Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

আপাতত বিপদ মুক্ত মালদার বিজেপি প্রার্থী গোপাল চন্দ্র সাহা

||শর্মিলা মিত্র||

আপাতত বিপদ মুক্ত মালদার বিজেপি প্রার্থী গোপাল চন্দ্র সাহা। রবিবার প্রচার সেরে ফেরার সময় গুলিবিদ্ধ হন মালদা বিধানসভার ভারতীয় জনতা পার্টির প্রার্থী গোপাল সাহা। গুলি লাগে তাঁর গলায়। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাঁকে ভর্তি করা হয়  মালদা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে।

প্রথমে কলকাতায় রেফার করা হলেও পরে মালদা জেলা হাসপাতালেই রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। রাতেই তাঁর অস্ত্রোপচার করেন চিকিৎসকেরা। অস্ত্রোপচারের পর তাঁর গলা থেকে গুলি বার করা হয় বলে জানা গিয়েছে। আপাতত তাঁর অবস্থা স্থিতিশীল থাকলেও আরও ৪৮ ঘণ্টা তাঁকে অবজারভেশনে রাখা হবে বলে হাসপাতাল সূত্রে খবর।

জানা যায়, রবিবার সন্ধ্যায় মালদার ঝন্টু মোড় এলাকায় বিজেপির একটি সভা ছিল। সেই সভায় উপস্থিত ছিলেন বিজেপি প্রার্থী গোপাল চন্দ্র সাহা। এরপর সভার শেষে ওই এলাকায় নির্বাচনী কার্যালয়ের সামনে বসে ছিলেন তিনি। সেই সময়ই কেউ বা কারা এসে গুলি চালায় তাঁকে লক্ষ্য করে বলে জানা যায়। এরপর সঙ্গে সঙ্গেই ঘটনাস্থল থেকে চম্পট দেয় দুষ্কৃতীরা।

এরপর তাঁকে তড়িঘড়ি মালদা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। রবিবার রাতেই বিজেপি প্রাথী গোপাল চন্দ্র সাহাকে গুলি করে হত্যার চেষ্টার অভিযোগে পথে নামে বিজেপির জেলা নেতৃত্ব। অভিযুক্তদের গ্রেফতারের দাবিতে ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখান বিজেপির কর্মী সমর্থকরা। অবিলম্বে অভিযুক্তদের গ্রেফতার করতে হবে বলে দাবি জানান বিজেপির কর্মী সমর্থকরা।

জানা গিয়েছে, ২০১৯ সালে লোকসভা ভোটের সময় এই বুথে খুব ভালো ফল করেছিল গেরুয়া শিবির। এবার একুশের ভোটেও ভালো ফল করতে পারে। আর তাই সেই আক্রোশেই কি গুলি বর্ষণ নাকি অন্য কোনও ক্ষোভ, পুরো ঘটনাটাই খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

পুলিশ সূত্রে খবর, ওয়ান শাটার গান থেকেই গুলি করা হয়েছে। পুলিশের দাবি, একেবারে যে নিশানা করেই গুলি চলেছে এমনটা নাও হতে পারে। গুলি বিদ্ধ হওয়ার ধরণ, ঘটনাস্থল খতিয়ে দেখে অতর্কিতে গুলি চালানো হয়েছে বলে দাবি তদন্তকারীদের।

অন্যদিকে, এই ঘটনা খুবই দুঃখজনক বলে জানিয়েছেন মালদা জেলা নেতৃত্ব। তাঁদের দাবি, এই কেন্দ্রে দলীয় প্রার্থীর জয় প্রায় নিশ্চিত। তাই প্রতিপক্ষ রাজনৈতিক দলকেই এই ঘটনার জন্য দায়ী করেছে বিজেপি। অভিযোগের তীর কংগ্রেসের দিকে। যদিও বিজেপির তোলা সব অভিযোগই উড়িয়ে দিয়েছে কংগ্রেস।

পিসিসি