Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

বিজেপির অন্যতম বড় অস্ত্র এখন সংঘ প্রচারকরা

1 min read


।। ময়ুখ বসু ।।

বিজেপির বঙ্গ বিজয়ে বড়ো অস্ত্র হয়ে উঠেছেন সংঘ প্রচারকরা। অন্তত এমনটাই মনে করছেন বাংলার রাজনৈতিক মহল। ভোটের দিন যতো এগিয়ে আসছে গেরুয়া শিবিরের মধ্যে সংঘের চর্চা বাড়ছে। গেরুয়া শিবিরের অন্দরে এখন কান পাতলেই শোনা যায়, একুশের নির্বাচনে কে টিকিট পাবেন আর কে পাবেন না তার নেপথ্যে একটা বড়ো ভূমিকা নিতে পারে সংঘ। এমনকী বিজেপির সাম্ভাব্য প্রার্থী হওয়ার যে প্রতিযোগীতা চলছে, সেই সমস্ত প্রতিযোগীদের অধিকাংশের বায়োডেটাতে সংঘের সঙ্গে সংস্পর্শের ঠিকুজি কোষ্ঠী দেওয়ার একটা প্রবণতাও দেখা যাচ্ছে। ফলে বিজেপির বাংলা জয়ের ক্ষেত্রে সংঘের যে প্রভাব থাকবে এমনটা মনে করছেন রাজনৈতিকবিদরা।

এদিকে একুশের নির্বাচনের আগে বাংলার মাটিতে ফের পরিবর্তনের আওয়াজ তুলেছেন মুকুল-দিলীপ-শুভেন্দুরা। আর তাদের লক্ষ্য পূরণে অন্তরালে থেকে গেরুয়া সংগঠনের শক্তি জুগিয়ে চলেছে রাষ্ট্রীয় স্বয়ং সেবক সংঘ বা আরএসএস। বিজেপির মাদার সংগঠন এবং আরএসএসের গোপন প্রচার বাংলার মাটিতে গেতুয়া শিবিরকে অনেকটাই শক্তি জোগান দিচ্ছে বলে রাজনৈতিক মহলের ধারনা। তারা দীর্ঘদিন ধরে বাংলায় প্রচার চালিয়ে যাচ্ছে। সংগোপনে তাদের প্রচার বাংলার মাটিতে কার্যত গোকুলে মহীরুহের আকার নিচ্ছে। গ্রাম গঞ্জের পাড়ায় পাড়ায় মহল্লায় মহল্লায় সংঘ প্রচারকদের আনাগোনা বাড়ছে। একদিকে হিন্দুত্ববাদের প্রচার অন্যদিকে নানাধরনের সামাজিক কর্মকান্ডের মাধ্যমে বাংলার গ্রাম গঞ্জে তারা অনেকটাই শেকড় শক্ত করে ফেলেছে।

বিশেষ করে করোনা আবহে তাদের কাজের ধারা জনমানুষের প্রতি অনেকটাই আস্থা ও ভরসা এনে দিয়েছে। এমনটাই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশরদরা। বিজেপির হয়ে সংঘের প্রচারকরা ভোটের আগে গেরুয়া শিবিরের জয়ের ভিত গড়ে দিতে উঠে পড়ে নেমে পড়েছেন। বিশেষ করে রাজ্যের জেলায় জেলায় এই ধরনের প্রচার অনেকটাই এগিয়ে রাখছে বিজেপিকে। মূলত বিজেপির শীর্ষ স্থানীয় নেতারা বারবার বাংলায় এসে বলে গিয়েছেন, বুথস্তরকে শক্ত করতে হবে। সাফল্য আনতে গেলে বুথ কমিটি করতে হবে। আর এই বুথ কমিটি গঠনের ক্ষেত্রে বিজেপি (bjp) রাজ্যের শাসক শিবিরের রক্তচক্ষুর ভয়ে সাধারণ মানুষকে কতোটা অন্তর্ভুক্ত করতে পারবে সেটা বুঝেই সংঘের প্রচারকরা এই কাজে অনেকটাই এগিয়ে গিয়েছে বলে রাজনৈতিক মহলের মত।

তাদের ধারনা, বাংলার মাটিতে যেভাবে বাম কংগ্রেসকে সরিয়ে প্রধান বিরোধী হিসাবে বিজেপি মাত্র দুই থেকে তিন বছরের মধ্যে উত্থান ঘটিয়েছে তার নেপথ্যে সংঘ প্রচারকদের একটা বড়ো ভূমিকা ছিলো। ২০১৯ সালের লোকসভা ভোটের সাফল্যের উপর দাঁড়িয়ে ২০২১ সালে বিজেপি হয়ে উঠেছে রাজ্যের শাসক দলের একমাত্র চ্যালেঞ্জার। আর এই চ্যালেঞ্জকে মোকাবিলা করতে একদিকে যেমন বিজেপি তৃণমূল ভেঙ্গেই কাজ হাসিল করতে চাইছে, তেমনি সংঘ প্রচারকদের মাধ্যমে গোপনে সংগঠনের ভিতকে পাকাপোক্ত করতে চাইছে। রাজ্যের ৭৮ হাজার বুথে ২০২০ সাল পর্যন্ত ১০০ শতাংশ বুথ কমিটি গঠন করতে পারেনি বিজেপি। তবে রাজ্যের ৭৮ হাজার বিজেপির বুথ কমিটির বাড়িতে নেমপ্লেট বসানোর মাধ্যমে বুথ কমিটি গঠন করে ফেলতে চাইছে তারা। আর এক্ষেত্রে বিজেপির শক্তির অন্যতম আধার হয়ে উঠতে পারে সংঘ পরিবারের সদস্যরা।