Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

এক মুঠো করে শস্য নেবেন নাড্ডা, বর্ধমান সফরে তবে কী আবেগই মূল ফ্যাক্টর?

1 min read

।। শর্মিলা মিত্র ।।

বঙ্গ সফরে আবারও বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নড্ডা (JP Nadda)। একাধিক কর্মসূচী নিয়ে আজ বর্ধমান সফরে জগতপ্রকাশ নড্ডা(Jagat Prakash Nadda)। কৃষি আন্দোলনের মধ্যেই রাজ্য সফরে এবার নড্ডার টার্গেট শস্য ভান্ডার। কৃষিভিত্তিক জেলা হিসেবে পরিচিত সেই বর্ধমান, কালনা, কাটোয়ায় আজ একাধিক কর্মসূচী জেপি নাড্ডার। পাশাপাশি বর্ধমান শহরে রোড শোও করবেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নড্ডা (JP Nadda)। হেলিপ্যাডে নেমে প্রথমেই কাটোয়ার জগদানন্দপুরের রাধাগোবিন্দ জিউ-এর মন্দিরে পুজো ও দর্শন করে সেখান থেকেই আজকের কর্মসূচী শুরু করলেন জেপি নড্ডা (JP Nadda)।

এরপর জগদানন্দপুরের কৃষক সুরক্ষা সভা করার কথা রয়েছে তার। সেখানেই এই সভার পর, ‘এক মুঠো ধান’, নতুন এই কর্মসূচীর অঙ্গ হিসেবে বিভিন্ন কৃষকদের বাড়ি বাড়ি ঘুরে চাল গ্রহণ করার কর্মসূচী রয়েছে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নড্ডার (JP Nadda)। জানা গিয়েছে, কাটোয়ায় ৫ কৃষকের বাড়ি থেকে এক মুঠো চাল সংগ্রহ করার পর সেখান থেকেই সূচনা করবেন একাধিক কর্মসূচীর। তারপর সেখানেই একটি কৃষক পরিবারে মধ্যাহ্নভোজ করবেন তিনি। এবং সেখান থেকে বর্ধমানের উদ্দ্যেশে রওনা দেবেন তিনি। বর্ধমানে পৌঁছে প্রথমে সেখানে রোড শো করবেন তিনি। এবং বর্ধমানের রোড শো থেকে কৃষক সুরক্ষা কর্মসূচীর সূচনা করবেন জেপি নাড্ডা বলে জানা গিয়েছে।

আরো পড়ুন : মৌন অবস্থানে বিশ্বভারতীর উপাচার্য, দাবি রাস্তা ফেরতের

এরপর বর্ধমানের সর্বমঙ্গলা মন্দিরে পুজো দেবার কথা রয়েছে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নড্ডার (JP Nadda)। সবশেষে একটি বেসরকারি রিসর্টে সাংবাদিক বৈঠক করার কথা রয়েছে জগতপ্রকাশ নড্ডার (Jagat Prakash Nadda)। এরপর আজ রাতেই বর্ধমান থেকে দিল্লি ফিরে যাবার কথা রয়েছে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নড্ডার (JP Nadda)। জেপি নড্ডার এই সফর ঘিরে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা বলয়ে মুড়ে ফেলা হয়েছে গোটা শহর। নাড্ডার পোস্টার, ব্যানার ও ফেস্টুনে ছেয়ে গিয়েছে চারিধার। একদিকে, দিল্লিতে যখন কৃষি আইন বাতিলের বিরুদ্ধে ৪০ দিনের উপর হয়ে গেল কৃষকদের আন্দোলন চলছে। সেই সময় বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নড্ডার (JP Nadda) এই সফরকে, বিজেপি যে কৃষক বন্ধু এবং তারা কৃষকদের পাশে আছে এই বার্তা দেবার জন্যই বেছে নেওয়া হয়েছে বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।