঁচার একমাত্র আশ্রয়ের জায়গা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। উত্তরপ্রদেশ মধ্যপ্রদেশ সংখ্যালঘু ভাইদের উপর অত্যাচার হয়। ধর্মনিরপেক্ষ দেশে এই রকম হওয়া উচিত নয় বলেই তিনি জানান। দলবদল ভোলবদল। নির্বাচন এলেই গুরুত্ব বেড়ে যায়। বাংলার রাজনীতিতে দলবদল এখন বেড়েছে বহুমাত্রায়।আবার আজ জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক স্পষ্টত দাবি রাখলেন বিজেপির ৭ সাংসদ তৃণমূলে খুব শীঘ্রই যোগদান করছেন তাঁর এই বক্তব্যের পর বঙ্গ রাজনীতিতে জল্পনা বহুগুণ বেড়ে গেল।