হাতিয়ায় ডুবে যাওয়া জাহাজের নিখোঁজ এক নাবিকের মরদেহ উদ্ধার

1 min read

।।চট্টগ্রাম ব্যুরো, বাংলাদেশ ।।

নোয়াখালী জেলার দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ার ভাসানচরের কাছে উদ্ধারকারী জাহাজ লাবনি পাওয়ার-৩ ডুবির ঘটনায় নিখোঁজ আবুল হাসেম (৫৫) নামে একজনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। চট্টগ্রাম থেকে আসা ডুবুরি দল ডুবে যাওয়া জাহাজের ভিতর থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে।

রবিবার(২৩ আগস্ট) সকালে হাতিয়া থানা পুলিশ তার পরিবারের কাছে মৃতদেহ হস্তান্তর করে।নিহত আবুল হাসেমের বাড়ী পটুয়াখালী জেলার কলাপাড়া উপজেলার মোল্লাবাড়ি গ্রামে।

জানা যায়, হাতিয়ার ভাসানচরের সন্নিকটে বঙ্গোপসাগরে উদ্ধারকারি জাহাজ “লাবনি পাওয়ার -৩” ডুবির ঘটনা ঘটে। এসময় জাহাজে থাকা ২ নাবিক নিখোঁজ হলেও চারজনকে জীবিত উদ্ধার করেছে কোস্টগার্ড। গত বুধবার গভীর রাতে এ দূর্ঘটনার ঘটনা ঘটে।

ডুবে যাওয়া জাহাজের মালিক আতিক উল্যাহ বাহার জানান, নিখোঁজ দুই নাবিক হলো লাবনি পাওয়ার-৩ জাহাজের মাস্টার চট্টগ্রামের হাটহাজারী উপজেলার রহিমপুর ইউনিয়নের গোলাফুর রহমানের পুত্র আবুল কালাম (৫৫) ও জাহাজের বাবুর্চি পটুয়াখালী জেলার কলাপাড়া উপজেলার মোল্লাবাড়ি গ্রামের ছত্তার উল্লার পুত্র আবুল হাসেম (৫৫)।

প্রসঙ্গত, চট্টগ্রাম থেকে ঢাকাগামী পন্যবাহী একটি লাইটার জাহাজ ভাসানচর সংলগ্ন বঙ্গোপসাগরে ইঞ্জিন বিকল হয়ে যাওয়ায় চট্টগ্রাম থেকে উদ্ধার করতে আসে টাগবোট এমভি লাভনি পাওয়ার-৩। বৈরী আবহাওয়া ও সাগর উত্তাল থাকায় বুধবার রাতে উদ্ধারকারী জাহাজটি দুর্ঘটনার কবলে পড়ে ডুবে যায়। খবর পেয়ে হাতিয়া কোস্টগার্ড সদস্যরা বৃহস্পতিবার সকাল থেকে অভিযান চালিয়ে দুপুরের দিকে ভাসানচরের সন্নিকটে চার জন নাবিককে জীবিত উদ্ধার করে। জাহাজে থাকা আরো ২ নাবিক নিখোঁজ হয়।

এ ব্যাপারে হাতিয়া থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবুল খায়ের জানান, নিহত ব্যাক্তির মৃতদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হযেছে। এ ঘটনায় এখনও একজন নিখোঁজ রয়েছে।