Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

হোমের উন্নয়নে কেন্দ্রের পাঠানো টাকা রাজ্যের মন্ত্রীদের পকেটে যাচ্ছে, দাবি লকেটের

1 min read

।। সুদীপা সরকার ।।

গত ১০ বছর ধরে রাজ্যের মহিলাদের উপর কখনও ধর্ষণ কখনও পুড়িয়ে মারা হচ্ছে। খুন করে জ্বালিয়ে দেওয়া হচ্ছে প্রত্যেক দিন এই ধরনের ঘটনা ঘটছে বাংলায়। পুরুলিয়া হোমে কিশোরীদের ওপর শারীরিক নির্যাতন চলে। তারা যখন অভিযোগ করে তখন তাদের পুরুলিয়া হোম থেকে অন্য জায়গায় পাঠিয়ে দেওয়া হয়। আমরা এখনো ও জানিনা যে দুটি মেয়ে অভিযোগ জানিয়েছিল পুলিশের কাছে তারা কোথায় আছে। হোমের সুপারের সাথে কথা বলতে বাধা দেওয়া হয়। পুলিশ দিয়ে আটকানো হয়। আমাদের বহিরাগত বলা হয়। আমরা যাবার দুদিন আগে সুপারকে বদল করে দেওয়া হয়। তারপর সুপার বলেন ঐ ঘটনা সম্পর্কে তিনি কিছু জানেন না। সারা বাংলার লোক পুরুলিয়া হোমের ঘটনা জানতো অথচ সুপার বলেন তিনি কিছু জানেন না।

আজ হেস্টিংসে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে এমনই অভিযোগ তোলেন সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায় (locket chattopadhyay )। তিনি অভিযোগ তোলেন প্রশাসনকে আড়ালে রেখে দিনের পর দিন এই ধরনের ঘটনা হুগলিতে ঘটা সম্ভব নয়। প্রশাসন ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করছে। পুরুলিয়া হোমে যাওয়ার দুদিন পরই আমরা লিলুয়া হোমে যাই। সেখানে এক নাবালিকার হাতে সেফটিপিন দিয়ে সিনিয়রদের নাম খোদাই করা হয় । সেখানেও আমাদের ঢুকতে বাধা দেওয়া হয়।
হোমের মেয়েদের সাথে কথা বলতে দেওয়া হয়নি।সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে লকেট চট্টোপাধ্যায় জানান রাজনীতির উর্ধ্বে হুগলির অবস্থা ফেরানোর দাবি জানাচ্ছি।হোম গুলিতে মেয়েদের পরনের জামা কাপড় সঠিকভাবে দেওয়া হয় না খাবার দেওয়া হয় না বলে অভিযোগ তোলেন তিনি।

তিনি বলেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মহিলা হওয়া সত্বেও হোম গুলির অবস্থা কিভাবে এত খারাপ হতে পারে।মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় চারিদিকে রাজনীতি করছেন কৃষি বিল নিয়ে সিএএ নিয়ে হাথরাস নিয়ে আন্দোলন করছেন। অথচ তার পর্দার আড়ালে বাংলার মহিলাদের বিভীষিকার মতো পরিস্থিতি তৈরি হচ্ছে। একের পর এক আদিবাসী মহিলা ধর্ষণ হচ্ছে। পশ্চিমবঙ্গ নারী পাচারে, অ্যাসিড হামলায় প্রথম। এনসিআরবি রিপোর্ট পাঠানো হয় না। বাংলার নারীদের অপমানিত করছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বাংলার ভূমির পরিস্থিতি নিয়ে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীদের কাছে চিঠি পাঠানো হবে বলে জানান লকেট। পাশাপাশি তিনি অভিযোগ তোলেন হোম গুলির বাথরুমের দরজা নেই, হোমের ভেতর সিসিটিভি ক্যামেরা গুলো। ফলে হোমের ভেতর কি হচ্ছে না হচ্ছে প্রমাণ থাকছে না। হোমের নাবালিকা কিশোরীদের খাওয়া-দাওয়া জামা কাপড় ঠিক ভাবে দেওয়া হয় না।কেন্দ্রীয় সরকার হোম গুলির উন্নয়নের জন্য টাকা পাঠায় সেই কোটি কোটি টাকা কোন কোন নেতা মন্ত্রীদের পকেটের যাচ্ছে প্রশ্ন তোলেন লকেট।


তিনি বলেন হোমের বিরুদ্ধে মামলা করবে মহিলা মোর্চা। 2021 এ ভারতীয় জনতা পার্টি আসছে।
যতদিন না পর্যন্ত হোম গুলি ঠিক হবে আমরা আন্দোলনে নামব । সারা বাংলা জুড়ে আন্দোলন চলবে।
বলে জানান তিনি। পাশাপাশি তাঁর অভিযোগ তৃণমূল নিজেরা উন্নয়ন করতে পারেনি মেরে ধরে ভারতীয় জনতা পার্টি কে ভয় দেখাচ্ছে। যত বাড়বে তত এগোবে বিজেপি। পাশাপাশি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়( Abhishek bandyopadhyay ) কে ভাইপো বলে কটাক্ষ করেন। ভাইপোর সোর্স অফ ইনকাম কি প্রশ্ন তোলেন তিনি।এছাড়াও তিনি কটাক্ষ করে বলেন সামনে কালীঘাটের টালির বাড়ি পিছনে রাজপ্রাসাদ মানুষ সব বুঝে গিয়েছে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)কে কটাক্ষ করে লকেট বলেন কেন্দ্রীয় সরকার যা পাঠায় উনি তা নিজের নামে চালায়। কেন্দ্রীয় সরকার ভ্যাকসিন পাঠাচ্ছে মুখ্যমন্ত্রী এমন করে বলছেন যেন মনে হচ্ছে কালিঘাট থেকে তৈরি হচ্ছে ভ্যাকসিন। এবার হয়তো নতুন নাম দেবেন ভ্যাকসিন শ্রী। আজ সাংবাদিক বৈঠক থেকে এই ভাবেই রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে একহাত নিলেন লকেট চট্টোপাধ্যায়। আজকের সাংবাদিক বৈঠকে লকেট চট্টোপাধ্যায় সাথে উপস্থিত থাকেন মহিলা মোর্চার সভানেত্রী অগ্নিমিত্রা পল ও।