ধুনুচি নাচে মত্ত মিমি, সুরক্ষাবিধির ঘেরাটোপেও করলেন আনন্দ

।। স্বর্ণালী তালুকদার ।। কলকাতা ।।

পুজোতে তারকাদের তরফে বারবার এই বার্তাই এসেছে, এই বছর পুজো কাটান ঘরে বসে, নিদেন পক্ষে পাড়ার প্যান্ডেল। শুধু যে বলার জন্যে বলেছেন, তা কিন্তু নয়। করেও দেখিয়েছেন আনন্দ। অভিনেত্রী তথা সাংসদ মিমি একেবারে অন্য মুডে ছিলেন এইবারের পুজোতে। মাস্কের ঘেরাটোপেও চোখে পড়েছে তাঁর অনাবিল হাসির দমক। 

মহানবমীর সন্ধ্যাবেলা নিজের আবাসনেই থেকেছেন তিনি। এই তিনদিন বাইরে পা দেননি একেবারে। শুধু তাই নয়, ঢাকের বাদ্যির সঙ্গে ধুনুচি নাচও করতে দেখা গিয়েছে তাঁকে। কিন্তু সেখানেও ছেদ পরেনি সুরক্ষাবিধির মেনে চলার বিষয়ে। মুখে মাস্ক পরেই ধুনুচি নাচ করে উৎসবের আনন্দ দ্বিগুন করেছেন মিমি। নাচ দেখে মুগ্ধ আট থেকে আশি সকলেই। ঢাকিও দ্বিগুন উৎসাহের সঙ্গে ঢাক বাজিয়েছেন।

দেখে নিন মিমির ধুনুচি নাচ..

আবাসনের প্রতিবেশী ছাড়া অন্য কারোর প্রবেশের অনুমতি ছিল না এই পুজোতে। তাদের সঙ্গেই পুজোর আনন্দে মেতেছেন তিনি। সেখানেই অষ্টমীর দিনও অঞ্জলিজ দেন তিনি। মুখে সকলের মাস্ক তো ছিলই, সেই সঙ্গে পুজো মণ্ডপে রাখা হয়েছিল স্যানিটাইজেশনের ব্যবস্থাও। সাদা কুর্তি ও পালাজোতে নবমী নিশিতে চারটে চাঁদের উজ্জ্বলতা নজর কেড়েছে নেটিজেনদেরও। এছাড়াও স্যানিটাইজার দিয়ে হাত ধুয়ে প্রসাদ খেয়েছেন তিনি।

আরো পড়ুনঃ জন্মদিনে বাঁধভাঙা আবেগে মধুমিতা

শুধু তিনি নিজেই মেনেছেন সুরক্ষা বিধি তা কিন্তু নয়। বাকি আবাসনের বাসিন্দাদেরও নিজেি বলে দিয়েছেন বারে বারে। এমনকী আবাসনের খুদেদের সঙ্গেও সময় কাটিয়েছেন লাস্যময়ী। সকলেই তাঁকে পুজোতে পেয়ে খুশি হয়েছেন, চওড়া হয়েছে মিমির মুখের হাসিও। সকলের মত তিনিও সাধারনভাবেই পুজো কাটাতে পেরে খুব আনন্দিত।

সকলকে তিনি শুভ বিজয়ার শুভেচ্ছাও জানিয়েছেন। নেটিজেনদের অপেক্ষা, ধুনুচি নাচের পর এবার বিসর্জনে ঢাকের বাদ্যিতে তিনি কেমন নাচেন! কারণ যেভাবে তিনি ধুনুচি নিয়ে নেচেছেন এবং অতীতে পুজো স্পেশাল গানে তাঁকে কোমর দোলাতে দেখে খুশি হয়েছিলেন আপামর বাংলার দর্শক, সেই মিমি ম্যাজিক বাস্তবেও দেখা যাবে, এমনটাই আশা রাখছেন অনুরাগীরা।

Categories