Holi 2023: ন্যাড়া পোড়ায় কোন গাছের কাঠ দিচ্ছেন? একটু ভুলে ঘিরে ধরবে অমঙ্গলের ছায়া

।। প্রথম কলকাতা ।।

Holi 2023: আবার এক বছর পর চলে এল বহু প্রতীক্ষিত হোলি(Holi)। ধর্মীয় বিশ্বাস অনুসারে, হোলিকা দহন হোলি উৎসব উদযাপনের একদিন আগে করা হয়। ২০২৩ এ হোলিকা দহন অর্থাৎ ন্যাড়া পোড়া পড়েছে ৭ই মার্চ। এই রীতি শুভ শক্তির জয় এবং অশুভ শক্তির পরাজয়ের প্রতীক। হোলিকা দহনের পরের দিনই থাকে হোলি। পশ্চিমবঙ্গে(West Bengal) অনেকে এটি ন্যাড়া পোড়া বললেও উত্তর ভারতের হোলিকা দহন হিসেবে ব্যাপক প্রচলিত। এই রীতি অনুযায়ী, বিভিন্ন ধরনের কাঠ দিয়ে আগুন জ্বালানো হয়। কিন্তু কাঠ বাছাই করা হয় বিশেষভাবে। প্রচলিত বিশ্বাস এবং ধ্যান ধারণা অনুযায়ী, এমন কিছু কিছু কাঠ রয়েছে যা পোড়ালে হিতে বিপরীত হতে পারে। সংসারে নেমে আসতে পারে অমঙ্গলের ছায়া। এছাড়াও কাঁচা সবুজ পাতা বিশিষ্ট কিংবা ফল ফুল যুক্ত গাছ পোড়াতে নেই। সনাতন ধর্মে আম, আমলকি, কলা, অশোক, বেল, নিম প্রভৃতি গাছ গুলিকে অত্যন্ত শুভ বলে মনে করা হয়। তাই এই গাছের কাঠ পোড়ানোর কাজে ব্যবহার করা হয় না।

হোলিকা দহনের প্রস্তুতি কয়েক দিন আগে থেকে শুরু হয় এবং বহু ব্যক্তি হোলিকা দহনের জন্য কাঠ সংগ্রহ করতে শুরু করেন। কিন্তু ধর্মীয় বিশ্বাস অনুসারে, কিছু গাছ আছে যাদের কাঠ হোলিকা দহনের সময় পোড়ানো হয় না। হোলিকা দহনে কোন গাছের কাঠ পোড়ানো উচিত নয় একটু বিস্তারিত জেনে নিন।

যে কাঠ পোড়ানো অশুভ

হোলিকা দহনের জন্য কখনই পিপল, আমলকী, নিম, আম, কলা গাছে শুকনো অংশ এবং বেল কাঠ ব্যবহার করবেন না। এই সমস্ত গাছের বিশেষ গুরুত্ব সনাতন ধর্মে বলা হয়েছে। সবুজ বা কাঁচা গাছের কাঠ কখনই দহনে রাখা উচিত নয়। এই দহনকে হত্যার সমতুল্য বলা হয়। অন্যদিকে হোলিকা দহনে আগাছা, শুকনো কাঠ ইত্যাদি ব্যবহার করা যেতে পারে। এতে আশেপাশের পরিবেশও পরিষ্কার হবে এবং সবুজ গাছ কাটাও হবে না। হোলিকা দহনে ডুমুর এবং রেড়ি বা ক্যাস্টর গাছের কাঠ ব্যবহার করা শুভ। প্রকৃতপক্ষে বসন্তে এই ধরনের গাছের ডালগুলি শুকিয়ে যায় এবং এই কাঠগুলি শীঘ্রই পুড়ে যায়। এর পাশাপাশি হোলিকা দহনে গোবরের শুকনো বলও পোড়ানো যেতে পারে।

হোলি উদযাপনের নেপথ্যে পৌরাণিক গুরুত্ব

হোলি উদযাপনের পিছনে ধর্মীয় গ্রন্থে হরি ভক্ত প্রহ্লাদ এবং হিরণ্যকশিপুর গল্প রয়েছে। ফাল্গুন মাসের পূর্ণিমা তিথিতে মন্দের উপর ভালোর জয়ের কথা স্মরণ করে হোলিকা দহন পালন করা হয়। রাক্ষস রাজা হিরণ্যকশিপুর পুত্র প্রহ্লাদ ভগবান বিষ্ণুর পরম ভক্ত ছিলেন, কিন্তু হিরণ্যকশিপু তা পছন্দ করতেন না। শিশু প্রহ্লাদকে ভগবানের ভক্তি থেকে সরিয়ে দেওয়ার কাজটি তার বোন হোলিকার উপর অর্পণ করা হয়েছিল, যার বর ছিল যে আগুন তার শরীরকে পোড়াতে পারে না। হোলিকা প্রহ্লাদকে হত্যা করার উদ্দেশ্য নিয়ে আগুনে বসেছিলেন, কিন্তু প্রহ্লাদের ভক্তির কারণে হোলিকা নিজেই আগুনে পুড়ে যায়, অপর দিকে প্রহ্লাদের কোন ক্ষতি হয়নি। এটি মন্দের উপর ভালোর বিজয় হিসাবেও পালিত হয়।

 

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Exit mobile version