Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

এইরকম রাজ্যপাল থাকার চেয়ে চিড়িয়াখানা থেকে হাতি আনা ভালো তীব্র কটাক্ষ মদন মিত্রের

1 min read

।। সুদীপা সরকার ।।

মেদিনীপুরের বসন্তপুরের মেলার উদ্বোধন শেষে রাজ্যপালকে একহাত নিলেন মদন মিত্র। মুখ্যমন্ত্রী সংবিধান ভাঙছেন বিরোধীদের তোলা এই প্রশ্নের উত্তরে মদন মিত্র বলেন মুখ্যমন্ত্রী সংবিধান ভাঙলে তাহলে বিজেপি ক্ষমতা প্রয়োগ করুক। সবার আগে রাজ্যপালকে তাড়ানো উচিত। উনি সব থেকে বড় সংবিধান বিরোধী। এরকম রাজ্যপাল থাকার থেকে চিড়িয়াখানা থেকে কতগুলো হাতি আনা হলে ভালো হতো। শুভেন্দু প্রসঙ্গে বলেন ও বাচ্চা ছেলে ছোট ভাইয়ের মতো। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঘরে মমতা ব্যানার্জি (Mamata Banerjee) নিজে একজন বিধায়ক সাংসদ।

আর অধিকারী পরিবারের দশ জনের মধ্যে ৬ না ৭ জন সাংসদ। এরপর কে কোণঠাসা। পাশাপাশি কটাক্ষের সুরে মদন মিত্র (Madan Mitra) বলেন কেউ এই জায়গা কে মির্জাপুর বানাতে চেয়েছিল কিন্তু আমরা মেদনীপুর ই রাখবো। বিজেপি গোটা টিম টাই তৃণমূল থেকে নিয়ে যাচ্ছে। বিজেপি নিজেরাই টিম রাখতে পারছে না। অনেকে ভাবছে আমরা কাচের পাশে দাঁড়িয়ে আছি আমি হনুমানজির যজ্ঞের পাশে দাঁড়িয়ে আছি। শুভেন্দু মুকুলদের তৃণমূল যা দিয়েছিল তা যথেষ্ট ছিল না আমি মনে করি ওদের নোবেল জাতীয় কোন পুরস্কার দেওয়া উচিত ছিল এরা রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর এবং অমর্ত্য সেন এর থেকেও অনেক উপরে।

আরো পড়ুন :আব্বাস সিদ্দিকীকে পীরজাদা বলে কেউ দেখবে না, কটাক্ষ ত্বহা সিদ্দিকীর

এমনই কটাক্ষ করলেন মদন মিত্র। ২০২১ এর বিধানসভা নির্বাচনের উত্তেজনার পারদ চড়তে শুরু করেছে। এক পক্ষ অপর পক্ষকে চ্যালেঞ্জ পাল্টা চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিচ্ছে। চলছে অংক কষাকষি। নির্বাচন কেয ঘিরে ঘর গোছানোর পালা চলছে। বাংলার রাজনীতিতে মুকুল রায় এবং শুভেন্দু অধিকারী এখন ব্যালেন্সিং ফ্যাক্টর তা সকলেরই জানা। একজন রাজনৈতিক কৌশল অপরজন সরাসরি জনসংযোগ বাড়াচ্ছে। এই দুজনের উপর আস্থা ভরসা রেখেই চলছে বিজেপির প্রচার। আর এবার বিজেপির দুই সৈনিকেই করা আক্রমণ শানালেন মদন মিত্র (Madan Mitra)।