অভিষেকের হয়ে ব্যাটন ধরলেন কুণাল ঘোষ

।। ময়ুখ বসু ।।

তৃণমূলের যুবরাজ তথা বর্তমানে বঙ্গ রাজনীতিতে ভাইপো বলে চর্চিত অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের হয়ে ময়দানে নামলেন তৃণমূলের মুখপাত্র কুনাল ঘোষ। তিনি বিজেপি নেতা কৈলাস বিজয় বর্গীয়কে কটাক্ষ করে বলেন, সাহস থাকে তো নাম করে বলুন। ভাইপো বলতে কাকে বোঝাতে চাইছেন আপনি? রাজনীতিতে না পেরে কারো চরিত্রহনন করবেন না। কুণাল ঘোষ সাফ বলেন, নাম না করে ভাইপো বলা তো কাপুরুষতা। তিনি বলেন, ভাইপো শব্দে আমাদের আপত্তি রয়েছে।

ভাইপো বলতে আপনারা কাকে বোঝাতে চাইছেন তা খোলসা করুন। না বলুন। মুকুলদার ছেলে শুভ্রাংশু কি ভাতিজা নন কৈলাসজীর? কৈলাশজী যাদের ভাই বলেন, তাদের ছেলেরা তো সবাই তার ভাইপো বা ভাতিজা। অমিত শাহের পুত্র জয় শাহের নাম না করে কুণাল ঘোষ বলেন, বিসিসিআইয়ে বসে আছেন তিনিও তো কৈলাস বিজয়বর্গীয়র ভাতিজা। উল্লেখ্য, রামনগরের সভা থেকে কৈলাস বিজয়বর্গীয় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে ভাইপো বলে কটাক্ষ করেছিলেন।

তিনি বলেছিলেন, তৃণমূলের রাশ এখন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাতে নেই। ভাইপো সামলাচ্ছেন। আর এখানেই ভাইপো শব্দে আপত্তি তুলেছেন কুনাল। তিনি বলেন, তৃণমূলের যুবনেতা অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিয়ে মিথ্যাচার করছে বিজেপি। রামনগরের সভায় মিথ্যচার করেছেন কৈলাস বিজয়বর্গীয়। আসলে অভিষেককে নিয়ে ভয় পাচ্ছে বিজেপি। ভয় পেয়েই এই মিথ্যাচার, এই কটাক্ষ। কুণাল প্রশ্ন তোলেন, রাজনীতিবিদের ছেলে কি রাজনীতিবিদ হতে পারে না?

অধ্যাপকের ছেলে কি অধ্যাপক হতে পারে না? ডাক্তারের ছেলে কি ডাক্তার হতে পারে না? আইনজীবির ছেলে কি আইনজীবি হয় না? কুণাল ঘোষ বলেন, আকাশ বিজয়বর্গীয় পুরকর্মীদের মেরেছিলেন। আকাশ একজন গুন্ডা। আমি নাম করে বলছি। আপনার সাহস থাকলে আপনিও নাম করে বলুন। কুণাল বলেন, ২০১৫ সালে আপনারা বলেছিলেন ভাগ মুকুল ভাগ। তাহলে এখন কেন নাম নিতে বাধা? আসলে একটি বাচ্চা ছেলে রাজনীতিতে এসে এতো অল্প সময়ে নাম করেছে, দুই বার সাংসদ নির্বাচিত হয়েছে,

ছাত্র যুবদের নয়নের মনি হয়ে উঠেছে, তাই তার সঙ্গে রাজনীতিতে পেরে না উঠে কুতসা ছড়াতে নেমে পড়েছেন? কুণাল সারদা কান্ডে মুকুল রায়কে কেন গ্রেফতার করা হলো না তা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন। মূলত, রাজনৈতিক মহলের ধারনা, আসলে তৃণমূলের মুখপাত্র হিসাবে কুণাল ঘোষকে সক্রিয়তা দেখাতে হবে। আর সেই সক্রিয়তার তাগিদে আগামী দিনে কুণাল ঘোষ বিজেপি নেতাদের আক্রমনের পথে হয়ে উঠতে পারেন বড়সড়ো স্পিড ব্রেকার।

Categories