Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

অধিকারী বনাম বন্দ্যোপাধ্যায় দ্বন্দ্বে বিপর্যস্ত তৃণমূল

1 min read

||শিবপ্রিয় দাশগুপ্ত||

তৃণমূল এখন দেড় জনের প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি। ওটা আর রাজনৈগিক দল নেই। তাই এটা যখন বুঝেছি তখনই দলটা ছেড়েছি। তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর এটাই শুভেন্দু অধিকারীর মূল বক্তব্য। তবে এটাই যে সত্যি তাঁর দল ছাড়ার কারণ নয় তা তিনি ভাইপো হঠাও বলে বিজেপিতে যোগ দেওয়া ইস্তক সবকটি সভায় বলে বুঝিয়ে আসছেন। তাই এখন এটা জলের মতো পরিস্কার যে শুভেন্দু অভিষেকের জন্যই তৃণমল ছেড়েছেন।

আর ভাইপো অর্থাৎ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় শুভেন্দুকে তাঁর বিরুদ্ধে বলার জন্য পালটা দিয়ে চলেছেন। তৃণমূল সুপ্রিমো বলছেন, যারা গেছে যাক। তাতে দলের কিছু এসে যায় না। কিন্তু পূর্ব মেদিনীপুরের রামনগরের তৃণমূল বিধায়ক, যাকে সদ্য দিঘা-শঙ্করপুর উন্নয়ন পর্ষদের চেয়ারম্যান পদ দেওয়া হয়েছে।

যিনি শুভেন্দু দল ছাড়ার আগে না হলেও একশো বার বলেছেন কেন শুভেন্দু তৃণমূল ছাড়ছেন না? সেই অখিল গিরি বুধবার বললেন, “শুভেন্দু অধিকারী দল ছাড়ার পর এবং শিশির অধিকারীকে পূর্ব মেদিনীপুরের তৃণমূল সভাপতি পদ থেকে সরানোর
পর জেলায় তৃণমূল সংগঠন ঢিলেঢালা হয়ে গেছে। সংগঠনটাকে এবার মজবুত করতে হবে।”
শুভেন্দু বনাম অভিষেক লড়াই যে তৃণমূলকে এভাবে আড়াআড়ি ভাবে ভেঙে দেবে তা বোধ-হয় তৃণমূলের চিরশত্রুও ভাবেনি। কিন্তু বাস্তবে তা হল।
অখিল গিরির সংগঠন সম্পর্কে এই মন্তব্য প্রমাণ করছে দুই মেদিনীপুর জেলায় অধিকারী পরিবারই তৃণমূলের প্রদীপের সলতে ছিল। যা এখন নিবতে চলেছে।

[ আরো পড়ুন :এবার রাজনীতি ছাড়ার হুমকি উদয়ন গুহ-র গলায় ]

সৌমেন মহাপাত্রকে শিশির অধিকারীর স্থলাভিষিক্ত করার বিষয়ে পূর্ব মেদিনীপুর জেলা তৃণমূলে ক্ষোভ ও ভাঙন যে আরও বাড়বে তার আভাস দিলেন অখিল গিরি। এই অখিল গিরিকেই শিশিরবাবুর থেকে দিঘা-শঙ্করপুর উন্নয়ন পর্ষদের চেয়ারম্যান পদ কেড়ে দেওয়া হয়েছে। যে
অখিল গিরি মনে করতে পারছেন না শেষ কবে তিনি শিশির অধিকারীর সঙ্গে তিনি কথা বলেছেন, তবে শিশির অধিকারীর শরীর খারাপ এটা তিনি স্পষ্ট বলে দিতে পারছেন।
১৯৯৮ -র ১ জানুয়ারি তৃণমূলের প্রতিষ্ঠা দিবস। বয়সে সত্যিই ২২ বছরের যুবক এই দলটি কী দলেরই দুই বর্তমান ও প্রাক্তন যুব সভাপতির লড়াইয়ে নিস্তেজ হয়ে পড়ল? না হলে অখিল গিরি কেন তৃণমূলের সঙ্গে অধিকারী পরিবারের দূরত্ব বাড়ায় জেলায় তৃণমূল সংগঠন ঢিলেঢালা হয়ে গেছে বলে মন্তব্য করবেন?