Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

অধিকারী পরিবারের সঙ্গে দলের দূরত্ব, ঢিলেঢালা হচ্ছে তৃণমূল সংগঠন, মানলেন অখিল গিরি

1 min read


।। শিবপ্রিয় দাশগুপ্ত ।।


“শিশির অধিকারীর বয়স হয়েছে। শরীরও ভালো নয়। তিনি সঠিক ভাবে কাজ করতে পারছেন না। তাই দল মনে করেছে তাঁকে সভাপতি পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া উচিত, তাই তাঁকে সরানো হয়েছে।” এভাবেই শিশির অধিকারীকে পূর্ব মেদিনীপুর জেলা তৃণমূল সভাপতি পদ থেকে সরিয়ে দেওয়ার ব্যাখ্যা দিলেন পূর্ব মেদিনীপুরের রামনগরের তৃণমূল বিধায়ক ও সদ্য দিঘা-শঙ্করপুর উন্নয়ন পর্ষদের চেয়ারম্যান অখিল গিরি। পরপর দুদিন শিশির অধিকারীর ওপর দল যে ব্যবস্থা নিল সেটা যদি তাঁর শরীরের জন্যই হবে তাহলে শরীরের কথা ভেবে এই সিদ্ধান্ত আগে কেন নেওয়া হয়নি? এটা কী শিশির অধিকারীর মতো প্রবীণ সাংসদ ও নেতার প্রতি দলের সঠিক ও সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত হয়েছে?

এই প্রশ্নের সরাসরি উত্তরে না গিয়ে অখিল গিরি (Akhil Giri) বলেছেন, “শিশিরবাবু দীর্ঘদিন দলের সভাপতি ছিলেন। তিনি দলের সাংসদ। বর্তমানে তাঁর শরীর খারাপ। বয়স হয়েছে। তারপর শুভেন্দু বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর শিশিরবাবু কাজ কর্ম আরও কমিয়ে দিয়েছিলেন। তাই দল মনে করেছে তাঁকে সভাপতি পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া উচিত, তাই সরিয়ে দিয়েছে। শুনেছি মুকুল রায়, দিলীপ ঘোষ এরা বলেছেন শিশিরবাবুকে অসম্মান করা হয়েছে। আমার তো মনে হয়না তাঁকে দল অসম্মানিত করেছে। তাঁর যোগ্য সম্মান, পদ তিনি পেয়েছেন। সভাপতি হয়ে কাজ করতে পারছিলেন না শারীরিক কারণে। তাই তাঁকে সরিয়ে সৌমেন মহাপাত্রকে সভাপতি করা হয়েছে। দলটা তো চালাতে হবে।”

আরো পড়ুন :তৃণমূলে অসম্মানিত হলে বিজেপিতে আসতে হবে, শিশিরকে দিলীপের বার্তায় জল্পনা


তবে শুভেন্দু অধিকারীর তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগদান, তাঁর ভাই সৌমেন্দুর বিজেপিতে যোগদান ও শিশির অধিকারীকে সভাপতি পদ থেকে সরানোয় পূর্ব মেদিনীপুরের তৃণমূল সংগঠন ঢিলেঢালা হয়েছে বলে মানলেন অখিল গিরি। এই প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “শুভেন্দুর দল ছাড়া, শিশিরবাবুর বসে যাওয়া, তারপর তাঁকে দলের সভাপতি পদ থেকে সরিয়ে দেওয়ায় পূর্ব মেদিনীপুরের তৃণমূল সংগঠন ঢিলেঢালা হয়েছে। কর্মীদের মধ্যে এই অবস্থাটা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এই ঘটনার একটা প্রভাব অবশ্যই আছে। তবে সংগঠনকে আবার গুছিয়ে নিতে হবে।” তবে অখিল গিরি নিশ্চিত ভাবে জানিয়ে দেন, “শিশিরবাবুর বিজেপিতে যাওয়ার সম্ভাবনা আছে বা তিনি যাবেন বলে আমি মনে করি না।”

অখিল গিরি বলেন, “আগামী ১৮ জানুয়ারি নন্দীগ্রামে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সভা। এই সভায় শিশিরবাবুকে দলের সাংসদ হিসেবে সৌমেন মহাপাত্র, বর্তমান পূর্ব মেদিনীপুর জেলা তৃণমূল সভাপতি দলের তরফে আমন্ত্রণ জানাবেন। তবে তিনি আসবেন কি না সেটা আমি বলতে পারব না।” এদিন সঠিকভাবে হিসেব করে অখিল গিরি বলতে পারেননি শেষ কবে তিনি শিশিরবাবুর সঙ্গে কথা বলেছেন। তবে তিনি নিশ্চিতভাবে জানিয়েছেন, “শুভেন্দু দল ছাড়ার কারণটাই প্রধাণ কারণ নয়, শিশিরবাবুর বয়স হয়েছিল, তাই তাঁকে দিঘা-শঙ্করপুর উন্নয়ন পর্ষদ ও পূর্ব মেদিনীপুর জেলা তৃণমূলের সভাপতি পদ থেকে সরানো হয়েছে।”