২১শের আগে হচ্ছে না চেনা আঙ্গিকের ২১ জুলাই

1 min read

।। রাজীব ঘোষ।।

রাজ্যজুড়ে মিটিং-মিছিল। চলছে প্রচার। দলীয় কর্মীদের দেওয়া হচ্ছে বার্তা। বেশ কিছুদিন ধরেই রাজনৈতিক কর্মসূচি চলতে থাকে। লক্ষ্য একুশে জুলাই তৃণমূল কংগ্রেসের শহীদ দিবস। রাজ্যজুড়ে তৃণমূল কর্মীরা দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বক্তব্য শুনতে দুই-তিনদিন আগে থেকে কলকাতায় আসতে শুরু করেন। একুশে জুলাই এর এক সপ্তাহ আগে থেকে মঞ্চ বাঁধার কাজ শুরু হয়ে যায়। স্তব্ধ হয়ে যায় মহানগর।

দীর্ঘদিন ধরে চেনা তৃণমূলের একুশের শহীদ দিবসের সভা এবার হচ্ছে না। করোনা মহামারীতে পরিস্থিতি বদলে গিয়েছে। ফলে চিন্তিত তৃণমূল নেতৃত্ব। প্রতিবছর দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বক্তব্য শুনে রাজ্যের তৃণমূল কর্মীদের মনোবল চাঙ্গা করার এটাই ছিল হাতিয়ার। এবার আর সেই পরিস্থিতি নেই। ভার্চুয়াল র‍্যালিতে বক্তব্য রাখবেন এবার তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ২০২১ সালে বাংলায় বিধানসভা নির্বাচন।

রাজ্যের ক্ষমতা দখল করাই একমাত্র লক্ষ্য এখন বিজেপির। লোকসভা নির্বাচনে ১৮ টি আসনে জয়লাভ করার পর বিজেপি রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনে ক্ষমতা দখল করার লক্ষ্যে এগিয়ে যাচ্ছে। একাধিক ভার্চুয়াল মিটিং এর মাধ্যমে মমতার সরকারের বিরুদ্ধে আক্রমণ করছেন বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্ব। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ এর মধ্যেই ভার্চুয়াল সভা থেকে নির্বাচনী প্রচার শুরু করে দিয়েছেন। সংগঠনকে শক্তিশালী করার লক্ষ্যে বিজেপির পক্ষ থেকে একাধিক কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে।

প্রতিবছর একুশে জুলাই এর মঞ্চ থেকে দলের কর্মসূচির রূপরেখা স্থির করে দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এবারেও বিধানসভা নির্বাচনের আগে একুশে জুলাই এর ভার্চুয়াল সভায় বক্তব্য রাখবেন দলনেত্রী মমতা। তৃণমূলের পক্ষ থেকে পরিকল্পনা অনুযায়ী প্রত্যেকটি দলীয় কার্যালয়ে জায়ান্ট স্ক্রিন বসানো হয়েছে। দলের কর্মী সমর্থকরা সেখান থেকেই দল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বক্তব্য শুনবেন। সেখান থেকেই বিজেপি এবং মোদী সরকারের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য নির্দেশ দেবেন নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এখানে বেশ কিছু বিষয় উঠে আসতে শুরু করেছে। তৃণমূলের সবচেয়ে বৃহৎ কর্মসূচি একুশে জুলাই।

২০২১ সালে রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচনের আগের এই কর্মসূচিতে দলের সাংগঠনিক শক্তি যাচাই করা যাবে না। এবার আর রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে দলীয় কর্মীরা সভায় আসতে পারবেন না। কয়েক লক্ষ মানুষের ভিড় হবে না। যদিও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই একুশের মঞ্চ থেকেই বিজেপিকে নিশানা করবেন। করোনা এবং আমপান সংকটে মোদি সরকারের অবহেলা- বঞ্চনার কথা তুলে ধরবেন। এই সভা থেকেই বিজেপির বিরুদ্ধে একাধিক ইস্যুতে আন্দোলন করবার জন্য নির্দেশ দেবেন দলীয় নেতাকর্মীদের। এর আগেও তিনি বিজেপির বিরুদ্ধে আন্দোলনের ডাক দিয়েছেন।

বাড়ি বাড়ি গিয়ে প্রচারের নির্দেশ দিয়েছেন। এখানেই যে বিষয়টি উঠছে ২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচনের আগে একুশে জুলাই এর এই কর্মসূচি করতে না পারার ফলে রাজ্যজুড়ে দলের সাংগঠনিক পরিস্থিতি সেই ভাবে বোঝা যাবে না।তাই বিধানসভা নির্বাচনের আগে দলীয় নেতৃত্বের পক্ষে সাংগঠনিক অসুবিধা হতে পারে। যখন আমপান ঘূর্ণিঝড়ের ত্রাণ বিলিকে কেন্দ্র করে তৃণমূল নেতা নেত্রীদের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ উঠে এসেছে।

রাজ‍্যজুড়ে বিক্ষোভ হয়েছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কড়া পদক্ষেপ নেওয়ার বার্তা দিয়েছেন। দলীয় স্তরে পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে বলে জানা গিয়েছে। বিরোধীদের দাবি দুর্নীতির সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হোক। বিধানসভা নির্বাচনের আগে তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ভার্চুয়াল মাধ্যমে দলের নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখবেন। তাতে দলীয় সাংগঠনিক পরিস্থিতি শক্তিশালী হয় কিনা সেটাই দেখার বিষয়।