এয়ার ইন্ডিয়ার কর্মীদের বিনা বেতনে ছুটি, কেন্দ্রকে চিঠি ডেরেকের

1 min read

।। রাজীব ঘোষ।।

লকডাউনে কেন্দ্রীয় সরকার কর্মীদের বেতন দেওয়ার জন্য নির্দেশ দিয়েছিল। কিন্তু কেন্দ্রীয় সরকার স্বয়ং সেই নির্দেশ বিরোধী পদক্ষেপ করছেন। লকডাউন এর সময় এয়ার ইন্ডিয়ার কর্মীরা নিয়মিত কাজ করে গিয়েছেন। মোদি সরকার সেই কর্মীদের প্রতি সহানুভূতিশীল নয়। কেন্দ্রীয় অসামরিক বিমান পরিবহন মন্ত্রী হরদীপ সিং পুরীকে চিঠিতে লিখেছেন তৃণমূল সাংসদ ডেরেক ও ব্রায়েন।

মোদি সরকারের এই সিদ্ধান্তকে পরস্পর বিরোধী এবং অগণতান্ত্রিক বলে দাবি করেছেন তিনি। চিঠিতে আরো লিখেছেন কেন্দ্র যে পরিকল্পনাটি তৈরি করেছে তার থেকে অগণতান্ত্রিক আর কিছু হয়না। এই প্রক্রিয়াটির জন্য কর্মীরা রাজি ছিলেন না। প্রক্রিয়াটি তৈরি করার সময় কর্মীদের তরফে কথা বলার জন্য কেউ ছিলেন না। একতরফাভাবে কেন্দ্রীয় সরকার এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে।

এই সিদ্ধান্ত অমানবিক বলেও দাবি করেছেন ডেরেক ও’ব্রায়েন। প্রসঙ্গত, এয়ার ইন্ডিয়ার কর্মীদের বিনা বেতনে ছুটিতে যাওয়ার জন্য নির্দেশ দিয়েছে বিমান সংস্থাটি। কর্মীদের সেই ছুটি ৬ মাস থেকে ২ বছর পর্যন্ত চলতে পারে। প্রয়োজনে ৫ বছর পর্যন্ত বাড়তে পারে। বিনা বেতনে ছুটিতে যাওয়ার সিদ্ধান্ত এয়ার ইন্ডিয়ার কর্মীদের জীবন-জীবিকার অধিকারের উপর আঘাত বলে মনে করেন ডেরেক ও ব্রায়েন।

এই পদক্ষেপ দেশের শ্রম আইনের পরিপন্থী। সংস্থার কর্মীদের বেতন মিটিয়ে দেওয়ার জন্য আর্জি জানান তিনি। মোদি সরকারের এই পদক্ষেপের বিরুদ্ধে দেশের সমস্ত শ্রমিক সংগঠন কে একযোগে আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান জানান তৃণমূল সাংসদ ডেরেক ও ব্রায়েন। আরএসএসের শ্রমিক সংগঠন ভারতীয় মজদুর সংঘ প্রতিবাদে সামিল হওয়ার আহ্বান জানান।

কেন্দ্রীয় সরকার মহামারির সুযোগ নিয়েছে। যা ইচ্ছা তাই করছে। রাজ্য সরকারের সঙ্গে আলোচনা না করেই একাধিক আইন বদল করছে। সরকারের নামে স্বৈরাচার চলছে। দেশের শ্রম আইন রয়েছে। কেন্দ্রীয় সরকার কিভাবে চাকরি ছিনিয়ে নিয়ে কর্মীদের বিপন্ন করে তুলতে পারে প্রশ্ন করেছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এই বিষয়ে কেন্দ্রীয় সরকারকে চিঠি দিলেন তৃণমূল সাংসদ ডেরেক ও ব্রায়েন।