Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

‘স্টিং অপারেশন অডিও ফাঁস এগুলো বিজেপির ধাত, কটাক্ষ ব্রাত্য বসুর

।। শর্মিলা মিত্র ।।

তৃণমূলভবনের প্রেস মিডিয়া সেন্টার থেকে আজ সাংবাদিক বৈঠক করেন ব্রাত্য বসু। উপস্থিত ছিলেন ডেরেক ও ব্রায়নও। সাংবাদিক বৈঠক প্রথমেই ব্রাত্য হুঁ বলেন, ‘আগামী কাল রাজ্যে তৃতীয় দফা ভোট। আমাদের কথা মত তাহলে খেলা শুরু হয়ে গেছে।’ তিনি বলেন, ‘প্রথম দু’দফায় দেখা গেছে বিজেপি ক্রমশ কোণঠাসা হচ্ছে। ভয় পাচ্ছে আতঙ্কিত হচ্ছে। জনসভায় মোটে লোক হচ্ছে না।’ এরপরে ব্রাত্য বসুর মন্তব্য, ‘আজকে ওদের সর্বভারতীয় সভাপতির দু দুটি রোড শো ক্যানসেল করতে হয়েছে। ব্যাচারিরা লোক পায়নি। লোক খুঁজে বেড়াচ্ছে।’ বলে কটাক্ষ করেন ব্রাত্য বসু।

পাশাপাশি ব্রাত্য বসুর মন্তব্য, ‘ওদের তরফ থেকে ভুয়া গুজব ছড়ানো হয় যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নাকি নন্দীগ্রামের পাশাপাশি আরো একটি আসন থেকে দাঁড়াচ্ছেন। এই ধরনের ভুয়া গুজব ওদের সর্বভারতীয় স্তর থেকে ছড়ানোর চেষ্টা করা হয়’ বলেও অভিযোগ করেন ব্রাত্য বসু। তিনি আরও বলেন, ‘যদিও আমাদের দল থেকে জানিয়ে দেওয়া হয় যে না’।

পাশাপাশি ব্রাত্য বসুর মন্তব্য, ‘আমাদের মুখ্যমন্ত্রী আর যাই হোক দেশের প্রধানমন্ত্রী নন যে ভয় দুটি আসন থেকে লড়বেন। একটা আসন থেকেই উনি লড়েন।’ এরপর তাঁর কটাক্ষ, ‘এখন বোধহয় হালে পানি না পেয়ে এরপর ঘোষণা করবে সপ্তম ও অষ্টম দফায় প্রধানমন্ত্রী এসে এখানে লড়বেন। হয়তো এই গুজবের দিকেও বিজেপি যাবে’ বলেও কটাক্ষ করতে ছাড়েননি ব্রাত্য বসু।

এর পাশাপাশি একইসঙ্গে ব্রাত্য বসু বলেন, ‘ওরা নানাভাবে প্রেস কনফারেন্স করছে এবং দুর্নীতির অভিযোগ করছে।’ পাশাপাশি তাঁর মন্তব্য ‘আমরা সব রকমের তদন্তকে স্বাগত জানাচ্ছি। আমাদের দলের তরফ থেকে আমরা জানতে চাইছি তদন্তটা যেন নিরপেক্ষ হয়। যিনি দোষী তিনি সাজা পান।’

আরো পড়ুন : ‘মদন দা আবার জিতবে’,বলিউড গ্ল্যামারাস অভিনেত্রী মহিমা চৌধুরী মাতালেন রোড শো

এরই পাশাপাশি বিজেপিকে আবারও দামি ওয়াশিং মেশিন বলে কটাক্ষ ব্রাত্য বসুর। তিনি বলেন, ‘যার বিরুদ্ধে অভিযোগ তাকে দিয়েই ওরা প্রেস কনফারেন্স করাচ্ছে। এরকম দামি ওয়াশিং মেশিন।’ এইভাবে কার্যত নাম না করে শুভেন্দু অধিকারীর দিকেই তীর ছুঁড়ে দেন ব্রাত্য বসু।

পাশাপাশি তাঁর প্রশ্ন ‘বিজেপি বলছে তৃণমূল ৯০০ কোটি টাকা হাফতা নিয়েছে।’ ‘তাদের প্রশ্ন তাহলে কত কোটি টাকা কয়লা মন্ত্রী হাফতা নিয়েছেন ? কত কোটি টাকা ওনাদের সর্বভারতীয় নেতারা হফতা নিয়েছেন ?’ পাশাপাশি ব্রাত্য বসুর মন্তব্য ‘কয়লা কেন্দ্রীয় সরকারের সম্পত্তি। কেন্দ্রীয় বাহিনীর সেই কোলিয়ারিগুলো পাহারা দেয়। এই কেলেঙ্কারির পর ওরা যে অভিযোগ তুলছেন তার ভিত্তিতে কয়লা মন্ত্রীর পদত্যাগের’ দাবিও জানান ব্রাত্য বসু।

পাশাপাশি তিনি বলেন ‘আমরা বলছি যারা এখানে এসে অভিযোগ করছেন তাদের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী থেকে শুরু করেই যারা বলছেন আমরা চাই এই কয়লা কেলেঙ্কারিতে অভিযুক্ত উন্মোচিত হোক তার আগে তারা পদত্যাগ করুন’ দাবি ব্রাত্য বসুর। পাশাপাশি তার প্রশ্ন ‘আধিকারিকরা কি তৃণমূলের কথা শুনছিল নাকি ? তাদের কেন্দ্রীয় মন্ত্রীদের কথা না শুনে। কেন্দ্রীয় সংস্থা কেন্দ্রীয় সম্পত্তি কয়লা তার আধিকারিকরা কি করছিলেন ?’ এদিন সাংবাদিক বৈঠক থেকে এই প্রশ্নই তোলেন ব্রাত্য বসু। তিনি আরও বলেন, ‘আধিকারিকরা তাদের মন্ত্রীদের কথা শুনছেন না’। তার প্রশ্ন ‘মন্ত্রীরা আছেন কোন নৈতিক অধিকার’?

পাশাপাশি ব্রাত্য বসু জানান ‘তদন্তের বিষয়ে কিভাবে ফাঁস হল, সে বিষয়ে আমরা দায়িত্ব নিয়ে বলছি আমরা ফৌজদারি মামলা করব। আমাদের দলের পক্ষ থেকে করা হবে। আমরা এটা ঘোষিত ভাবে জানাচ্ছি’ বলে জানান ব্রাত্য বসু।

পাশাপাশি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে বিজেপি কর্মীর কথোপকথন সামনে আসা নিয়ে ব্রাত্য বসুর মন্তব্য, ‘তার মানে বিজেপির এটা ট্রেন্ড ফাঁস করা।’

তিনি আরও বলেন, ‘একই দিনে দুজন বিজেপি নেতার কথোপকথন ফাঁস হয় তাহলে দুজনের মধ্যে নিশ্চয়ই একজন ফাঁস করেছেন’। ‘মিস্টার রায় এবং মিষ্টার বাজোরিয়ার কথোপকথন দুজনের মধ্যে নিশ্চয়ই কেউ একজন ফাঁস করেছেন। ওদের দুজনের ব্যক্তিগত ফোন আর না হলে কার কাছে যেতে পারে তাহলে বিজেপি এই ধরনের ফাঁস করে থাকে।’ ‘স্টিং অপারেশন অডিও ফাঁস এগুলো বিজেপির ধাতের মধ্যে জড়িয়ে আছে’ বলেও মন্তব্য করেন ব্রাত্য বসু।