মহিলাদের মাথার সিঁদুর মুছে যাচ্ছে, আর মুখ্যমন্ত্রী চুপ করে দেখছেন: মমতাকে তোপ লকেটের

।। প্রথম কলকাতা ।।

“দিকে দিকে বিজেপি কর্মীদের খুন করা হচ্ছে। তৃণমূলে আশ্রিত দুষ্কৃতীরা খুন করছে বিজেপি কর্মীদের। অকালে স্বামীহারা হচ্ছেন মহিলারা। তাঁদের মাথার সিঁদুর মুছে যাচ্ছে। আর সব কিছু চুপ করে দেখছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।“ উত্তর ২৪ পরগনার জগদ্দলের কাউগাছিতে দুষ্কৃতীদের হাতে খুন হওয়া বিজেপি কর্মী মিলন হালদারের বাড়িতে গিয়ে এভাবেই তৃণমূলকে আক্রমণ করলেন বিজেপি সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়। উল্লেখ্য পুজোর সময় দুষ্কৃতীদের হাতে আক্রান্ত হন মিলন বাবু। এরপর বিভিন্ন হাসপাতাল ঘুরে তাঁকে শহরের একটি সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানেই মারা যান তিনি। বিজেপি এবং মৃত মিলন হালদার এর বাড়ির লোকজনের অভিযোগ, তাঁদের হাতে মৃতদেহ পর্যন্ত তুলে দেওয়া হচ্ছে না। মিলন বাবু করোনা আক্রান্ত ছিলেন একথা বলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ মৃতদেহ তাঁদের হাতে তুলে দিচ্ছে না বলে জানিয়েছেন পরিবারের লোকজন। বিষয়টি নিয়ে এদিন লকেট বলেন, ‘ মৃতদেহ পেলে ময়নাতদন্ত হবে এবং তিনি কীভাবে মারা গিয়েছে তার সত্যিটা বেরিয়ে আসবে। তাই এখন করোনা হয়েছে এমন মিথ্যা কথা বলে মৃতদেহ দেওয়া হচ্ছে না’ । এ কথা বলার পাশাপাশি এদিন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে তীব্র আক্রমণ করেন লকেট। তৃণমূলকে তোপ দেগে বিজেপি সাংসদ বলেন,’ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বুঝে গিয়েছেন ২০২১ সালে তাঁরা আর ক্ষমতায় ফিরছেন না। তাই বেছে বেছে বিজেপির বুথ সভাপতিদের খুন করা হচ্ছে। ব্যারাকপুরে পুলিশ পুরোপুরি তৃণমূলের হয়ে কাজ করছে। মুখ্যমন্ত্রী একের পর এক পুজো উদ্বোধন করছেন,  আর তখনই বিজেপির কর্মীরা তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীদের হাতে খুন হচ্ছেন। অথচ মুখ্যমন্ত্রী সবকিছু দেখেশুনেও চুপ করে রয়েছেন। মহিলারা স্বামীহারা হচ্ছেন,  মায়েরা সন্তানহারা হচ্ছেন। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী সেই সব বিষয় নিয়ে একটি কথাও বলছেন না। তাঁর মনে কি কোনো দয়া মায়া নেই? ‘

আরও পড়ুন: রাজ্যপালের বক্তব্য সমর্থন করলেন দিলীপ ঘোষ

জানা গিয়েছে পার্কসার্কাসের কাছে একটি বেসরকারি হাসপাতালে মিলন হালদারের মৃতদেহ রয়েছে। বিষয়টি নিয়ে লকেট বলেন, অবিলম্বে দোষীদের গ্রেফতার করে তাদের কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে। সেইসঙ্গে মৃতদেহ পরিবারের হাতে ফিরিয়ে দিতে হবে। পরিবারের পাশাপাশি লকেট চট্টোপাধ্যায় সিবিআই তদন্তের দাবি জানিয়েছেন বিষয়টি নিয়ে। লকেট বলেন মণীশ শুক্লা খুনে আমরা দেখেছি সিআইডিকে তদন্তভার দেওয়া হয়েছে। কিন্তু আমরা সিবিআই চাই। রাজ্যের পুলিশ প্রশাসনের ওপর আমাদের কোনো আস্থা নেই। পুজোর সময় যেভাবে মিলন হালদারের মৃত্যু হয়েছে দুষ্কৃতীদের হাতে, তাতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

Categories