Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

পিসি ভাইপোর সেন্টিকেট কোম্পানি বাংলার মানুষ দূর করে দেবেই, দাবি লকেটের

1 min read

।। সুদীপা সরকার ।।

যারা কৃষকদের জন্য কিছুই করেননি তাদের মুখে কৃষক আইন নিয়ে কোন কথা শোভা পায় না।
কৃষক সম্মান নিধি সারাদেশে চালু রয়েছে কিন্তু বাংলায় চালু হয়নি। কিষান সম্মান নিধি তে নরেন্দ্র মোদির সরকার কৃষকদের একাউন্টে সরাসরি ১৬০০০ টাকা পাঠাত। আজ কৃষকেরা ১৬ হাজার করে টাকা পেত। এর থেকে বাংলার কৃষকেরা বঞ্চিত হয়েছে।আজ হুগলির জঙ্গিপারা পাড়ার রশিদপুরে কৃষি আইন এর সমর্থনে জনসভা থেকে এই ভাবেই তৃণমূল সরকারকে এক হাত নিলেন সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়( locket chattopadhyay )। কৃষকদের যে বকেয়া টাকা আছে তা তৃণমূল সরকারকে ফেরত দেওয়ার দাবি জানায় তিনি। তিনি বলেন সারা বাংলা জুড়ে ভারতীয় জনতা পার্টির কর্মীরা কৃষকদের স্বার্থে ঝাঁপিয়ে পড়েছে বাংলার কৃষকেরা যেন সম্মান পায় তাদের যেন উন্নয়ন হয় তার জন্য ভারতীয় জনতা পার্টি কাজ করে চলেছেন।

মমতা ব্যানার্জির সরকারের আমলে ২০১১ তে কৃষকদের যা অবস্থান ছিল ২০২১ তাই আছে। নরেন্দ্র মোদির সরকার যে আইন করেছে তাতে কৃষকেরা নতুন করে স্বাধীনতা পেয়েছে। আজ লকেট চট্টোপাধ্যায় আমফানের দুর্নীতির অভিযোগ তুলে ধরেন সভা মঞ্চ থেকে। তিনি বলেন আমফানের সময় ত্রাণের টাকা পঞ্চায়েতের নেতা-মন্ত্রীরা পেয়েছিল। প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্তরা কেন্দ্রীয় সরকারের পাঠানো টাকা পায়নি। করোনার সময় কেন্দ্রীয় সরকার যে চাল পাঠিয়েছিল সেই চাল তৃণমূলের নেতা মন্ত্রীদের কাছে চলে গিয়েছিল। তাই তিনি স্লোগান তোলেন চাল চোর সরকার ২০২১ এ আমাদের আর নেই দরকার। স্বাস্থ্য সাথী কার্ড প্রসঙ্গে তিনি বলেন স্বাস্থ্যসাথী ব্যর্থ সাথী ভাওতাবাজি প্রকল্প।

স্বাস্থ্যসাথী তে ৫ লক্ষ টাকা দেওয়া হচ্ছে না। পাঁচশ টাকা হাজার টাকা আছে ওই কার্ডে। ওই টাকায় কি চিকিৎসা হবে প্রশ্ন তোলেন তিনি।তাঁর দাবি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার ভোটের আগে দু’মাস স্বাস্থ্য সাথী কার্ড এর মাধ্যমে চিকিৎসা পরিষেবা দেওয়ার জন্য হাসপাতাল গুলিকে বলে রেখেছে ভোট শেষ হয়ে গেলেই সবাইকে ছুঁড়ে ফেলে দেবে। দলীয় কর্মী সমর্থকদের উদ্দেশে লকেট চট্টোপাধ্যায় বলেন দুবার বেলতলায় গেছেন এবার আর যাবেন না। কেউ বলির পাঁঠা হবেন না। আগামী দিনে একসাথে লড়তে হবে। ২০১৯ এ ১৮ জন সাংসদ পেয়েছি ২০২১ এ দু’শোর বেশি সিট নিয়ে একা সরকার গঠন করবে ভারতীয় জনতা পার্টি । তুষ্টি করনের রাজনীতি করে বাংলায় কিছু হবে না। বাংলার মানুষ ঠিক এর জবাব দেবে ।

তিনি বলেন বাংলাযর মুখ্যমন্ত্রী মহিলা হওয়া সত্ত্বেও পশ্চিমবাংলার মহিলারাই সবচেয়ে বেশি অসুরক্ষিত। নারী অত্যাচারে এগিয়ে বাংলা। পাশাপাশি তিনি বলেন পশ্চিমবঙ্গের নারী অত্যাচারে এগিয়ে বাংলা নারী পাচারের অত্যাচারে শিশু পাচারে এদের বিশাল গর্ব এটাই হচ্ছে এ গিয়ে বাংলা। ভাইপোকে আপনারা সবাই জানেন জোড়া ফুলের দুজন মালিক। যুব দিবসে দেখেছেন স্বামী বিবেকানন্দের ছবির উপরে ভাইপোর ছবি। উনি স্বামী তোলা নন্দ স্বামী বিবেকানন্দের উপরে থাকেন। কয়লা পাচার গরু পাচার ত্রিপল পাচারে যুক্ত ভাইপো। পিসি ভাইপোর সাথে দুর্নীতির সাথে যুক্ত লোকেরা ছাড়া আর কেউ থাকবে না। রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচন যত এগিয়ে আসছে নানান ধরনের সমীকরণ তৈরি হচ্ছে। ভোটের প্রচারে যুযুধান দুই পক্ষ এগিয়ে থাকার চেষ্টা চালাচ্ছে। তেমনি একে অপরের দিকে আঙুল তুলে অভিযোগ চালিয়ে যাচ্ছে। যা নিয়ে জমে উঠেছে বঙ্গের রাজনীতি।