Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

“কী হল ওদিকে?”, নন্দীগ্রামে বিজেপির সভায় হঠাৎ বিশৃঙ্খলা, শুভেন্দু আস্বস্ত করলেন সবাইকে

1 min read

।। প্রথম কলকাতা ।।

নন্দীগ্রামের সময় আজ এক লক্ষ লোক হবে একথা আগেই বলেছিলেন বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারী। সেইমতো সকাল থেকে মেদিনীপুরের মানুষের অলিখিত ঠিকানা হয়ে গিয়েছিল নন্দীগ্রামের স্টেট ব্যাংক সংলগ্ন মাঠ।

সেখানে দুপুরের বহু আগে থেকেই মানুষ জড়ো হয়েছিলেন। অত্যন্ত সুশৃংখলভাবে বিজেপি কর্মী সমর্থকরা উৎসাহ-উদ্দীপনার সঙ্গে সমাবেশস্থলে আসেন। কিন্তু হঠাৎই কিছুক্ষণের জন্য তাল কেটে গেল সভা শুরু হবার একটু পরে। মঞ্চে তখন বক্তব্য রাখছেন রাজ্য বিজেপির কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয়।

হঠাৎই বেশ কিছু মানুষ সেখানে ছোটাছুটি শুরু করে দেন। সেই রেশ ছড়িয়ে পড়ে অন্যান্যদের মধ্যে। কি হয়েছে প্রথমে বুঝতে পারছিলেন না মঞ্চে উপবিষ্ট বিজেপি নেতৃত্ব। বক্তব্য থামিয়ে দিলেন কৈলাস। মাইক হাতে নিলেন শুভেন্দু।

তিনি বললেন, কিছু লোক পাঠিয়ে দিয়ে এই সভা ভণ্ডুল করার চেষ্টা করা হচ্ছে। আমাকে আপনারা বিশ্বাস করেন তো? আমি বক্তব্য রাখব। একটু ধৈর্য ধরুন। কৈলাস জি, দিলীপ ঘোষের বক্তব্য শুনুন।

এই অবস্থা একেবারেই অনভিপ্রেত ছিল। তবে কি তৃণমূল কংগ্রেসের মদতে সেখানে হাঙ্গামা বাঁধানোর চেষ্টা করা হয়েছিল? সেই সম্ভাবনা উড়িয়ে দিচ্ছেন না বিজেপি নেতারা। শুভেন্দুর কথায় সেই অভিযোগ উঠে এসেছে। যদিও শুভেন্দু যখন মাইক হাতে নিয়ে সবাইকে আশ্বস্ত করলেন, তখন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে দ্রুত।

উল্লেখ্য এদিন সভা শুরুর আগে নন্দীগ্রামের সামশেরগঞ্জে তৃণমূল পাল্টা মিছিল করেছে। তৃণমূলের অভিযোগ তাদের পতাকা ব্যানার বিজেপি সমর্থকরা ছিড়ে দিয়েছে। তখন সেখানে দিয়ে বিজেপির মিছিল আসছিল। স্বাভাবিকভাবেই বিষয়টি নিয়ে মৃদু উত্তেজনা দেখা দেয়। তখনই বোঝা গিয়েছিল সভাতে কিছু একটা হতে পারে।

ঠিক সেই পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল কৈলাস বিজয়বর্গীয় বক্তব্য রাখার সময়। সব মিলিয়ে বিষয়টি নিয়ে চরম ক্ষুব্ধ শুভেন্দু অধিকারী সহ অন্যান্য বিজেপি নেতৃত্ব। এই সভা শুভেন্দুর কাছে প্রেস্টিজ ফাইট হিসেবে চিহ্নিত হয়েছে।

[ আরো পড়ুন :নতুন সূর্যোদয় ঘটবে, শেষ পরিবর্তনটা দেখতে চান মুকুল ]

যেভাবে হাজার হাজার মানুষ এদিন উপস্থিত হয়েছেন নন্দীগ্রামের স্টেট ব্যাংক সংলগ্ন মাঠে, তাতে চিন্তার ভাঁজ পড়েছে তৃণমূল শিবিরে। বিজেপি মনে করছে সভায় বিঘ্ন ঘটানোর জন্য তৃণমূলের কিছু লোকজন সেখানে হাজির থেকে সমস্যা তৈরি করতে চেয়েছে। যদিও পরে আর সেই সমস্যা দেখা দেয়নি। রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের ভাষণ মানুষ উৎসাহের সঙ্গে শুনেছেন। উল্লেখ্য এদিন তৃণমূলের বহু কর্মী-সমর্থক বিজেপিতে যোগদান করেছেন।