Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

অবহেলা অনাদরে পড়ে থাকা পাথরের দাম সাড়ে সতেরো লাখ টাকা !

||কলকাতা ডেস্ক||

বৃটেনের উইল্টসের হোয়াইটপ্যারিশ এলাকায় এক বাগানে বিশ বছর ধরে পড়ে ছিল পাথরটি। স্লাবের মতো ব্যবহার করা হতো এটি। বাগানের সংস্কারের সময় এর মালিক কাদা মাখা পাথরটি সরিয়ে নিয়ে ঘোড়ার আস্তাবলে রাখেন। সেখানে ঘোড়ায় চড়ার সময় পাথরটি ব্যবহার করতেন। এটাও চললো কয়েক বছর। হঠাৎ এর মালিক ভদ্রমহিলার চোখ গেল পাথরটির দিকে। তিনি কখনোই এটি ভালো করে দেখেন নি। তিনি দেখলেন পাথরটিতে নকশা করা আছে এবং কিছু লেখা আছে যা তিনি পড়তে পারছিলেন না। উৎসাহী হয়ে পাথরটি ভালো মতো পরীক্ষা করার জন্য তিনি তা নিয়ে গেলেন স্থানীয় এক প্রত্নতাত্ত্বিকের কাছে।

পঁচিশ ইঞ্চি দৈর্ঘ্যরে এই পাথরটি দেখে প্রত্নতাত্ত্বিক বিস্মিত হলেন। এরপরের ঘটনা ব্যাপক আলোচনার জন্ম দিলো সবখানে। গাবেষণায় দেখা গেল, এটি কোনো সাধারণ পাথর খণ্ড নয়। পাথরটির গায়ে রোমান ভাষায় লেখা আছে, ‘‘দি পিপল (অ্যান্ড) দি ইয়াংমেন (অনার) ডেমেটরিয়াস (সান) মেট্রোডেরোস ( সান) অফ লেওকিওস।’’ এটি দ্বিতীয় শতকের রোমানদের ব্যবহৃত একটি শিলালিপি। ইংল্যান্ডের আলোচিত নিলামঘর উলি অ্যান্ড ওয়ালিস এই পাথরটি তাদের তত্ত্ববধানে নেয়। তারা পাথরটির দাম ধরেছে পনের হাজার পাউন্ড বা ২০,৪০০ ডলার। বাংলাদেশি টাকায় প্রায় সাড়ে সতের লাখ টাকা। তবে দামের চেয়েও বেশি আলোচনায় এসেছে কীভাবে এই পাথরটি ইংল্যান্ডে এলো?

ইতিহাসবিদগণ নানা যুক্তি তুলে ধরছেন। ধারণা করা হচ্ছে পাথরটির ওপর কাজ করা হয়েছে গ্রিসে অথবা এশিয়া মাইনরের তুরস্কে। আঠারো অথবা ঊনিশ শতকে পাথরটি কোনো ভাবে ইংল্যান্ড পৌঁছায়। গবেষকরা মনে করছেন, ৩০০ বছর আগে পাথরটি ইংল্যান্ডে আসে। তবে কীভাবে এটি ইংল্যান্ডের প্রত্যন্ত অঞ্চলে গেল সেটা নিয়ে প্রশ্ন থেকেই যায়।
আগামী ১৬ ফেব্রুয়ারি পাথরটিকে নিলামে তোলা হবে।