বাংলার মানুষ জানে ভাইপো কে, ওরা না বুঝলে ওদের সমস্যা, কটাক্ষ দিলীপের

।। কুমার মিত্র ।।

শুধু ভাইপো ভাইপো বলবেন না। হিম্মত থাকলে সরাসরি তাঁর নাম করে কথা বলুন। রবিবার এভাবেই বাংলায় বিজেপির পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয়কে তীব্র আক্রমণ করেছেন তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ। দীর্ঘদিন ধরেই তৃণমূলের এক যুব সাংসদকে সরাসরি নাম না বলে তাঁকে ভাইপো বলে নিশানা করে চলেছেন কৈলাস। সম্প্রতি রামনগরের সভা থেকে ফের একইভাবে তাঁকে নিশানা করেছেন তিনি।

এরপরেই এদিন কৈলাসকে এই ইস্যুতে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন কুণাল। কুণাল বিষয়টি নিয়ে তোপ দেগে বলেন বাপের ব্যাটা হলে সরাসরি নাম বলুন। আর তা নিয়েই এ দিন তৃণমূলকে পাল্টা কটাক্ষ করেছেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। বিষয়টি নিয়ে দিলীপবাবু বলেন,” বাংলার মানুষ জানেন ভাইপো কাকে বলা হচ্ছে। দিদি, ভাইপো মানে সকলেই বোঝেন। বেশির ভাগ বাড়িতে দিদিদের উপস্থিতি থাকে। কিন্তু রাজ্যে দিদি বলতে একজনকেই বোঝায়।

আরো পড়ুন : কংগ্রেসের উপরে স্নায়ুর চাপ তৈরি করতে এবারে নয়া কৌশল নিলো বিজেপি

ওরা নাম জানতে চাইছে কেন? সকলেই বুঝতে পারছেন দিদি আর ভাইপো কে”। রাজনৈতিক মহল মনে করছে এক্ষেত্রে ভাইপো বলতে তৃণমূলের যুব সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কেই বোঝানো হচ্ছে। কিন্তু যেহেতু কৈলাস বিজয়বর্গীয় বা কুণাল ঘোষ কেউই কোনো নাম করেননি, তাই দিলীপও এদিন কোনো নাম না করেই বোঝাতে চেয়েছেন ভাইপো বলতে কাকে বোঝানো হচ্ছে। এদিকে সারদা, নারদা মামলা নিয়ে কেন্দ্রীয় সংস্থা যে তদন্ত করছে সেই বিষয়টি নিয়ে এদিন দিলীপ ঘোষ যে মন্তব্য করেছেন তা বিশেষ ইঙ্গিতবাহী।

দিলীপবাবু বলেন অনেকেই জগন্নাথ দর্শন করেছেন। আরো কয়েকজন শীঘ্রই করবেন। অনেকে প্রার্থী হতে পারবেন না। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে তদন্ত চলছে। সিবিআই তদন্ত করছে। আমাদের সবার উপর বিশ্বাস আছে, ভরসা আছে। যারা টাকার ভাগ নেন তাঁরা ধরা তো পড়বেই, তাঁদের শাস্তি তো হবেই। উল্লেখ্য সারদা কাণ্ডের জেরে রাজ্যের যে সমস্ত প্রভাবশালীদের গ্রেপ্তার করা হয়েছিল তাঁদের ওড়িশা নিয়ে যাওয়া হয় এবং সেখানে দীর্ঘদিন তাঁরা জেলবন্দি থাকেন। তবে কি সেদিকেই ইঙ্গিত করলেন দিলীপবাবু? তাই কি তিনি জগন্নাথ দর্শনের কথা বলতে চাইলেন? এমনটাই মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল।

Categories