Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

একাধিক জায়গায় গুলি, বুথে ঢুকতে বাধা, অভিযোগ মারধরেরও

1 min read

।। শর্মিলা মিত্র ।।

তৃতীয় দফায় শুরু হয়ে গিয়েছে রাজ্যের ৩১ টি বিধানসভা আসনে তৃতীয় দফার ভোটগ্রহণ। দক্ষিণ ২৪ পরগণার ১৬টি আসনের পাশাপাশি হাওড়ার ৭টি আসন ও হুগলির ৮টি আসনে চলছে ভোটগ্রহণ। তৃতীয় দফা ভোট গ্রহণে মোট ৬১৮ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। তার মধ্যে হাওড়ায় কেন্দ্রীয় বাহিনী থাকছে ১৪৪ কোম্পানি।

হুগলিতে থাকছে ১৬৭ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী। এবং সবচেয়ে বেশি ৩০৭ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে দক্ষিণ চব্বিশ পরগণায়। তৃতীয় দফায় আজ ভাগ্য পরীক্ষা ২০৫ জন প্রার্থীর।

কিছু বিক্ষিপ্ত ঘটনা ছাড়া রাজ্যে প্রথম ও দ্বিতীয় দফার ভোটগ্রহণ মোটের উপর নির্বিঘ্নে সম্পন্ন হলেও বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের তরফে নানা অভিযোগ উঠেছিল। সেই মত তৃতীয় দফায় নিরাপত্তার দিকে কড়া নজর রয়েছে নির্বাচন কমিশনের।

তারই মধ্যে সোমবার রাত থেকেই সামনে আসতে শুরু করে বিভিন্ন বিচ্ছিন্ন ঘটনা।

প্রথমেই দেখে নেবো হাওড়ার কিছু বিক্ষিপ্ত ঘটনা। বাগনানে তৃণমূল কংগ্রেসের বুথ সভাপতির উপর হামলার অভিযোগ বিজেপির বিরুদ্ধে। ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপ মারা হয় তাঁকে বলে অভিযোগ। জখম অবস্থায় উলুবেড়িয়া মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাঁকে। অভিযোগ অস্বীকার বিজেপি প্রার্থীর।

উলুবেড়িয়া উত্তরের তুলসিবেড়িয়ায় তৃণমূল কর্মী বাড়ি থেকে উদ্ধার ইভিএম। ভোট লুঠ করার চেষ্টা করছিলেন গৌতম ঘোষ নামে ওই কর্মী, অভিযোগ স্থানীয় বাসিন্দাদের। ঘটনার খবর পেয়ে কেন্দ্রীয় বাহিনী সেখানে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। যদিও ভুল স্বীকার সেক্টর অফিসারের। সাসপেন্ড করা হল সেক্টর অফিসারকে।

পাশাপাশি ভোট শুরুর আগে রাজনৈতিক অশান্তি হাওড়ার জগৎবল্লভপুরে। ১৮৮ নম্বর বুথে বিজেপি ও আইএসএফ এজেন্টদের বসতে বাধা দেওয়ার অভিযোগ তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে।

একইসঙ্গে বাগনানের ২২৮ নম্বর বুথে তৃণমূলের ক্যাম্প অফিস ভাঙচুরের অভিযোগ। অভিযোগের তীর বিজেপির দিকে।

বাগনানের দেউলটিতে বুথের বাইরে অতিরিক্ত জমায়েত হঠাতে লাঠি উঁচিয়ে তাড়া কেন্দ্রীয় বাহিনীর। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে বুথের বাইরে ছড়ায় চরম উত্তেজনা।

অন্যদিকে, উলুবেড়িয়া দক্ষিণে বিজেপি প্রার্থী পাপিয়া অধিকারীকে বুথে ঢুকতে বাধা। উলুবেড়িয়ার মহামায়াতলা স্কুলে ঢুকতে পাপিয়া অধিকারীকে বাধা দেয় তৃণমূল কর্মীরা বলে সূত্রের খবর।

আরো পড়ুন : এই তিন জেলার আসন ধরে রাখাটাই চ্যালেঞ্জ তৃণমূলের কাছে

হাওড়ার পাশাপাশি হুগলিতেও উঠে এল একই ধরনের ছবি।

তারকেশ্বরের রামনগরে ভোটের আগের রাতে এক নাবালিকাকে শ্লীলতাহানির অভিযোগ ২ জওয়ানের বিরুদ্ধে। হাতেনাতে পাকড়াও জওয়ানদের মধ্যে একজনকে গণপিটুনি। ভোরে স্থানীয় বাসিন্দারা থানায় গেলে অভিযোগ গ্রহণ না করায় ফের বিক্ষোভ দেখায় জনতা।

অন্যদিকে, আরামবাগের শুভয়পুরে তৃণমূল ব্লক সভাপতি পলাশ রায়ের গাড়ি ভাঙচুর। অভিযোগের তীর বিজেপির দিকে।

পাশাপাশি ভোট শুরুর আগেই হুগলির গোঘাটে খুন বিজেপি কর্মীর মা। ছেলেকে বাঁচাতে গিয়ে মারধরের শিকার হন মা বলে অভিযোগ। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় তাঁর। মৃতের নাম মাধবী আদক।

হাওড়া হুগলির পাশাপাশি দক্ষিণ ২৪ পরগণা থেকেও উঠে এসেছে বেশ কিছু বিক্ষিপ্ত ঘটনার ছবি।

বারুইপুর পশ্চিম বিধানসভার বারুইপুর পুরসভার ১৬ নম্বর ওয়ার্ডের বিশালক্ষী বিদ্যামন্দির প্রাইমারি স্কুলে সকাল সকাল ইভিএম খারাপ। অন্যদিকে বারুইপুর পূর্ব বিধানসভার বামুনগাছি ২১৮ নম্বর বুথেও খারাপ ইভিএম। বন্ধ ভোটগ্রহণ।

ভোটের আগের রাতে বাসন্তীর হেদিয়াতে ১৪ এবং ১৫ নং বুথের বাইরে বোমা-গুলি। হামলার অভিযোগ তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে। ভোটের সকালে বুথের সামনে থেকে উদ্ধার বোমার সুতলি, গুলির খোল। ঘটনাস্থলে মোতায়েন পুলিশ।

মগরাহাট পশ্চিম কেন্দ্রের আইএসএফ প্রার্থীর বুথে ঢুকতে বাধা দেওয়ার  অভিযোগ শাসক দলের বিরুদ্ধে। বুথের বাইরেই বসে বিক্ষোভ প্রার্থী মইদুল ইসলামের।

অন্যদিকে ক্যানিংয়ে আক্রান্ত বিজেপি কর্মী। কাঠগড়ায় তৃণমূল কংগ্রেস। পায়ে গুলি নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি ওই বিজেপি কর্মী।

এছাড়া, ক্যানিংয়ের জীবনতলার হেদিয়া গ্রামে আইএসএফ এজেন্টকে বুথে যেতে বাধাদানের অভিযোগ তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে। ক্যানিং পূর্ব কেন্দ্রের অন্তর্গত দুর্গাপুরের ১২৭ নং বুথের ঘটনা। আইএসএফ-তৃণমূলের হাতাহাতিকে কেন্দ্র করে হেদিয়া গ্রামে চলে গুলি।

এর পাশাপাশি ক্যানিং পশ্চিমের হিঞ্চেখালি গ্রামে বিজেপি কর্মীর বাড়িতে ঢুকে বেধড়ক মারধরের অভিযোগ।

একইসঙ্গে রায়দিঘিতে বিক্ষিপ্ত ঘটনার অভিযোগও তোলেন সংযুক্ত মোর্চার প্রার্থী বর্ষীয়ান বাম নেতা কান্তি গঙ্গোপাধ্যায়।

সব মিলিয়ে তৃতীয় দফা ভোট শুরু হওয়ার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই সামনে এল বেশ কয়েকটি বিক্ষিপ্ত ঘটনা।