দীর্ঘ পাঁচ মাস পর আজ খুলেছে কক্সবাজারের পর্যটন শিল্প

1 min read

।।চট্টগ্রাম ব্যুরো, বাংলাদেশ।।

করোনাকালের দীর্ঘ প্রায় পাঁচ মাস বন্ধ থাকার পর আজ সোমবার (১৭ আগস্ট) প্রতিকূল আবহাওয়ার মাঝেই সীমিত আকারে কক্সবাজারের হোটেল, মোটেল, কটেজ, রেস্টুরেন্টসহ পর্যটন শিল্প খুলে দেওয়া হচ্ছে। শুধুমাত্র কক্সবাজার পৌর এলাকার পর্যটন শিল্প সম্পৃক্ত প্রতিষ্ঠানসমূহ খোলার অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

গত ৫ আগস্ট কক্সবাজার জেলা করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি ও জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেনের সভাপতিত্বে অনলাইন প্লাটফর্মে অনুষ্ঠিত কমিটির জুম কনফারেন্স সভায় নেওয়া সিদ্ধান্তের আলোকে কক্সবাজার জেলা প্রশাসন পর্যটন শিল্প খুলে দেওয়ার জন্য এই ব্যবস্থা নিয়েছে।

সীমিত আকারে আজ থেকে কক্সবাজারের পর্যটন শিল্প খুলে দেওয়ায় কক্সবাজারের হোটেল, মোটেল, কটেজ, রেস্টুরেন্ট, ক্ষুদে ব্যবসায়ী, কিটকট ব্যবসায়ী, ভাসমান ব্যবসায়ী সহ সংশ্লিষ্ট সকলে পর্যটকদের বরণ করতে প্রায় সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছেন।

সকলের হাক-ডাকে সরব হয়ে উঠেছে বীচ, হোটেল মোটেল জোন এলাকা। ফিরে এসেছে কর্মচাঞ্চল্য। নিয়েছেন, স্বাস্থ্য বিধির আলোকে বিভিন্ন ব্যবস্থা।

ফিরে এসেছে, কক্সবাজারের কোলাহলময় ঐতিহ্যবাহী পর্যটন শিল্পের আসল রূপ। যদিও বা পর্যটন শিল্প খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্তে গত এক সপ্তাহ ধরে কক্সবাজারে ব্যাপকভাবে পর্যটক আসা শুরু করেছে।

দীর্ঘ প্রায় ৫ মাস করোনা পরিস্থিতিজনিত কারণে অবরুদ্ধ থাকার পর এখন একটু সাগরের নির্মল হাওয়া নিতে, লোনাজলে একটু পা ভেজাতে, দীর্ঘ বালুকাময় সৈকতে খালি পায়ে হাটতে পর্যটকেরা ছুটে আসছে তাদের স্বপ্নের কক্সবাজারে।

আগামী অক্টোবর মাস থেকে কক্সবাজারে পর্যটন মওসুম শুরু হওয়ার মাস দেড়েক আগেই কক্সবাজারের পর্যটন শিল্প উম্মুক্ত করে দেওয়ায় পর্যটন শিল্প উদ্যোক্তারা বেশ খুশি। তারা আসন্ন পর্যটন মওসুমের জন্য পরিকল্পিতভাবে সময় নিয়ে আগাম প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছেন। তবে পর্যটন শিল্প খুলে দেওয়ার সময় চলমান দুর্যেগপূর্ণ আবহাওয়া পর্যটন ব্যবসায়ীরা একটু চিন্তিত হয়ে পড়েছেন।

এছাড়া, কক্সবাজার জেলা টুরিস্ট পুলিশও পর্যটক এবং পর্যটক শিল্পের সার্বিক নিরাপত্তায় বেশ প্রস্ততি নিয়েছেন বলে জানা গেছে। কক্সবাজার বীচ ম্যানেজমেন্ট কমিটি, রেসকিউ টিম গুলো সহ সংশ্লিষ্ট সকলে তাদের প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নিয়েছেন বলে সংশ্লিষ্ট বিভাগ সমূহ নিশ্চিত করেছেন।

কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন বলেন, পর্যটনের স্টেক হোল্ডার সহ কক্সবাজারে পর্যটনশিল্পের সংশ্লিষ্ট সকলের সাথে দফায় দফায় বৈঠক করে তা স্পষ্টভাবে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে স্বাস্থবিধি কঠোরভাবে প্রতিপালন করতে।

তাদের স্বাস্থ্য বিধি, কর্মপন্থা ও গাইডলাইন সরবরাহ দেওয়া হয়েছে। পর্যটন শিল্পের প্রতিটি পর্যায়ে করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে পর্যাপ্ত কার্যকর ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে। পর্যটন শিল্পের সাথে সংশ্লিষ্ট সকলকে এবং আগত পর্যটকদের যে কোন অবস্থাতেই স্বাস্থ্য বিধি মানাতে বাধ্য করতে হবে। তারপরও কেউ স্বাস্থ্য বিধি লঙ্গন করলে তাদের আইনের আওতায় আনা হবে।