হাতিয়া চ্যানেলে পণ্যসহ ডুবলো দুটি লাইটার জাহাজ

1 min read

।। চট্টগ্রাম ব্যুরো, বাংলাদেশ ।।

উত্তাল সাগর পাড়ি দিয়ে চট্টগ্রাম থেকে নারায়ণগঞ্জে যাওয়ার পথে বঙ্গোপসাগরের হাতিয়া চ্যানেলে পণ্যবাহী দুটি লাইটার জাহাজ ডুবে গেছে। শনিবার (১৫ আগস্ট) সকাল ৬ টার ও ৮ টার দিকে ভাসানচরের এই ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, ডুবে যাওয়া জাহাজ দুটির একটি হচ্ছে, শীর্ষস্থানীয় শিল্পপ্রতিষ্ঠান আবুল খায়ের গ্রুপের আখতার বানু-১। এটি সাগরে উত্তাল ঢেউয়ের মধ্যে পড়ে উল্টো যায়। এই লাইটার জাহাজটি ২ হাজার টন গম নিয়ে ঢাকা যাচ্ছিল। অন্যটি হচ্ছে সিটি গ্রুপের সিটি-১৪। এটি দেড় হাজার টন অপরিশোধিত চিনি বহন করছিল।

এরমধ্যে একটি জাহাজের নাবিকদের উদ্ধার করা সম্ভব হলেও আরেকটির নাবিকদের এখন পর্যন্ত খোঁজ পাওয়া যায়নি।আখতার বানু-১ জাহাজের শিপিং এজেন্ট লিটমন্ড শিপিংয়ের অপারেশন ম্যানেজার জাহিদ হোসেন বলেন, সকাল থেকেই নাবিকদের খোঁজ নিতে চেষ্টা চলছে। জাহাজের সার্ভেয়ারকে ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়েছে, কিন্তু এখন পর্যন্ত নাবিকদের খোঁজ মেলেনি।

চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙরে থাকা বড় জাহাজ থেকে ছোট জাহাজে এসব চিনি নামিয়ে নিজেদের কারখানায় নিয়ে যাচ্ছিল সিটি-১৪ লাইটার জাহাজটি। মাঝপথে সেটি ডুবে যায়। চলতি পথে সিটি গ্রুপের আরেকটি জাহাজ ডুবে যাওয়ার ঘটনা দেখতে পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে গিয়ে নাবিকদের উদ্ধার করে উপকূলে নিয়ে যায়। তবে পণ্যসহ জাহাজটি ঘটনাস্থলেই ডুবে গেছে।

বিআইডব্লিউটিএ’র উপ-পরিচালক মোহাম্মদ সেলিম বলেন, দুই হাজার টনের মতো অপরিশোধিত চিনি নিয়ে এমভি সিটি-১৪ লাইটারেজটি বন্দরের বহির্নোঙ্গর থেকে গভীর রাতে রওনা দেয়। হাতিয়া চ্যানেলের ডাউনে ঠেঙ্গারচরের কাছে ভাসানচরের অদূরে অতিরিক্ত ঢেউয়ের কারণে জাহাজের হ্যাজে পানি প্রবেশ করে ডুবে যায়। ডুবে যাওয়ার পর জাহাজটিকে ঠেঙ্গারচরের তীরের কাছে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, সকাল আটটার দিকে হাতিয়ার ভাসানচর এলাকায় ১ হাজার ৮০০ টন গম বোঝাই ‘এমভি আখতার বানু’ নামে আরেকটি জাহাজ ডুবে যায়।

ওই জাহাজের নিখোঁজ নাবিকদের উদ্ধারে কোস্ট গার্ড অভিযান পরিচালনা করছে।উল্লেখ, বঙ্গোপসাগরের ঐ এলাকায় গত ৫ আগস্ট চিনিভর্তি আরো একটি জাহাজ ডুবে গিয়েছিলো।