Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

কয়লা কান্ড গরু কান্ড কিচ্ছু বাকি নেই আর, চুরি করার বাকি নেই, তোপ অর্জুনের

1 min read

।।শর্মিলা মিত্র ।।

‘চায়ে পে চর্চা’ ও ‘কৃষক সুরক্ষা গ্রাম সভা’ কর্মসূচীতে যোগ দেওয়ার পর মালদার পুড়াটুলি বাঁধরোড এলাকায় বিজেপি কার্যালয়ে সাংবাদিক বৈঠক করেন ব্যারাকপুরের বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং (Arjun Singh)। সেইখানে একাধিক বিষয়কে কেন্দ্র করে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে তোপ দাগেন ব্যারাকপুরের বিজেপি সাংসদ। তিনি বলেন, ‘কয়লা কান্ড হোক বা গরু কান্ড হোক কোন টা বাকি আছে আর ? যা অবস্থা garbage বিক্রি করে উনি টাকা তুলছেন’ বলে কটাক্ষ করার পাশাপাশি অর্জুন সিং বলেন, ‘চুরি করার কিছু বাকি নেই এখন।’ তার মন্তব্য, ‘IPS কেন যারাই এই ঘটনার সঙ্গে যুক্ত আছেন, আমার মনে হচ্ছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের (Mamata Banerjee) দরজায় পৌঁছে গেছে CBI ।’

তার মন্তব্য, ‘বিনয় মিশ্র private party তে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের (Abhishek Banerjee) সঙ্গে পার্টি করছেন। আর সেই বিনয় মিশ্রর তল্লাশি হচ্ছে’। তিনি বলেন, ‘বিনয় মিশ্র হয়তো মুখ্যমন্ত্রীর আবাসেই লুকিয়ে আছে, এরকমতো হতে পারে। কারন, CBI পাচ্ছেনা কেন ? নোটিস দিচ্ছে আসছেনা। তাহলে কোথাও না কোথাও কেউ তাকে আশ্বাস দিচ্ছে তোমাকে আমরা বাঁচিয়ে নেব। কিন্তু তাকে private party তে তো দেখা যাচ্ছে। তিনি জেড সিকিউরিটি পেয়েছেন তিনি General Secretary যুবরাজের কম্পানির। যেভাবে রাজনীতিকভাবে তাকে support করা হচ্ছে এটা পশ্চিমবাংলার মানুষের বিচার করার সময় এসে গেছে’ বলেও মন্তব্য করেন অর্জুন সিং (Arjun Singh)।

আরো পড়ুন : ফোন করবেন না, ওরা আড়ি পাতছে, হোয়াটসঅ্যাপ করুন, বলছেন শোভন

অন্যদিকে ইতিমধ্যেই, বুধবারই রাজ্যের জেলা শাসক ও পুলিশ সুপারদের সঙ্গে বৈঠক করার পর বৈঠকে একাধিক নির্দেশ দেন ডেপুটি ইলেকশন কমিশনার সুদীপ জৈন (Sudip Jain)। পাশাপাশি, এখনও পর্যন্ত যেসব এলাকায় অশান্তি রয়েছে সেখানে ১০০% শান্তির পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে হবে বলেও বৈঠকে নির্দেশ দেন তিনি। বুধবার ও বৃহস্পতিবারের বৈঠকের পর জানা গিয়েছে, কার্যত তিনি জানিয়ে দেন যে, কর্তব্যে গাফিলতির অভিযোগ এলে এবার আর কোন শো কজ নয়, সরাসরি অপসারণের পদ্ধতিতেই হাঁটবে নির্বাচন কমিশন। নির্বাচন কাজের সঙ্গে যুক্ত থাকা যেকোন আধিকারিকদের বিরুদ্ধেই এই ধরনের পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে সূত্রের খবর। আর এবার এই বিষয় অর্জুন সিং-কে সাংবাদিকরা জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন, ‘যদি ইলেকশন কমিশন সাসপেন্ডের কথা বলেন, যদিও তিনি জানান তিনি বিষয়টি শোনেন নি কিন্তু যদি এই কথা বলেছেন তাহলে আমরা একটু আশ্বস্ত হব’ বলে জানান অর্জুন সিং।

তিনি আরও বলেন, ‘মনে হচ্ছে এবার নির্বাচনটা হবে’ কারন হিসেবে তিনি জানান, ‘এখানে নির্বাচন কমিশনের কোন ব্যক্তিগত পরিকাঠামো নেই নির্বাচন কমিশনকে এখানে রাজ্য সরকারের পরিকাঠামোর উপর ভিত্তি করে কাজ করতে হয়। এই যদি সাসপেন্ড বা মামলার ভয় না থাকে তাহলে এরা কিন্তু শেষের দিনই বিক্রি হয়ে যান। শেষের দিন এরা নিজেকে আত্মসমপর্ণ করে দেন’ বলেও মন্তব্য করেন অর্জুন সিং। তিনি আরও বলেন, ‘যদি নির্বাচন কমিশন এই পদক্ষেপ নিয়ে থাকে তাহলে এটা খুবই সঠিক পদক্ষেপ, তাহলে হয়তো নির্বাচন সুষ্ঠ শান্তভাবে হতে পারে’ বলে মন্তব্য করেন তিনি। পাশাপাশি তিনি আরও বলেন, ‘নাহলে বোমের কারখানার জায়গায় পিস্তলের যেখানে কারখানা চলছে সেখানে কীভাবে সুষ্ঠ নির্বাচন হবে।’ ৮০০ কম্পানির কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েনের বিষয় তিনি বলেন, ‘৮০০ কম্পানি হোক বা এক হাজার কম্পানি হোক যদি আইনের ব্যবস্থার মধ্যে এই ভয়টা না থাকে, পুলিশ আধিকারিক যদি adjust হয়ে যান, সে যদি রাজনৈতিক দলের হয়ে কাজ করতে শুরু করে দেয় ভোটের দিন যদি চাকরি চলে যাবার ভয় না থাকে তাহলে কিন্তু কখনও সুষ্ঠ নির্বাচন হতে পারেনা’ বলে মত প্রকাশ করেন বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং (Arjun Singh)।

‘সরকারি আধিকারিকদের চাকরি চলে যাবার ভয় থাকলে ডানদিক বাঁদিক ঘোরা বন্ধ হয়ে যায়। ভাবে আমার চাকরি চলে যাবে।’ বলেন মন্তব্য করেন তিনি। পাশাপাশি তার মন্তব্য, ‘মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee) গণতন্ত্র পুরো ধ্বংস করে দিয়েছে।’ ‘মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যতদিন ক্ষমতায় আছেন পুলিশকে দলদাস করে রেখেছেন। নির্বাচন কমিশনের আধিকারিকরা বারবার আসার কারনে আমাদের এখন মিছিল মিটিং করতে দিচ্ছেন। নাহলে আমাদের মিছিল মিটিং করতে দিতনা। আমাদের নেতাদের হেলিকপ্টার নামতে দিতনা।’ ‘আমরা কোন permission পেতাম না।’ তার অভিযোগ, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অরাজনৈতিকভাবে গুন্ডামি করে মস্তানি করে গুল্ডাডের এগিয়ে দিয়ে পুলিশকে বলে রাজনৈতিক কার্যক্রম করতে দেবেন না এটা গণতন্ত্রে শোভা দেয়না’ বলেও তোপ দাগেন ব্যারাকপুরের বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং (Arjun Singh)।