Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

সারদার অ্যাম্বুলেন্স উদ্বোধন করেছিলেন পতাকা নাড়িয়ে, মমতাকে তোপ দিলীপের

1 min read

।। প্রথম কলকাতা ।।

তৃণমূল নেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে (Mamata Banerjee) তীব্র আক্রমণ করলেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ (Dilip Ghosh)। বুধবার দিল্লিতে গ্রেফতার হয়েছেন প্রাক্তন তৃণমূল সাংসদ কেডি সিং। তিনি চিটফান্ড সংস্থা অ্যালকেমিস্টের কর্ণধার ছিলেন। এ ব্যাপারে তৃণমূল মুখপাত্র কুণাল ঘোষ সরাসরি অভিযোগ করেছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি মুকুল রায়ের বিরুদ্ধে। তিনি মুকুল রায়কে অবিলম্বে গ্রেফতার করার দাবি জানিয়েছেন। এই প্রসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরাসরি নাম করে তাঁকে নিশানা করেছেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। বুধবার হাওড়ায় রোড শো করেন দিলীপ। সেখান থেকেই সংবাদমাধ্যমের সামনে তিনি কুণালের অভিযোগ সম্পর্কে বলেন,” এই সমস্ত অভিযোগের কোনো মানে হয় না। যারা এতদিন জেলে ছিল তাদের কথা কে শুনবে।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee) পতাকা নাড়িয়ে সারদার অ্যাম্বুলেন্সের উদ্বোধন করেছিলেন। সেই আঙুল তো দিদির দিকেও উঠতে পারে। সে কথা বলার হিম্মত আছে ওদের?”এভাবেই কুণাল ঘোষের অভিযোগের উত্তর দিয়েছেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি। তিনি বোঝানোর চেষ্টা করেছেন, চিটফান্ড কেলেঙ্কারিতে সরাসরি তৃণমূল কংগ্রেসের শীর্ষ নেতৃত্ব জড়িত। বঙ্গ রাজনীতিতে রাজনৈতিক প্রচারের অন্যতম প্রধান হাতিয়ার হয়ে উঠেছে রোড শো। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ, বিজেপি সভাপতি জেপি নাড্ডা, বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারী, শোভন চট্টোপাধ্যায় এবং সর্বোপরি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়সহ অনেকেই নিয়মিত রোড শো কর্মসূচিতে অংশ নিচ্ছেন। বুধবার হাওড়ায় রোড শো করেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ।

আরো পড়ুন : পটাশপুরে কুণালের নিশানায় শোভন, বৈশাখী, শুভেন্দু,মুকুল

বিজেপি (BJP) যুব মোর্চার নেতৃত্বে এই কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। সেখানে ছিলেন ব্যারাকপুরের বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং, যুব মোর্চার রাজ্য সভাপতি সৌমিত্র খাঁ প্রমূখ। সেখানে প্রধান আকর্ষণ ছিলেন দিলীপ। তৃণমূলকে নিশানা করে তিনি আরো বলেন,” প্রতিটি রোড শোতে আমরা মানুষের জনসমর্থন দেখতে পাচ্ছি। রাস্তার দুধারে কাতারে কাতারে মানুষ দাঁড়িয়ে রয়েছেন। সকলে বুঝে গিয়েছেন বিজেপি ক্ষমতায় আসতে চলেছে। আমরা রোড শো করে বুঝে নিতে চাই বাংলার মানুষ আমাদের পাশে কতটা রয়েছেন। ২০০ এর বেশি আসনে জিতে বিজেপি রাজ্যে ক্ষমতায় আসতে চলেছে। এখন প্র্যাকটিস চলছে, ফাইনাল বাকি রয়েছে।” এদিন পূর্ব মেদিনীপুরের পটাশপুরে জনসভা করেন তৃণমূল মুখপাত্র কুণাল ঘোষ। তিনি পাল্টা ভাইপো ইস্যুতে আক্রমণ করেছেন বিজেপিকে। শুভেন্দু অধিকারীকে তিনি কাঁথির ভাইপো বলে কটাক্ষ করেছেন।

এ প্রসঙ্গে দিলীপ বলেন, কে কার ভাইপো জানি না। আমাদের দলে কোনো ভাইপো নেই। আমরা সবাই ভাই। আমরা সবাই ভারতমাতার সন্তান। ওরা এসব বলে আমাদের নামে অপবাদ দেওয়ার চেষ্টা করছে। এটা কোনো সুস্থ সংস্কৃতি নয়। সাম্প্রতিকালে দেখা গিয়েছে হাওড়া জেলায় তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব প্রবল আকার নিয়েছে। অনেকেই তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে আসবেন এমন একটা বাতাবরণ তৈরি হয়েছে সেখানে। সেই প্রসঙ্গে বিজেপি রাজ্য সভাপতি বলেন, শুধু হাওড়া বলে নয়, রাজ্য জুড়ে ওদের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব চলছে। আমরা বিজেপিতে স্বাগত জানাচ্ছে তাঁদের।‌ কারো বিরুদ্ধে অভিযোগ থাকতেই পারে। সেক্ষেত্রে আইন আইনের পথে চলবে। তবে স্বাধীন গণতন্ত্রে সবাইকে স্বাগত জানাচ্ছি। এদিন দিলীপের মিছিলে বিপুল সংখ্যক মানুষ উপস্থিত হয়েছিলেন। লোকসভা নির্বাচনে হাওড়ায় বিজেপি হেরে গেলেও সেখানে তাদের ব্যাপক ভোটবৃদ্ধি হয়েছে। তাই দিলীপ ঘোষকে ঘিরে এদিন বিজেপি কর্মী সমর্থকদের উচ্ছ্বাস ছিল চোখে পড়ার মতো।