Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

পুলিশ আর দুষ্কৃতীর মেলবন্ধনের একটি দল হ ল তৃণমূল, কটাক্ষ সায়ন্তন বসুর

1 min read

।। শর্মিলা মিত্র ।।

মালদার সামসি এলাকায় বিজেপির সংখ্যালঘু সভাপতি সাবেক আলির গুলিবিদ্ধ হওয়ার ঘটনায় ইতিমধ্যেই দোষীদের কঠোর শাস্তির দাবি জানিয়েছেন উত্তর মালদা কেন্দ্রের বিজেপি সাংসদ খগেন মুর্মু। অন্যদিকে, অভিযুক্তদের গ্রেফতার করা না হলে অবিলম্বে আন্দোলনে নামার হুঁশিয়ারি দেয় জেলা বিজেপি। আর এবার গুলিবিদ্ধ সাবেক আলিকে দেখতে মালদা মেডিকাল কলেজ ও হাসপাতালে যান রাজ্য বিজেপির সাধারন সম্পাদক সায়ন্তন বসু (Sayantan Bose)। হাসপাতাল থেকে বেরিয়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে সায়ন্তন বসু (Sayantan Bose) সাবেক আলির বিষয় জানানোর পাশাপাশি তিনি বলেন, ‘আশঙ্কার কোন কারন নেই, তার ধারনা আগামী ৪, ৫ দিনে তিনি সুস্থ হয়ে যাবেন।’

পাশাপাশি তিনি জানান, ‘সাবেক আলি তাকে জানিয়েছেন, পঞ্চায়েত প্রধানের ছেলে এবং তার স্বামী দুজনে মিলে আমাকে গাড়ির মধ্যে লক্ষ্য করে গুলি চালিয়েছে।’ এই বিষয়ে সায়ন্তন বসু (Sayantan Bose) বলেন, ‘ওই পঞ্চায়েতটা ভারতীয় জনতা পার্টির হাতে আসবে। তৃণমূলের সদস্যরা ইতিমধ্যেই ভারতীয় জনতা পার্টিতে নাম লিখিয়েছেন বা লেখাতে চলেছেন। সে কারনেই এই আক্রমন, মনে হচ্ছে বলে জানান সায়ন্তন বসু। পাশাপাশি তার মন্তব্য, ‘পঞ্চায়েত প্রধানের পরিবারের লোকজন এই হত্যাকাণ্ডের চেষ্টার সঙ্গে প্রত্যক্ষভাবে যুক্ত’। এছাড়া, রাজ্য বিজেপির সাধারন সম্পাদক সায়ন্তন বসুর (Sayantan Bose) মন্তব্য, ‘সৌভাগ্যজনকভাবে সাবেক আলি বেঁচে গেছেন, দুর্ভাগ্যজনকভাবে পুলিশ এখনও কাউকে ধরতে পারেনি।’

আরো পড়ুন :দলবদলে বিপাকে সুনীল , কড়া পদক্ষেপ তৃণমূলের

তার মন্তব্য, ‘ধরতে পারেনি না ধরছেনা আমরা জানিনা, যদি অবলম্বে দোষীদের গ্রেফতার না করা হয় তাহলে আমরা আন্দোলনকে তীব্র রূপ দেব’ বলে হুঁশিয়ারি সায়ন্তন বসুর। পাশাপাশি তিনি আরও বলেন, ‘দু তিন দিন দেখব পুলিশ যদি দোষীদের গ্রেফতার না করে তাহলে আমরাই দোষীদের ধরব, রাস্তায় নেমে যা ব্যবস্থা নেওয়ার নেওয়া হবে’ বলেও হুঁশিয়ারি দেন তিনি। সায়ন্তন বসুর (Sayantan Bose) কটাক্ষ, ‘তৃণমূল কংগ্রেস দলে দুষ্কৃতীকারী ছাড়া আর পুলিশ ছাড়া এখন কেউ নেই। তৃণমূল হচ্ছে পুলিশ আর দুষ্কৃতীর মেলবন্ধনের একটি দল। দু তিন দিন আছে তারপরে আর থাকবেনা।’ পাশাপাশি তার আরও মন্তব্য, ‘মালদা রেশম শিল্পের জন্য এখন আর বিখ্যাত নয়, আমের জন্য মালদা বিখ্যাত নয়, মালদা এখন বোমা, অস্ত্র আর জাল নোটের জন্য কুখ্যাত হয়েছে।

তৃণমূল কংগ্রেস রেশম শিল্প আম শিল্প বাংলা থেকে বা মালদা থেকে তুলে দিয়ে এগুলো করেছে। ফলে কালিয়াচক সহ বিভিন্ন জায়গায় এধরনের অস্ত্র তৈরি হচ্ছে আর তৃণমূল নেতাদের ঘরে ঘরে এই অস্ত্র আছে নির্বাচন ঘোষণা হলে আধা সামরিক বাহিনীর প্রথম কাজ হবে তৃণমূলের সব নেতাদের বাড়ি ওয়ারেন্ট নিয়ে গিয়ে সার্চ করা এবং ওই অস্ত্রগুলো উদ্ধার করা।’ এইভাবেই তৃণমূল কংগ্রেস ও পুলিশ প্রশাসনকে একহাত নেন রাজ্য বিজেপির সাধারন সম্পাদক সায়ন্তন বসু (Sayantan Bose)। প্রসঙ্গত, রবিবার গভীর রাতে সামসি থেকে বাড়ি ফেরার পথে ১৮ নং মালদা জেলা পরিষদের বিজেপির সংখ্যালঘু সভাপতি সাবেক আলির গাড়ি লক্ষ্য করে গুলি চালানোর ঘটনা ঘটে। গুলিবিদ্ধ হন বিজেপির সংখ্যালঘু সভাপতি সাবেক আলি। অভিযোগের তীর তৃণমূলের দিকে। যদিও অভিযোগ অস্বীকার করেছে তৃণমূল কংগ্রেস।