Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

তীব্র গোষ্ঠীকোন্দল, কলকাতা থেকে নেতা গেলেন, শেষ রক্ষা হবে তো?

1 min read

।। প্রথম কলকাতা ।।

লোকসভা নির্বাচনের পর থেকেই তৃণমূলের গোষ্ঠীকোন্দল ব্যাপক আকার নিয়েছে বিভিন্ন জেলায়। একেই লোকসভায় বিজেপি উল্লেখযোগ্য হারে শক্তি বাড়িয়েছে, উল্টোদিকে তৃণমূলের প্রভাব অনেক কমেছে। উত্তরবঙ্গে সবচেয়ে খারাপ ফল হয়েছে দলের। বিশেষ করে জলপাইগুড়ি জেলায়। নির্বাচনের ফল বলছে সেখানে রাজগঞ্জ ছাড়া অন্য কোনো কেন্দ্র থেকে তৃণমূল লিড পায়নি। সেই সঙ্গে জেলা জুড়ে প্রকট হয়েছে গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব। যেটা মেটাতে হিমশিম অবস্থা হয়েছে জেলা তৃণমূল নেতৃত্বের। এই অবস্থায় তৃণমূল কলকাতা থেকে সেখানে পাঠিয়েছে ওমপ্রকাশ মিশ্রকে।

বিধানসভা নির্বাচন পর্যন্ত সেখানেই ঘাঁটি গেড়ে থাকবেন তিনি। চেষ্টা করবেন দলের হাল ফেরানোর। শনিবার গোটা বিষয়টি নিয়ে ওমপ্রকাশ বৈঠক করলেন উত্তরবঙ্গ তৃণমূলের কোর কমিটির চেয়ারম্যান গৌতম দেবের সঙ্গে। জলপাইগুড়ি সার্কিট হাউসে এই গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকটি হয়। কিভাবে জলপাইগুড়িতে হারানো জায়গা পুনরুদ্ধার করা যাবে, মূলত সেটা নিয়েই আলোচনা করেন তাঁরা। ওমপ্রকাশ বিষয়টি নিয়ে বলেন, কি করতে হবে সে ব্যাপারে পরিকল্পনা করেই এসেছি এখানে। জেলার নেতাকর্মীদের বলেছি তাঁদের মতামত জানাতে। পক্ষে-বিপক্ষে বেশ কিছু বক্তব্য থাকতে পারে তাঁদের। আমরা আশাবাদী দল ঘুরে দাঁড়াবে বিধানসভা নির্বাচনে।

আরো পড়ুন : ৩৫৬ ধারা জারির পক্ষে সওয়াল কৈলাশ বিজয় বর্গীয়র

আর গৌতম দেব বলেন, আমি দলকে খুব একটা সময় দিতে পারছিলাম না। বিষয়টি জানিয়ে ছিলাম। দল ওমপ্রকাশ মিশ্রকে পাঠিয়েছে এখানে। সাংগঠনিক বিষয় নিয়ে আজ আমরা বৈঠক করেছি। আমি তাঁকে সর্বতোভাবে সাহায্য করব। এর আগে জলপাইগুড়ি জেলায় নেতাকর্মীদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন ওমপ্রকাশ। কড়া ভাষায় তাঁদের আচরণের নিন্দা করেছেন। গত লোকসভা নির্বাচনের ফলাফলের পর সবাইকে সতর্ক করে দিয়েছেন। গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব ভুলে সবাই যাতে এক হয়ে কাজ করতে নামেন, সেই বার্তা দিয়েছেন তিনি। এমন অবস্থা অতীতে কোনো দিন তৃণমূলে হয়নি।

বিধানসভা নির্বাচন পর্যন্ত জলপাইগুড়িতে থাকতে হচ্ছে ওমপ্রকাশ মিশ্রকে গোষ্ঠীদ্বন্দ্বসহ অন্যান্য সমস্যা মেটাতে, নির্বাচনের আগে সেটা একেবারেই ভাল বার্তা দিচ্ছে না। উল্লেখ্য উত্তরবঙ্গ জুড়ে তৃণমূলের ভোটব্যাঙ্কে যেভাবে ধস নেমেছে, তাতে দায় এড়াতে পারছেন না গৌতম দেব। তাই বিষয়টির সমাধানে সেখানে ওমপ্রকাশ মিশ্রকে পাঠানোয় তিনি কতটা খুশি হয়েছেন, সেটা নিয়েও প্রশ্ন চিহ্ন রয়েছে। এভাবে দল তাঁকেও একটা বার্তা দিল, এমনটাই মনে করছেন জেলার তৃণমূল নেতৃত্ব। যদিও দুজনেই বলছেন জলপাইগুড়িতে বিধানসভা নির্বাচনে তৃণমূল ভালো ফল করবে। কিন্তু উত্তরবঙ্গের পাশাপাশি রাজ্য জুড়ে যেভাবে তৃণমূলের শক্তি ক্ষয় হচ্ছে, তাতে তাঁদের দাবিতে সহমত হতে পারছেন না রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।