Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

ভোট পড়ছে ব্যাপক হারে, উৎফুল্ল বিজেপি, শঙ্কা শাসদলের?

।। প্রথম কলকাতা ।।


বিধানসভা বা লোকসভা নির্বাচন, বিপুল সংখ্যায় ভোট পড়লে বিষয়টি নিয়ে জোর চর্চা শুরু হয় রাজনৈতিক মহলে। বেশি ভোট পড়া মানে সেটি শাসকদলের বিরুদ্ধে যাচ্ছে, এরকম একটা ধারণা আছে জনমানসে। এটা কখনও সত্যি হয়েছে, আবার অনেক সময় হয়নি। তবুও বেশি ভোট পড়লে শাসক দলের মধ্যে শঙ্কা তৈরি হয়। মঙ্গলবার তৃতীয় দফার নির্বাচনে দেখা গেল বিপুল সংখ্যায় ভোট পড়ছে আগের দুটি দফার মতই। স্বাভাবিকভাবেই বিষয়টি নিয়ে উৎসাহিত বিজেপি।

দুপুর তিনটে পর্যন্ত নির্বাচন কমিশনের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী দেখা যাচ্ছে, দক্ষিণ ২৪ পরগনায় ৬৫.৫৭, হুগলিতে ৭২.৬০ এবং হাওড়ায় ৬৮.৩৭ শতাংশ ভোট পড়েছে। অর্থাৎ পাঁচটার পর এই হার আরও অনেক বেশি বেড়ে যাবে। সার্বিক ভোটদানের হার ৮৫ শতাংশের কাছাকাছি পৌঁছে গেলে অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না। ভোট পড়ার ট্রেন্ড তেমন ইঙ্গিতই দিচ্ছে। কারণ বহু মানুষ রোদের তাপ কমার পর বাড়ি থেকে বের হবেন। এই সংখ্যাটা নেহাত কম নয়।

প্রথম দুটি দফাতেও দেখা গিয়েছে একই ছবি। বিশেষ করে যে কেন্দ্রটিকে নিয়ে সবচেয়ে বেশি চর্চা হয়েছে, সেই নন্দীগ্রামে ভোট পড়েছে ৮৮ শতাংশ। তখন থেকেই বিজেপি দাবি করছে নন্দীগ্রামে হেরে গিয়েছেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যদিও তৃণমূলের পাল্টা দাবি, মমতা সেখান থেকে বিপুল ভোটে জিতবেন। কিন্তু এটা পরিস্কার বলা যেতে পারে, যেভাবে বিপুল সংখ্যায় ভোট পড়ছে, তাতে স্বস্তিতে নেই তৃণমূল। মঙ্গলবার দেখা গিয়েছে দুপুর তিনটেতেই হুগলিতে প্রায় ৭৩ শতাংশ ভোট পড়েছে। প্রবল গরমের মধ্যেও ভোটাররা ভোটদানের ব্যাপারে নিরুৎসাহিত হননি।

আগের দুটি দফার মতই মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বেশিমাত্রায় ভোটদানের জন্য মানুষের কাছে আবেদন জানিয়েছেন। আর ভোটাররা সেই আবেদনে প্রবলভাবে সাড়া দিয়েছেন। ভোট হচ্ছে গণতন্ত্রের শ্রেষ্ঠ উৎসব। কাউকে টেনে নীচে নামিয়ে দেয়, আবার কাউকে শূন্য থেকে ওপরে তুলে দেয়। তাই তৃতীয় দফায় দুপুর তিনটে পর্যন্ত পাওয়া হিসেব অনুযায়ী যে বিপুল সংখ্যায় ভোট পড়ছে, তাতে কোন রাজনৈতিক দল শেষ হাসি হাসবে সেটাই এখন দেখার।