সফল ছট পুজো, প্রশংসা কুড়োল প্রশাসন

1 min read

।। শর্মিলা মিত্র ।।

করোনা আবহের মধ্যেই কোভিড বিধি মেনে হাইকোর্টের নির্দেশে সম্পন্ন হয়েছে বাঙালির শ্রেষ্ঠ উৎসব দুর্গোৎসব। শেষ হয়ে গিয়েছে কালী পুজো দীপাবলিও। আর তারপরই এসে পড়ে ছট পুজো। রবীন্দ্র সরোবর ও সুভাষ সরোবরে ছটপুজো করা যাবে না বলে নির্দেশ জারি করে জাতীয় পরিবেশ আদালত ও কলকাতা হাইকোর্ট। নির্দেশ মত তৎপর হয়ে ওঠে প্রশাসন। আদালতের নির্দেশ কার্যকর করতে প্রতিটি থানাকে প্রস্তুত থাকতে বলার পাশাপাশি রবীন্দ্র সরোবর ও সুভাষ সরোবরে তালা ঝোলানোরও পরিকল্পনা গ্রহণ করে প্রশাসন।

এছাড়াও যারা ছট পুজো করবেন তাদের মধ্যে সাবধানতা অবলম্বনের বিষয় বোঝানোর পাশাপাশি আদালতের নির্দেশও তাদের বোঝানোর দায়িত্ব গ্রহণ করে কলকাতা পুলিশ। সেই মত ছট পুজোর বেশ কয়েকদিন আগে থেকেই বিকল্প হিসেবে বিভিন্ন এলাকার কিছু ছোট জলাশয়কেও চিহ্নিত করার পাশাপাশি পুণ্যার্থীদের বোঝানোর কাজও শুরু করে দেয় কলকাত পুলিশ। এরপর, ছট পুজো উপলক্ষ্যে হাইকোর্টের নির্দেশ মেনে ছট পুজো করার আবেদন জানান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

শুভেচ্ছার পাশাপাশি আদালতের নির্দেশ মেনে চলার কথা বলেন তিনি। আরও বলেও, ছোট ছোট দলে দূরত্ববিধি মেনে পুজো দিন। আর যাতে করোনার সংক্রমণ ছড়িয়ে না পরে সেটাও সকলকে খেয়াল রাখার কথা বলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এছাড়াও তিনি বলেন, সরকার পুলিশ প্রশাসন আপনাদের সঙ্গে রয়েছেন। প্রসঙ্গত, গত ২ বছর নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও সুভাষ সরোবর ও রবীন্দ্র সরোবরে ছটপুজো নিয়ে বিতর্ক তৈরি হয়। সমালোচনার মুখে পড়ে প্রশাসন। সেই কারনেই এবার আরও বেশি তৎপর থাকতে দেখা যায় পুলিশ প্রশাসনকে।

আরো পড়ুন : শ্রাদ্ধ অনুষ্ঠানের আগের দিন বাড়ি ফিরলেন করোনায় ‘মৃত’ রোগী

এছাড়াও, ছটপুজোর জন্য সাধারণ মানুষের সুবিধার্থে তাদের বাড়ির কাছেই তৈরি করা হয় কৃত্রিম জলাশয়। জানা যায়, এ বছর মোট ৪৫ টি ঘাট তৈরি করা হয়। তার মধ্যে ১৬ টি কৃত্রিম জলাশয় রয়েছে বলে জানান ফিরহাদ হাকিম। এছাড়াও, কলকাতা পুরসভার পক্ষ থেকে সব বন্দোবস্তও করে দেওয়া হয়। শুধু তাই নয় যেখানে কৃত্রিম জলাশয় রয়েছে তার পাশে ব্যবস্থা করা হয় বায়ো-টয়লেট, চেঞ্জিং রুম ও পর্যাপ্ত পরিমাণে আলোর ব্যবস্থাও।

আর এই সবকিছুর মধ্যেই করোনা আবহের মধ্যেই পালিত হল ছটপুজো। প্রশাসনের ব্যবস্থা করা কৃত্রিম জলাধারেই চলল ছটপুজো। কেউই সুভাষ সরোবরের দিকে পা বাড়ালেন না। আদালতের নির্দেশ মেনেই পুজোর আয়োজন করলেন সকলে। ছট উৎসবেও সফল রাজ্য ও কলকাতা পুলিশ। এড়ানো সম্ভব হল পুণ্যার্থীদের ভিড়ও। প্রত্যেক বছরের মতো এবছর চোখে পড়ল না শোভাযাত্রাও। উল্টে ফুটে উঠল মানুষের সচেতনতার ছবি। ফাটল না বাজিও। তার জেরে বায়ু দূষণের হাত থেকে বাঁচল পরিবেশ। বাঁচল প্রকৃতিও।

Categories