Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

‘গত পঞ্চায়েত নির্বাচনেও এত খুন হয়নি নির্বাচন কমিশন কি করছে?’প্রশ্ন একটাই মমতার

।। ময়ুখ বসু ।।


কেন এত খুন? কৈফিয়েত দিতে হবে নির্বাচন কমিশনকে। এভাবেই এবারে গর্জে উঠলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আলিপুরদুয়ারের সভা থেকে মমতা তোপ দেগে বললেন, মাত্র তিনটে দফাতেই রাজ্যে ৭ থেকে ৮ জন খুন হয়ে গিয়েছেন। যার মধ্যে তৃণমূলের ৪ জন কর্মী খুন হয়েছেন। কেন ভোটকে কেন্দ্র করে রক্ত ঝরলো বাংলার মাটিতে? কমিশনের কাছে জবাব চেয়ে এবার রাজ্য রাজনীতিতে কাঁপন ধরিয়ে দিলেন তিনি। মমতা বলেন, এতো রক্ত আমরা এর আগে দেখেনি।

এভাবে ভোটের মধ্যে একের পর এক খুন বাংলায় এর আগে ঘটেনি। বাংলার রাজনৈতিক ইতিহাস কলঙ্কিত হয়ে উঠেছে এবারের ভোটে। বাংলায় গত পঞ্চায়েত নির্বাচন নিয়ে যেখানে বিরোধীরা অভিযোগের বহর তুলেছিলেন সেখানে দাঁড়িয়ে মমতা প্রশ্ন তোলেন, গত পঞ্চায়েত নির্বাচনেও তো এতো খুন হয়নি বাংলাতে? তাহলে এবারে নির্বাচন কমিশন এত ঢাক ঢোল পিটিয়ে আট দফায় ভোট পরিচালনা করেও কেন খুনের ঘটনা ঘটছে? কেন গণতন্ত্র প্রশ্নের মুখে দাঁড়িয়ে পড়ছে? কেন প্রার্থীরা আক্রান্ত হচ্ছেন?

প্রতিটি দফাতেই রাজ্যে খুখুনের ঘটনা ঘটছে, অথচ কি করছে কমিশন? কি পদক্ষেপ নিচ্ছে নির্বাচন কমিশন? সোজাসাপ্টা জানতে চাইলেন মমতা। মমতার অভিযোগ, ভূটান সীমান্ত থেকে ভোটের সময় বাইরের লোক রাজ্যে ঢুকতে পারে তেমন খবর আমাদের কাছে ছিলো। আমরা সেইমতো কর্মীদের সতর্ক থাকতে বলেছিলাম। অথচ নির্বাচন কমিশন কেন ব্যবস্থা নিলো না? কেন প্রতিটি ভোটে নজিরবিহীনভাবে রক্ত ঝরলো বাংলার মাটিতে? কমিশনকে সরাসরি প্রশ্নের মুখে দাঁড় করিয়ে দিলেন তিনি।

আরো পড়ুন : ‘ঈশ্বরকে কষ্ট দিতে হবে না, দিদির মুখ বলছে হারছে,’ মোদীর চিমটি

একইসঙ্গে বিজেপিকে কটাক্ষ করতেও ছাড়েননি তিনি। মমতা বলেন, তৃতীয় দফার সকাল থেকেই খবর আসতে শুরু করেছে বিজেপি বিভিন্ন কেন্দ্রে হারছে। আর সেই খবর আসার পর থেকেই বিজেপি গুন্ডা গর্দি শুরু করেছে। এমনকী সিআরপিএফ জওয়ানদের কাঠগড়ায় দাঁড় করান মমতা। বলেন, সিআরপিএফ জওয়ানরা বিজেপিকে ভোট দিতে বলছে বলেও অভিযোগ তোলেন তিনি। মমতা নির্বাচন কমিশনের কাছে জানতে চান, কেন্দ্রীয় বাহিনীর সবিরুদ্ধে কি ব্যবস্থা নিচ্ছে কমিশন?

জানাতে হবে আমাদেরকে। রাজনৈতিক মহলের মতে, তৃতীয় দফাতেই স্বমেজাজে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নেমে পড়েছেন রাজনীতির ময়দানে। তৃতীয় দফার ভোটে বিক্ষিপ্ত অশান্তি মাথাচাড়া দিতেই ক্ষুব্ধ হয়ে উঠলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বুঝিয়ে দিলেন তিনি আছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়েই। রাজনৈতিক জমি ছাড়তে তিনি যে একচুল রাজি নন তা স্পষ্টতই বুঝিয়ে দিলেন মমতা।