জেলবন্দি থাকাকালীন তৃণমূলকে মাসিক চাঁদা দিয়ে এসেছি, বললেন কুনাল ঘোষ

।। রাজীব ঘোষ ।।

রাজনীতি ভালো লাগার জায়গা। রাজনীতির একজন পর্যবেক্ষক। সাংবাদিকতায় থাকাকালীন রাজনৈতিক জায়গা আমার পছন্দের। তবে সাংবাদিকতাই প্রথম পছন্দের জায়গা। প্রথম কলকাতায় লাইভে এসে জানালেন তৃণমূল মুখপাত্র কুণাল ঘোষ। সংবাদের নিরপেক্ষতার প্রসঙ্গে খবরের কাগজের ক্ষেত্রে বিজ্ঞাপনদাতার উপরে নির্ভরতার কথা বলেন তিনি। সেইখানে নিরপেক্ষতার প্রশ্নে ডিজিটাল মিডিয়া একটা জায়গায় থাকতে পারে।

প্রথম শ্রেণীর ডিজিটাল মিডিয়ার কথা বলেন কুনাল। সে ক্ষেত্রে প্রথম কলকাতার কথাও বলেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সংগ্রামকে দেখেই তিনি রাজনীতির প্রতি আকৃষ্ট হয়েছেন বলে জানান। এরপর বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের প্রসঙ্গে কুনাল বলেন মুকুল রায়ের চারপাশের লোকজন বলছেন আমি নাকি বিভিন্ন কথা প্রচার করছি। মুকুল তৃণমূলে আসবেন নাকি বিজেপিতে থাকবেন সেটা তার ব্যাপার এবং দলের নেতৃত্বে ব্যাপার। যারা গালাগালি করে বলছেন তারা একবার মুকুল রায়কে গিয়ে বলুন আপনার নাতনির মাথায় হাত রেখে বলুন আপনি তৃণমূলে ফিরে যাওয়ার কোনো আগ্রহ দেখাননি।

কোনো আলোচনায় যাননি। কী সিদ্ধান্ত হবে সেটা আলাদা বিষয়। কুণালের কথায় যারা এসব কথা বলছেন তারা একবার মুকুল রায় কে জিজ্ঞেস করুন কোনো বৈঠকে তিনি ছিলেন কিনা। মুকুল রায় ২০১৮ সালে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন। এখনো পর্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পান নি। শুধু শোনা যায় তিনি মন্ত্রী হবেন দলের গুরুত্বপূর্ণ পদ পাবেন। প্রায় আড়াই বছর হয়ে যাওয়ার পরেও মুকুল রায়কে কোনো সম্মানজনক পদ দেওয়ার প্রয়োজন মনে করেনি বিজেপি।

সামনে বাংলায় নির্বাচন রয়েছে এবার মুকুলকে পদ দিতে পারেন। হয়তো তিনি গ্রহণ করবেন। মুকুল রায়ের সঙ্গে জাতীয় কর্মসমিতির সদস্য অভিনেতা জয় ব্যানার্জি। যেখানে মুকুল রায়ের মত লোককে দুই বছরের ওয়েটিং লিস্টে থাকতে হয়। যারা দল ছাড়ার কথা ভাবছেন তাদের কি অবস্থা হবে ভেবে দেখুন। তবে এখন উল্টো শুরু হয়েছে বিজেপি থেকে তৃণমূলে ফিরে আসছে। প্রসঙ্গত, বেশ কিছুদিন ধরেই বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের তৃণমূলে ফিরে যাওয়ার বিষয়ে বিভিন্ন মহল থেকে জল্পনা শোনা যাচ্ছিল।

সেই বিষয়েই এদিন তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ এই কথা বলেন। তিনি জেলবন্দি থাকাকালীন তৃণমূল কংগ্রেসকে মাসিক চাঁদা দিয়ে এসেছেন এবং তৃণমূল দলের পক্ষ থেকে সেটা গ্রহণ করা হয়েছে। যারা বিজেপি বা অন্য দলে গিয়েছেন তাদের উদ্দেশ্যে কুনাল বলেন অনেক ঝড় জল বয়ে গিয়েছে তবুও তৃণমূলকে নিজের ঘর ভেবেই রয়েছি। তৃণমূলের পক্ষ থেকে পরিবর্তনের আন্দোলন যথেষ্ট ঝুঁকি নিয়ে করতে হয়েছে। দল এখন যে দায়িত্ব দিয়েছে সেই দায়িত্ব পালন করার চেষ্টা করব বলে জানান তিনি।