Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

নাবালিকার হাতে সেফটিপিনের একাধিক ক্ষত,সরকারি হোমের বিরুদ্ধে অভিযোগ, হোমে যেতে লকেটকে বাধা

1 min read

।। সুদীপা সরকার ।।

গতকাল লিলুয়ার এক সরকারি হোমের বিরুদ্ধে উঠে এসেছে এক চাঞ্চল্যকর তথ্য। ওই হোমের নাবালিকা হাতে রয়েছে সেফটিপিন এর একাধিক ক্ষত। ফের সরকারি হোমে নাবালিকার উপর মানসিক শারীরিক অত্যাচার করার মতো ঘটনা সবাইকে অবাক করে দিয়েছে। নাবালিকার গোটা হাতে সেফটিপিন দিয়ে সিনিয়রদের নাম লেখা রয়েছে। সেই ঘা এখন ও দগদগে রয়েছে। বর্তমানে সেই নাবালিকাকে ঘরে ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। আজ লিলুয়ার হোমে যান সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায় (Locket Chatterjee) ।

হোমের সুপারের সাথে কথা বলতে যান মহিলা মোর্চার কর্মীরা। কিন্তু পুলিশ প্রথমে তাদের ঢুকতে বাধা দেয়। বাদানুবাদে জড়িয়ে পড়েন তারা। পরে হোম কর্তৃপক্ষ দুজনকে প্রবেশ করার অনুমতি দেয়। উল্লেখ্য গত ১৫ ই ডিসেম্বর রাতে মা বাবার সঙ্গে ঝগড়া করে বাড়ি ছেড়েছিল নাবালিকা। হাওড়া জিআরপি র সাহায্যে ঠাঁই পেয়েছিল লিলুয়ার সরকারি হোমে। কিন্তু এই নাবালিকা যখন কুড়ি দিন পরে বাড়ি ফিরল তখন শারীরিক এবং মানসিকভাবে বিধ্বস্ত নাবালিকা।

আরো পড়ুন :জেলার দায়িত্ব কাদের? “পর্যবেক্ষক”পদ নিয়ে শুরু টানাপোড়েন

ইতিমধ্যেই বিচার চেয়ে প্রশাসনের দ্বারস্থ হয়েছেন নাবালিকার পরিবার আজ হোম কর্তৃপক্ষের সাথে দেখা করতে গেলেন লকেট চট্টোপাধ্যায় (Locket Chatterjee)। এই ঘটনার ফলে সরকারি হোমে নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন চিহ্ন দেখা দিয়েছে। ঘটনার খবর পেয়ে গিয়েছিল শিশু সুরক্ষা প্রতিনিধি দল। হোম কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে কোনো লাভ হয়নি বলে জানিয়েছেন নাবালিকার পরিবারের লোকজন। অভিভাবকহীন শিশুরা যাতে সুরক্ষার থাকে তার জন্যই এই ধরনের সরকারি হোম। কিন্তু পরপর রাজ্যের হোম গুলিতে নারী নির্যাতনের যে ছবি উঠে আসছে তাতে নারী নিরাপত্তা থেকে সুরক্ষা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে।

যেখানে নাবালিকারা ভুল সংশোধন করে জীবনের সঠিক পথে ফেরার সুযোগ পাওয়ার কথা সেখানে হোম থেকেই বারবার নাবালিকাদের জীবনে অন্ধকার নেমে আসছে। এবং অত্যাচারের ঘটনা ঘটছে। কিছুদিন আগেই পুরুলিয়ার সরকারি হোমে ২ নাবালিকার যৌন নির্যাতনের অভিযোগ ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়ায়। মহিলা থানায় অভিযোগ জানায় তারা। ঘটনার প্রতিবাদে পশ্চিমবঙ্গ শিশু অধিকার সুরক্ষা কমিশনের দ্বারস্থ হয়েছিল বিজেপি মহিলা মোর্চা। আজ লিলুয়ার সরকারি হোম কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে এই ঘটনা সম্পর্কে তাদের কিছু জানা নেই। একজন জনপ্রতিনিধি হয়ে লকেট চট্টোপাধ্যায় (Locket Chatterjee) হোমের নাবালিকাদের সাথে দেখা করতে চাইলেও তাঁকে দেখা করতে দেওয়া হয়নি বলেও তিনি জানিয়েছেন।