বাংলাদেশ জাতীয় চিড়িয়াখানায় দর্শনার্থীদের জন্য নতুন নির্দেশনা

1 min read

।। ঢাকা ব্যুরো ।।

আসছে ১ নভেম্বর থেকে ফের খুলতে যাচ্ছে ঢাকায় বেড়ানোর অন্যতম জনপ্রিয় স্থান জাতীয় চিড়িয়াখানা।

এক্ষেত্রে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ ও দর্শনার্থীদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাসহ কিছু নির্দেশনা জানিয়ে দিয়েছে।

প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৩টা পর্যন্ত খোলা থাকবে চিড়িয়াখানা। দিনে সর্বোচ্চ ২ হাজার দর্শনার্থী প্রবেশপত্র কিনে এখানে প্রবেশ করতে পারবেন। প্রত্যেককে মুখে অবশ্যই মাস্ক ব্যবহার করতে হবে।

কর্তৃপক্ষকে যে ১০টি পদক্ষেপ নিতে হবে –

১. চিড়িয়াখানায় প্রবেশের ক্ষেত্রে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার লক্ষ্যে অমোচনীয় রঙ দিয়ে বৃত্তাকার স্থান চিহ্নিত করা।

২. প্রবেশ ফটকে জীবাণুনাশক টানেল ও ফুটবাথ স্থাপন।

৩. প্রবেশপথে থার্মাল স্ক্যানারের মাধ্যমে দর্শনার্থীদের শরীরের তাপমাত্রা পরখ করার ব্যবস্থা।

৪. চিড়িয়াখানার অভ্যন্তরে গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে হাত ধোয়ার জন্য বেসিন ও সাবানের রাখা।

৫. দর্শনার্থীদের জন্য হ্যান্ড স্যানিটাইজারের ব্যবস্থা।

৬. দর্শনার্থীর সংখ্যা প্রতিদিন সর্বোচ্চ ২ হাজারের মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখা।

৭. প্রতিদিন গুরুত্বপূর্ণ প্রাণীর পরিবেষ্টনের চারপাশে জীবাণুনাশক স্প্রে করা।

৮. চিড়িয়াখানা প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে বেলা ৩টা পর্যন্ত খোলা রাখা।

৯. ডিজিটাল ডিসপ্লের মাধ্যমে কোভিড-১৯ সংক্রান্ত সতর্কতামূলক প্রচারণা চালানো।

১০. ষাটোর্ধ্ব বয়সী কাউকে চিড়িয়াখানায় প্রবেশাধিকার না দেওয়া।

এদিকে দর্শনার্থীদেরকে যেসব নিয়ম মেনে চলতে হবে –

১. চিড়িয়াখানায় প্রবেশের ক্ষেত্রে অমোচনীয় রঙ দিয়ে চিহ্নিত বৃত্তাকারে থাকা।

২. প্রবেশ ফটকগুলোতে স্থাপিত জীবাণুনাশক টানেল ও ফুটবাথ ব্যবহার করা।

৩. চিড়িখানার ভেতরে প্রবেশের পর দিকনির্দেশক অনুসরণ করে একমুখী পথে চলাচল করা।

৪. বাধ্যতামূলকভাবে মুখে মাস্ক রাখা।

৫. চিড়িয়াখানায় খাবার নিয়ে প্রবেশ নিষেধ।

৬. চিড়িয়াখানার ভেতরে এক জায়গায় ভিড় বা জটলা করা যাবে না।