লাদাখ নিয়ে পালটা কৌশল নয়াদিল্লির, কি ? জানুন

1 min read

।।প্রথম কলকাতা ।।

ভারতের ইতিহাসে এর সবথেকে বড় উদাহরণ হচ্ছে, ১৯৭১-এর যুদ্ধে মার্কিন হুমকির মুখে সোভিয়েত ইউনিয়নকে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করা। সম্প্রতি লাদাখে চিনকে জবাব দিতে তাইওয়ানকে তুরুপের তাস করেছে ভারত।জানা গিয়েছে, আগামী সেপ্টেম্বর মাসে ভারতে নতুন রাষ্ট্রদূত হয়ে আসছেন তাইওয়ানের প্রবীণ কুটনীতিবিদ বাউশুয়ান গের।

গত সাত বছর ধরে নয়াদিল্লিতে এই পদে যিনি ছিলেন, সেই তেন চুং কুয়াং উপবিদেশমন্ত্রীর দায়িত্ব নিয়ে নিজের দেশে ফিরে যাচ্ছেন। কুটনীতিবিদের একাংশের মতে, নয়া দূত নিযুক্ত করে ভারতের সঙ্গে সম্পর্ককে এক নয়া দিশা দিতে চাইছে তাইওয়ান। বাণিজ্য থেকে শুরু করে কৌশলগত সম্পর্ক আর মজবুত করার চেষ্টা করছে নয়াদিল্লি-তাইপেই।

তবে এই বিষয়ে অনেকটাই সাবধানী মোদি সরকার। কয়েকদিন আগেই দলাই লামার জন্মদিনে শুভেচ্ছা জানাননি প্রধামন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। লাদাখে চলা সংঘাতের আবহে ‘এক চিন নীতি’তে আঘাত করতে চাইছে না কেন্দ্র। এই মুহূর্তে লাদাখ সংলগ্ন সীমান্তকে এপ্রিল মাসের অবস্থানে ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়াই হচ্ছে ভারতের প্রধান উদ্দেশ্য।