Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

আজ দিনভর রণংদেহি শ্রাবন্তী, থানায় পুলিশকে কী বললেন ?

।। শর্মিলা মিত্র ।।

আগামী ১০ তারিখ চতুর্থ দফা ভোটের আগে আজ বিকেলেই শেষ হল চতুর্থ দফা ভোটের প্রচার। আর সেই প্রচারের আগেই উত্তেজনা ছড়াল বেহালা পর্ণশ্রীতে। প্রচারের শেষ লগ্নে পাওয়া গেল না প্রচারের অনুমতি। অনুমতি না পাওয়ার কারণে বাতিল হয়ে যায় বেহালায় মিঠুন চক্রবর্তীর রোড শো। আর রোড শো এবং ডোর টু ডোর প্রচার কর্মসূচি বাতিলের পরই বেহালা পশ্চিমের প্রার্থী শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে থানায় জমায়েত করেন বিজেপি কর্মীরা।

পর্ণশ্রী থানার সামনে রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখান তাঁরা। কার্যত আজ থানায় রণংদেহী রূপে ধরা দেন অভিনেত্রী তথা বেহালা পশ্চিমে ভারতীয় জনতা পার্টির প্রার্থী শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায়। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা ছড়ায় পর্ণশ্রী থানা এলাকায়। এই পুরো ঘটনাটিই ফেসবুকে লাইভের মাধ্যমে তুলে ধরেন শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায়। তিনি অভিযোগ করেন, ‘কর্মসূচির অনুমতি চাইতে গেলে পুলিশের তরফে নাকি বলা হয় পর্ণশ্রীতে নাকি অন্য দলের কর্মসূচির জন্য অনুমতি দেওয়া আছে।

আরো পড়ুন : চতুর্থ দফার ভোটে মহিলা প্রার্থীদের নিয়ে কি পদক্ষেপ নির্বাচন কমিশনের ?

কিন্তু বিজেপির পক্ষ থেকে সেই অনুমতির কাগজ দেখতে চাওয়া হলেও কোন কাগজ পুলিশের তরফে দেখানো হয়নি বলে ফেসবুক লাইভে অভিযোগ করেন’ শ্রাবন্তী। তাঁর আরও অভিযোগ, ‘আজ প্রচারের শেষ দিন। কিছুক্ষণ পর প্রচার বন্ধ হয়ে যাবে পুলিশ ইচ্ছে করে সময় নষ্ট করছে। দূরে গিয়ে লুকিয়ে ফোনে কথা বলছে।’ ফেসবুক লাইভে সেই ছবিও তুলে ধরেন তিনি। পাশাপাশি তিনি আরও জানান, ‘আমরা একঘণ্টা দাঁড়িয়ে আছি এখানে ওসি আসছে না। ওসি কোথায় চলে গেছে। আমি জবাব চাই কেন আমাদের অনুমতি দেওয়া হল না।’

তিনি আরও জানান, ‘মিঠুন দা ফোন করে বলছেন আজকের বিষয়টা জানার জন্য, কেন অনুমতি দেওয়া হলনা’ বলেও জানান বেহালা পশ্চিমের প্রার্থী শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায়। তিনি আরও বলেন, ‘বেহালাবাসী সকলেই আজ দেখল, জনগণ সিদ্ধান্ত নেবে।’ ভারতীয় জনতা পার্টির তারকা প্রার্থীর সাফ কথা, ‘ভয় পেয়েছে তৃণমূল। তাই এভাবে আটকাচ্ছে। কিন্তু এভাবে আটকানো যাবে না।’ পাশাপাশি থানার মধ্যে পুলিশকে শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায়কে বলতে শোনা যায় ‘লুকিয়ে কথা বলছেন কেন ? সামনে এসে কথা বলুন।’

একইসঙ্গে কোন কথা না বলে পুলিশকে বেরিয়ে যেতেও দেখা যায় ফেসবুক লাইভের সময়ই। এরপর এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে রীতিমতো থানার বাইরে পুলিশের সঙ্গে ধস্তাধস্তি জড়িয়ে পড়তে দেখা যায় বিজেপি কর্মী সমর্থকরা। ‘বিষয়টা আমরাও দেখে নিচ্ছে বলে’ কার্যত হুঙ্কার দিতেও দেখা যায় শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায়কে। ওঠে ‘পুলিশ প্রশাসন হায় হায়’ স্লোগানও। কার্যত ভোট প্রচারের শেষ লগ্নে আজ এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে চাঞ্চল্য ছড়ায় বেহালা পর্ণশ্রী এলাকায়।

পিসিসি