Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

শোভন-বৈশাখীকে নিয়ে চলছে গেরুয়া শিবিরের অপেক্ষার প্রহর গোনা

1 min read


।। ময়ুখ বসু ।।


স্পষ্টত কাঁটা দিয়ে কাঁটা তোলার রাজনীতি। আর এই রাজনীতিতেই বিশ্বাস রেখে একুশের বিধানসভা নির্বাচনে তৃণমূলকে ঘায়েল করতে চাইছে বিজেপি (BJP) । মূলত তৃণমূল ভেঙ্গেই তৃণমূলকে রাজ্য থেকে ক্ষমতাচ্যূত করার নীতি নিয়ে বঙ্গে এগিয়ে চলেছে গেরুয়া শিবির। ইতিমধ্যে মুকুল রায়, অর্জুন সিং, শুভেন্দু অধিকারীদের দলে টেনে রাজ্যের শাসক শিবিরে জোর ধাক্কা লাগিয়ে দিয়েছে বিজেপি। এবারে শোভন চট্টোপাধ্যায়কে দলে পুরোমাত্রায় সক্রিয় করে তুলে শহর কলকাতাতেও দাপট বাড়াতে চাইছে বিজেপি। দীর্ঘ ১৬ মাস যাবত বিজেপিতে এসেও নিষ্ক্রিয় হয়ে রয়েছেন শোভন চট্টোপাধ্যায় (
Shovon Chatterjee)। সেই অর্থে বিজেপির তেমন কোনও কর্মসূচীতে দেখা যায়নি তাঁকে।

তবে আর শোভনকে ঘরে বসিয়ে রাখতে নারাজ রাজ্য বিজেপির নেতারা। এবারে তাঁরা চাইছেন শোভনকে সক্রিয়ভাবে রাজনীতির ময়দানে নামিয়ে তৃণমূলে মোক্ষম ধাক্কা দিতে। ইতিমধ্যেই শোভন চট্টোপাধ্যায়কে রাজ্য বিজেপিতে পদ দেওয়া হয়েছে, পদ দেওয়া হয়েছে শোভনের দাবি মেনে বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়কেও (Baishakhi Banerjee)। ফলে এবারে বিজেপি (BJP) একান্তভাবে চাইছে, শোভন-বৈশাখী ময়দানে নেমে কাজ শুরু করুন। মূলত কলকাতা এবং দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা জুড়ে বিজেপির তেমন কোনও মুখ নেই। দক্ষিনবঙ্গের অধিকাংশ জেলাতেই জুতসই তেমন মুখের অভাব রয়েছে বিজেপির। সেখানে দাঁড়িয়ে ইতিপূর্বে উত্তর ২৪ পরগনা জেলাতে মুকুল রায়, অর্জুন সিং, সব্যসাচী দত্ত এবং শীলভদ্র দত্তদের পেয়ে গিয়েছে বিজেপি।

আরো পড়ুন : দৌড়েই চলেছেন, নন্দীগ্রামের পর এবার টার্গেট কেশপুর

মেদিনীপুরে শুভেন্দু অধিকারীকে (Subhendu Adhikari) পেয়ে গিয়েছে তারা। এবারে শহর কলকাতা ও দক্ষিণ ২৪ পরগনাকে কব্জা করতে পারলেই দক্ষিণবঙ্গের একটা বড়ো অংশ আয়ত্তে চলে আসবে বিজেপির। সেক্ষেত্রে দাঁড়িয়ে কলকাতা ও দক্ষিণ ২৪ পরগনার ক্ষেত্রে বিজেপির অন্যতম ভরসা শোভন চট্টোপাধ্যায়। বিজেপির বিশ্বাস, শোভন সক্রিয়ভাবে বিজেপিতে নেমে গেলে তাঁর দেখাদেখি শোভন অনুগামী অনেকেই গেরুয়া শিবিরে নাম লেখাবেন। বড়োসড়ো ধাক্কা খাবে রাজ্যের শাসক দল। একটা সময় কলকাতার মেয়র ছিলেন শোভন চট্টোপাধ্যায়। ছিলেন রাজ্যের একাধিক দফতরের মন্ত্রীও। এছাড়াও তিনি ছিলেন দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা তৃণমূলের সভাপতি। ফলে তার যে নিজস্ব একটা ইমেজ রয়েছে তা অস্বীকার করার উপায় নেই।

ফলে বিজেপি মনে করছে, যেন তেন প্রকারেণ শোভনকে ময়দানে সক্রিয় করে তুলতে পারলেই কলকাতা ও দক্ষিণ ২৪ পরগনার মতো বড়ো অংশে ফের ভাঙনের মুখে ফেলা যাবে তৃণমূলকে। ইতিমধ্যে দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলাতে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের (Abhishek Banerjee) সভায় বেশ কয়েকজন তৃণমূলের বিধায়কের অনুপস্থিতি জল্পনা চড়িয়ে দিয়েছে। সেখানে দাঁড়িয়ে শোভন বিজেপিতে সক্রিয় হয়ে উঠলে অনেক বেসুরো তৃণমূলীরাই যে শোভনের সঙ্গে সঙ্গে গেরুয়া শিবিরে নাম লেখাবেন তা একপ্রকার নিশ্চিত। আর সেই আশা নিয়েই বারবার রাজ্য বিজেপির তাবড় তাবড় নেতারা ছুটে চলেছেন শোভনের বাড়িতে। চলছে বৈঠকের পর বৈঠক। এখন দেখার শোভন-বৈশাখী জুটি কবে গেরুয়া শিবিরের হয়ে ময়দানে সক্রিয় রাজনীতিতে নামেন। চলছে তারই প্রহর গোনা।