পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলের জনপ্রিয় সুস্বাদু খাবার “বাঁশ কোড়ল”

1 min read

।।চট্টগ্রাম ব্যুরো, বাংলাদেশ।।

অপরূপ প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি বাংলাদেশের পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চল। প্রাকৃতিক বৈচিত্রের পাশাপাশি পার্বত্য অঞ্চলে খুঁজে পাওয়া যাবে নানান বর্ণের মানুষ, নিজস্ব ভাষা, সংস্কৃতি ছাড়াও যাদের খাবারেও রয়েছে বৈচিত্র। আর পার্বত্য চট্টগ্রামের আদিবাসী পাহাড়িদের অন্যতম জনপ্রিয় সুস্বাদু খাবার “বাঁশ কোড়ল”। পার্বত্য তিন জেলায় (রাঙ্গামাটি, খাগড়াছড়ি, বান্দরবান) অহরহ বাঁশ বন থাকায় বাঁশ কোড়ল এখানে সহজলভ্য। বর্ষায় বৃষ্টিতে মাটি নরম হওয়ার পরপরই বাঁশ বাগানে বাঁশ চারা গজিয়ে ওঠা শুরু করে। তখন চারার কচি অংশটি সংগ্রহ করেন পাহাড়িরা।

মারমা সম্প্রদায়ের কাছে এ খাবার ‘মহ্ই’, ত্রিপুরাদের কাছে ‘মেওয়া’ আর চাকমা ভাষায় একে বলা হয় ‘বাচ্ছুরি’। মজাদার তরকারি হিসেবেও ‘বাঁশ কড়ুলে’র কদর রয়েছে। এ অঞ্চলের অনেক বাঙালিও এখন এটি খাওয়ায় বেশ অভ্যস্ত। মূলত বাঁশের গোঁড়ার কচি নরম অংশকে বলা হয় বাঁশ কড়ুল। পার্বত্য অঞ্চলের প্রায় সব জায়গাতেই মেলে এ সবজি।

বছরের মে থেকে আগস্ট মাস পর্যন্ত এ সবজির ভরা মৌসুম থাকে। বাঁশের জাত অনুযায়ী বাঁশ কড়ুলের স্বাদও ভিন্ন হয়। তবে মুলি বাঁশ কড়ুল বেশি সুস্বাদু হওয়ায় সবার কাছে এটি খুবই জনপ্রিয়। প্রতি কেজি বাঁশ কড়ুল পাওয়া যায় ৮০-১০০ টাকার মধ্যে। তবে চাহিদা অনুযায়ী এর দাম কম বেশি হয়ে থাকে। সবার আগে বাজারে পাওয়া যায় মিটিংগ্যা বাঁশ কড়ুল। বাজারে প্রথম আসায় একচেটিয়া বাজার দখল করে নেয় এটি।

বর্তমানে পারিবারিক চাহিদা মিটিয়ে স্থানীয় হোটেল ও রেস্টুরেন্টগুলোতেও খাবারের তালিকায় জনপ্রিয়তা পেয়েছে এই সবজি। পার্বত্যাঞ্চলে ঘুরতে আসা পর্যটকদেরও অন্যতম আকর্ষণ এই বাঁশ কড়ুল। স্বাদে অতুলনীয় এই সবজি শুধু পাহাড়িদের জন্য নয়, দেশের সব মানুষের এখন অতিপ্রিয় খাবারে পরিণত হয়েছে। বর্তমানে তিন পার্বত্য জেলা থেকে চট্টগ্রাম-ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলায় এই বাঁশ কড়ুল বিক্রির উদ্দেশ্যে কিনে নিয়ে যান খুচরা ও পাইকারী বিক্রেতারা।

তবে এক সময় পাহাড়ে বাঁশ কড়ুলের মৌসুমে এটির ভরপুর থাকলেও ৫-৬ বছর আগে পার্বত্য চট্টগ্রামে প্রাকৃতিকভাবে বাঁশে মোড়ক ধরায় কমে এসেছে বাঁশবন। ফলে বাঁশ কড়ুলও চাহিদা মতো বাজারে আসছে না। উৎপাদনের স্বার্থে জুন-আগষ্ট পর্যন্ত বাঁশ আহরণ বন্ধ রাখতে হচ্ছে বলে জানিয়েছেন কাপ্তাই রেঞ্জ কর্মকর্তা মাহাবুব উল আলম। তবে ব্যক্তি মালিকানাধীন বাঁশ বাগান এর আওতার বাইরে রাখা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

এদিকে বাঁশ কড়ুল আহরণের নামে তিন পার্বত্য জেলায় নির্বিচারে কচি বাঁশ কেটে ফেলা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এর ফলে প্রাকৃতিকভাবে বাঁশের বংশবৃদ্ধি মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে। তাই বাঁশের উৎপাদন বৃদ্ধি করার লক্ষ্যে বর্ষা মৌসুমে দুই থেকে তিন মাস এই বাঁশ কড়ুল উত্তোলন বন্ধ রাখার তাগিদ সংশ্লিষ্টদের।