রাজনৈতিক দলের আপত্তি, সিদ্ধান্ত বদল কমিশনের

1 min read

।। রাজীব ঘোষ ।।

করোনা অতিমারির জন্য নির্বাচন কমিশন ৬৫ বছরের উপরে সকলের জন্য পোস্টাল ব্যালটের সুযোগ করে দেওয়ায় রাজনৈতিক মহল আপত্তি তুলেছিল। পশ্চিমবঙ্গের তৃণমূল কংগ্রেস, সিপিএম, কংগ্রেস আপত্তি জানিয়েছিল। অক্টোবর-নভেম্বরে বিহারে বিধানসভা নির্বাচন। তারপরে ২০২১ এ বাংলায় বিধানসভা নির্বাচন রয়েছে।তৃণমূল নির্বাচন কমিশনকে অভিযোগ করেছিল ভোটাররা কে কোথায় ভোট দিচ্ছেন সেটা তাদের গোপন রাখার অধিকার রয়েছে।

এই সিদ্ধান্তের ফলে গোপনীয়তার অধিকার খর্ব হচ্ছে। রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে কোনো আলোচনা না করে নির্বাচন কমিশন কিভাবে এই সিদ্ধান্ত নিল সেটা নিয়ে কংগ্রেস সিপিএম প্রশ্ন তোলে।নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে বিহারে এবং অদূর ভবিষ্যতে যেসব উপনির্বাচন রয়েছে সেখানে এই নিয়ম প্রযোজ্য হবে না। তবে ৮০ বছরের উপরে সকলের জন্য এবং করোনা আক্রান্তদের জন্য পোস্টাল ব্যালটে ভোটের সুবিধা থাকবে।

কমিশন জানিয়েছে কোভিডের কথা ভেবে কমিশন বিহার এবং উপ নির্বাচনের ভোট গ্রহণ কেন্দ্র ভোটার সংখ্যা এক হাজার নামিয়ে এনেছে। বিহারে ৩৪ হাজার অতিরিক্ত ভোট গ্রহণ কেন্দ্র তৈরি হচ্ছে। এর জন্য ১.৮ লক্ষ ভোট কর্মী প্রয়োজন হবে। সবদিক দেখে কমিশন ৬৫ বছরের উপরে সকলের জন্য পোস্টাল ব্যালটের নিয়ম প্রয়োগ না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

তৃণমূল জানিয়েছিল দেশের প্রধানমন্ত্রী এবং অন্তত ১৩ জন মুখ্যমন্ত্রীর বয়স ৬৫ উপরে। নতুন সংশোধনীর অর্থ তাদের প্রত্যেককে পোস্টাল ব্যালট নিতে হবে। তৃণমূল নেতৃত্ব মনে করছে অক্টোবর-নভেম্বরে নিয়ম প্রযোজ্য না হলে বাংলার বিধানসভা নির্বাচনের দরকার পড়বে না। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় একে তাদের নৈতিক জয় হিসেবে আখ্যা দিয়েছেন।