গান্ধীজী সম্পর্কে জানুন এই অজানা তথ্যগুলি

1 min read

।। প্রথম কলকাতা ।।

মহাত্মা গান্ধী একজন অন্যতম ভারতীয় রাজনীতিবিদ, ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনের অগ্রগামী ব্যক্তিদের একজন এবং প্রভাবশালী আধ্যাত্মিক নেতা এবং ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনের অন্যতম চালিকা শক্তি এবং আন্দোলনের অন্যতম অনুপ্রেরণা। ভারত এবং বিশ্ব জুড়ে তিনি বাপুজি নামেও পরিচিত।

ভারত সরকার সম্মানার্থে তাকে ভারতের জাতির জনক হিসেবে ঘোষণা করেছেন। ২রা অক্টোবর তাঁর জন্মদিন ভারতে গান্ধী জয়ন্তী হিসেবে যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হয়। আর কিছুদিন বাদ দেশ জুড়ে পালিত হবে গান্ধী জয়ন্তী। তাহলে আসুন গান্ধীজী সম্পর্কে এই অজানা তথ্য গুলি জেনে নিই ……

৪টি মহাদেশের ১২টি দেশের গণ-আন্দোলনের সঙ্গে জড়িয়ে ছিলেন মোহনদাস করমচাঁদ গান্ধী।

একসময় সেনাদলে নাম লিখিয়েছিলেন মহাত্মা গান্ধী। তবে যুদ্ধের বীভৎসতা দেখে তিনি এর ভয়াবহতা আঁচ করতে পেরে অহিংসার প্রতি আরো বেশি করে আকৃষ্ট হন।

মহাত্মা গান্ধীর নামে ছোট রাস্তাগুলি বাদে মোট ৫৩টি গুরুত্বপূর্ণ সড়ক রয়েছে। এ ছাড়া দেশের বাইরে মহাত্মার নামে মোট ৪৮টি রাস্তা রয়েছে।

মৃত্যুর পর নোবেল শান্তি পুরস্কারের জন্য পাঁচবার মনোনীত হন মহাত্মা গান্ধী।কিন্তু সে সময়ে মরণোত্তর নোবেল পুরস্কার দেওয়ার রীতি না থাকায় তিনি তা পাননি।

মহাত্মা গান্ধীর ভক্ত ছিলেন মার্কিন টেক জায়ান্ট অ্যাপলের স্রষ্টা স্টিভ জবস।

স্বাধীনতার পর ভারতের প্রথম প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহরুর বক্তৃতায় সেখানে উপস্থিত ছিলেন না গান্ধী।সে সময় কলকাতায় ছিলেন তিনি।

মহাত্মা গান্ধীর ইংরেজি উচ্চারণের মধ্যে আইরিশ প্রভাব ছিল। কারণ তাঁর প্রথম শিক্ষক ছিলেন একজন আইরিশ।

দক্ষিণ আফ্রিকাতে থাকাকালীন বর্ণবৈষম্যের বিরুদ্ধে ফুটবলের প্রসারে ব্রতী হন গান্ধী। তিনি ডারবান, প্রিটোরিয়া ও জোহানেসবার্গে ফুটবল ক্লাব খুলতে উদ্যোগী হন।