সুশান্ত মৃত্যুতে রাজনীতি যোগ, প্রযোজককে বিধঁলেন কংগ্রেস নেতা

।। স্বর্ণালী তালুকদার ।।

সুশান্ত বন্ধু তথা প্রযোজক সন্দীপ সিংয়ের বিরুদ্ধে বড়সড় অভিযোগ এল কংগ্রেস নেতা অভিষেক মনু সিঙ্ঘভি কাছ থেকে। তিনি জানিয়েছিলেন, বলিউডে মাদকচক্রের সঙ্গে যুক্ত থাকা ছাড়াও তাঁর সঙ্গে বিজেপি দলেরও ঘনিষ্টতা রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর আত্মজীবনী নিয়ে যে সিনেমা নির্মিত হয়েছিল, তার অন্যতম প্রয়োজন ছিলেন সন্দীপ সিং।

ইডি তদন্তের সময়ে উঠে এসেছিল এই প্রযোজকের নাম, অভিযোগ ছিল তিনি মুম্বাইয়ের সিনেমা জগতের তারকাদের মাদকচক্রের সঙ্গে জড়িত। নেতার বক্তব্য, সুশান্তের বন্ধুবর  হয়েও তিনি মহারাষ্ট্রের বিজেপি দফ্তরে প্রাায় ৫৩ বার ফোন করেছিলেন। কি কারণে তিনি রাজনৈতিকদের দারস্থ হচ্ছেন, সেটা পরিস্কার করে বলুক। 

প্রধানমন্ত্রীর আত্মজীবনী মূলক সিনেমাটি মুক্তির বিষয়ে তৎকালীন মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়নবীশ বিশেষ সাহায্য এবং সমর্থন করেছিলেন। সিনেমাটির মুক্তি আটকাতে কংগ্রেস নেতা মামলা করলেও খোদ মুখ্যমন্ত্রীর তৎপরতায় সিনেমার পোস্টার প্রকাশ্যে এসেছিল।

আরো পড়ুন: ফের রিয়াকে তলব সিবিআইএর, হল ৯ ঘন্টা জেরা

তিনি আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে হওয়া সিনেমায় প্রযোজনা করেছেন, ভাইব্রেন্ট গুজরাটের  প্রচারের জন্য ২০১৯ সালে ১৭৭ কোটি টাকার মউতে সই করার পরেও প্রযোজক দাবি করেছিলেন, তাঁর সংস্থা ৬৬ লক্ষ টাকা লোকসান করেছে। ২০১৮ তে ৬১ লক্ষ টাকা মুনাফা করেছিল প্রযোজকের সংস্থা এবং ২০১৯ এ ৮ লক্ষ টাকার লোকসানে চলছিল। তাহলে ঠিক কি ভাবে প্রযোজক ১৭৭ কোটির টাকার মউতে সই করেছিলেন?

কংগ্রেস নেতা জানান, সংবাদমাধ্যম থেকে জানা গিয়েছে, সন্দীপ সিং ভারত ছেড়ে চলে যাওয়ার পরিকল্পনায় রয়েছে। তাই কিছু অঘটন ঘটার আগে, তাঁর সঙ্গে কোন রাজনীতিবিদদে কি সম্পর্ক, তা খোলসা করা হোক। দেবেন্দ্র ফড়নবীশ, নিতিন গড়কড়ি যাদের সঙ্গে সন্দীপের ঘনিষ্টতা ছিল, তাঁরা স্পষ্ট করে জানাক যে সন্দীপ সিংএর উত্থানের পেছনে কার হাত রয়েছে!