এবার অন্য ট্রেন্ড, #জাস্টিস ফর রিয়া, কী এমন হল?

1 min read

।। স্বর্ণালী তালুকদার।।

অভিনেত্রী রিয়া চক্রবর্তীর বিরুদ্ধে নেট দুনিয়ায় এত দিন নেটিজেনরা সমস্ত ক্ষোভ, বিদ্বেষ উগরে দিয়ে এসেছেন। সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর ঘটনায় তাঁর জড়িয়ে থাকার ঘটনা যত প্রকাশ্যে এসেছে, ততই রাগ বাড়তে শুরু করেছিল নেটিজেনদের। তাঁর বিরুদ্ধে সিবিআই তদন্তের দাবি জানায় বহু সুশান্ত অনুরাগী। তাঁকে বয়কট করতেও শুরু হয়েছিল ক্যাম্পেন।

কিন্তু দিন দুয়েক আগে কিছু সর্বভারতীয় সংবাদমধ্যমে রিয়া চক্রবর্তী সুশান্তের মৃত্যু থেকে তাঁদের প্রেমের সম্পর্ক, ইউরোপ ট্রিপের নানা তথ্য থেকে শুরু করে মহেশ ভট্টের সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক নিয়ে বিতর্ক, সবের জবাব দিয়েছেন তিনি। নিজের রাগ দুঃখ অভিমান সব ঢেলে দিয়েছেন সাক্ষাৎকার দিতে এসে। তাই সোশ্যাল মিডিয়াতে তাঁর প্রতি নেটিজেনদের অভিমানের বরফ গলতে শুরু করেছে।

তাঁকে ন্যায়বিচার পাইয়ে দেওয়ার জন্য সোশ্যাল মিডিয়াতে শুরু হয়েছে #জাস্টিসফররিয়া ট্রেন্ডিং। টুইটারে অনুরাগীদের সংখ্যাও বেড়েছে কয়েক অঙ্কের মাত্রায়। নেটিজেনদের একাংশের মতামত, কেন্দ্রীয় সংস্থার রায়দানের আগেই কাওকে দোষী সাবস্ত করা ঠিক নয়। সুশান্তের প্রেমিকা হওয়ার অপরাধে সে অনেক শাস্তি পেয়েছে। আইন নিজের পথে গিয়ে ঘটনার সঠিক বিচার করুক।

একটি সাক্ষাৎকারে রিয়া চক্রবর্তী কথা বলতে বলতে কেঁদে ফেলেছিলেন। সেই ভিডিয়োটি শেয়ার করে এক নেটিজেন লিখেছেন, সুশান্তের মৃত্যুর ন্যায়বিচার সকলেই চায়। সিবিআই থেকে মুম্বাই পুলিশের ডাকে তুমি গিয়েছো, নিজের বয়ান দিয়েছে। অন্যায় করলে কঠিন শাস্তি পাবে, কিন্তু না হলে যে পরিমন মানসিক যন্ত্রনা তুমি ভোগ করছ, তার জন্য সকলের হয়ে ক্ষমা চাইছি আমি।

টুইটারে রাতারাতি ট্রেন্ডিং হয়ে গিয়েছেন অভিনেত্রী। অনেকেই বার্তা দিচ্ছেন নিরপরাধ তুমি, যতক্ষণ না অপরাধ প্রমানিত হচ্ছে। যদিও এই ক্যাম্পেনের বিরুদ্ধচারনকারীদের সংখ্য অনেক বেশি। তারা পাল্টা মন্তব্য করেছেন, এগুলো সবই লোক দেখানো। সত্যি কথাগুলো সে বলুক, জবাব দিক অনুরাগীদের প্রশ্নের। এই সব সোশ্যাল মিডিয়ার আদালতে বাদী-বিবাদী পক্ষের লড়াইয়ে এখন ট্রেন্ডে বঙ্গতনয়া।