ফ্যাটি লিভার কমানোর ঘরোয়া পদ্ধতি

।। সুদীপা সরকার ।।

লিভারের চর্বি জমা কে ফ্যাটি লিভার ডিজিজ বলে। এটি এখনকার সময়ে বেশ প্রচলিত সমস্যা। ভুল খাদ্যাভ্যাস ও স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন নিয়মিত কায়িক পরিশ্রম করা এ রোগের অন্যতম কিছু কারণ। ফ্যাটি লিভার কিন্তু চর্বিযুক্ত যকৃত। ফ্যাটি লিভার শরীরের জন্য খুবই ক্ষতিকর। প্রাথমিক লক্ষণ বোঝা খুবই মুশকিল। তবে আলট্রাসনোগ্রাফ করে নিয়েই বেশিরভাগ ক্ষেত্রে লিভারের ফ্যাট ধরা পড়ে।

চিকিৎসকদের মতে যকৃত বা লিভার এর একটা নির্দিষ্ট মাত্রায় চর্বি থাকা স্বাভাবিক।কিন্তু নির্দিষ্ট মাত্রার চেয়ে ৫ থেকে ১০ শতাংশ বেশি হলেই তা ফ্যাটি লিভার বলে বিবেচিত হয়।
ফ্যাটি লিভার দুই প্রকার। এক, অ্যালকোহলিক ফ্যাটি লিভার ডিজিজ। দুই নন অ্যালকোহলিক ফ্যাটি লিভার ডিজিজ।

লিভার আমাদের সবচেয়ে বড় অঙ্গ। সেই সঙ্গে সমস্যাও ও বড় বড়। ফ্যাটি লিভারের প্রতিরোধ ডাক্তারের হাতে না বেশির ভাগটাই থাকে নিজের হাতে। মূলত শর্করা এবং ফ্যাট বিপাকক্রিয়ার নানান অসামঞ্জস্যতার ফলে এই রোগ হয়

আমলকি খান
দিনে তিন থেকে চারটি আমলকি খান। এছাড়াও একটা চামচ আমলকীর গুঁড়া ক্লাস গরম জলে মিশিয়ে দিনে দু’বার পান করতে পারেন। আমলকির মধ্যে রয়েছে ভিটামিন সি ও আয়রন। এটি লিভারের কার্যক্রম ভালো রাখতে উপকারী।

খাদ্যাভাসের পরিবর্তন
ফ্যাটি লিভার ডিজিজ দূর করতে খাদ্যাভাসের পরিবর্তন করাটা খুবই জরুরী। খাদ্য তালিকায় রাখুন শাকসবজি ফল বাদাম ইত্যাদি।

নিয়মিত ব্যায়াম করুন
নিয়মিত ব্যায়াম ফ্যাটি লিভার ডিজিজ দূর করতে সাহায্য করে। নিয়মিত ব্যায়াম করলে বিপদ ক্ষমতা বাড়ায় এবং লিভারের কার্যক্রম ভালো রাখে। যদি নিয়মিত ব্যায়াম করতে না পারেন অন্তত 30 মিনিট হাঁটুন।

লেবুর রস

একটি লেবু কি অর্থে করে কেটে নিন। এবার অর্ধেক লেবুর রস এক গ্লাস জলের মধ্যে মিশিয়ে পান করুন। টানা তিন সপ্তাহ এই জল পান করুন। কারণ লেবু লিভারের বিষাক্ত পদার্থ দূর করতে সাহায্য করে।

গ্রিন টি

গ্রিন টি তে রয়েছে এন্টিঅক্সিডেন্ট। গ্রিন টি লিভারের কার্যক্রম বাড়ায় এবং চর্বি তৈরিতে বাধা দেয়।

অ্যাপেল সাইডার ভিনিগার
এক গ্লাস গরম জলে এক চামচ অ্যাপেল সিডার ভিনিগার মিশিয়ে নিন। স্বাদের জন্য সামান্য মধু মিশিয়ে নিতে পারেন। লাঞ্চে বা ডিনারের আগে এই মিশ্রণ এক গ্লাস করে খাওয়ার চেষ্টা করুন।

আদা
আদা ভালো করে গ্রেট করে নিন মোটামুটি এক চামচ মধু আদা গ্রেট করে হালকা গরম জলে মিশিয়ে খান। অতিরিক্ত ফ্যাট থেকে লিভার কে বাঁচাতে আদা খাওয়া খুবই জরুরী।

যষ্টিমধু
এক কাপ গরম জলে হাফ চামচ যষ্টি মধু মিশিয়ে পাঁচ দশ মিনিট ফোটান।
তাতে অল্প মধু মিশিয়ে দিনে দু’বার খান।

হলুদ
হলুদ ফ্যাট হজম করতে সাহায্য করে। তাই এক গ্লাস জলে হাফ চা চামচ হলুদ গুঁড়ো মিশিয়ে ভালো করে ফুটিয়ে নিন। দিনে দুবার অন্তত হলুদ মেশানো জল খান।

তবে ফ্যাটি লিভার প্রথমে সাধারণ অসুখ মনে হল চিকিৎসা না করালে ভয়ঙ্কর রূপ নিতে পারে। এই পদ্ধতিগুলো অবলম্বন করলে অবশ্যই ফ্যাটি লিভার থেকে রেহাই পাওয়া যাবে। কিন্তু তার সাথে সাথে চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া জরুরি।