বাংলাদেশে বান, করোনায় ভাসছে ঈদ

1 min read

।। মীর আব্দুল আলীম ।।

একেই বলে মরার উপর খাঁড়ার ঘাঁ। করোনা ভাইরাসের ধাক্কা সামাল দিতে যখন আমরা হিমশীম খাচ্ছি গোটা দেশ তখন বানের পানিতে ভাঁসছে। আর এমন সময় এলো কোরবাণীর ঈদ। এই তিন ধাক্কা সামাল দিতে জনগনের ত্রাহীমধুসুধন অবস্থা। যারা চাকুরীজীবী তাঁদের অনেকেই আজ করোনার কারনে চাকুরী হারিয়ে ঘরে আছেন। হাতে সংসার চালানোর অর্থ নেই। ব্যবসা বাণিজ্যেও চরম সংকট চলছে। এই সংকট কিছুটা যখন কাঁটতে শুরু করেছে ঠেক তখনই বন্যার পানিতে দেশ ভাসছে। অনেক জেলাতেই এখন বানের পানি। নানা সংকটের পাশাপাশি বন্যা এবং করোনা ভাইরাসজনিত মৃতু বাড়ছে। এমন কষ্টের দিনেই আনন্দের ঈদ এসে হাজির। ঈদ যে কেবল আনন্দের তা কিন্তু নয়। গরিব মানুষের জন্য ঈদটা কখনো কখনো অনেক কষ্টের বটে! সন্তান, স্বজন আর পিতা মাতাকে নতুন কাপড় না দেয়ার কষ্ট; ভালো খাবার দিতে না পারার কষ্ঠ গৃহকর্তার থেকেই যায়। করোনায় বিদ্ধস্ত মানুষ গুলোকে বানের পানিতে যখন ভাসিয়ে নিয়ে যাচ্ছে তখন ঈদ কতটা আনন্দের তাতো বেশ টের পাচ্ছি আমরা।

রোজার ঈদেও মতো এবারের ঈদটা আমাদের জন্য খুব একটা আনন্দ বয়ে আনছে তা বলা যাবে
না। যারা ধনী শ্রেনীর তাদের কথা ভিন্ন, তবে সবার সুখের সাথে সাথেইতো ঈদেও আনন্দের সম্পর্ক। সবাই মিলে আনন্দ করতে না পারলে সে আনন্দ র্পর্ণতা পায় না। করোনা, বান আর ঈদ এই তিন সংকটের মধ্যে আতংক আরেক সংকট। ঈদের কোরবানীর হাঁট আর ঈদে বাড়ি ফিরা নিয়ে রয়েছে ঝুঁকি। এই ঝুঁকি করোনার প্রকোপ বাড়া এবং মৃত্যুও শংকা তৈরি করেছে। সব মিলিয়ে আমরা যে বর্তমানে মহা সংকটে আছি একথা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। করোনাভাইরাস প্রকোপের মধ্যেই দেশে নতুন শঙ্কা হিসেবে বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে যে নতুন শঙ্কা তৈরি হয়েছে এজন্য আমাদেও প্রস্তুতি কতটুকু? দেশের বিভিন্ন জেলায় ইতোমধ্যে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে।

বন্যার পানিতে ডুবে গেছে অনেক এলাকা। এ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও শঙ্কা প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেছেন: এবারের বন্যা দীর্ঘস্থায়ী হতে পারে। কারণ বন্যার প্রকোপটা এখনই বেশি দেখা দিচ্ছে। সামনে আগস্ট এবং সেপ্টেম্বর পর্যন্ত আরও বন্যা হওয়ার শঙ্কা আছে। সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে বন্যা মোকাবিলা করার যন সরকার যথেষ্ট প্রস্তুত। বন্যা মোকাবেলার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর আশ্বাসে
আমরা আশ্বস্ত হতে পারি। তবে আমাদেও মতো দরিদ্র দেশের একর পর এক সংকট মোকাবেলা করা একটু দুরুহই বটে। তবে এ পর্যন্ত সরকারের ত্রাণ সফলতায় আমরা খুশী হতে পারি। এ বিষয়টিতে সরকারের নজরদারি আরও বাড়াতে হবে। বন্যা কবলিতন এলাকায় আরও বেশি সহায়তা ও পূনর্বাসন কার্যক্রম পরিচালনার উদ্যোগ নেওয়া হবে বলে আমরা আশা করি।

জুলাই মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকে বন্যার খবর জোরেশোরে প্রকাশ হচ্ছে। খবরের কাগজে বন্যায় আক্রান্ত মানুষের দুঃখকষ্টের কথা তুলে ধরা হচ্ছে এবং ত্রাণ কার্যক্রম ততটা পর্যাপ্ত নয়, ইত্যাদি লেখা হচ্ছে। ত্রাণ যতই দেয়া হউক ঘওে ঘরেও ত্রাণ পৌছবে এবং মানুষের চাহিদা শতভাগ পূরন হবে তা ভাবা হয়তো ভুল
হবে। বন্যা বাংলাদেশের জন্য একটি বার্ষিক ঘটনা। প্রতি বছরই আমরা বন্যার কবলে পড়ি। কোনো বছর বেশি মাত্রায়, কোনো বছর কিছুটা কম। কোনো বছর কিছুটা আগে, কোনো বছর কিছুটা দেরিতে আসে। এটা নিয়ে আমাদের পূর্বপ্রস্তুতি বাঞ্চনীয়। মবোরও বোধ করি সরকার প্রস্তুত রয়েছে। তবে করোনার কারনে সারা দেশে ব্যাপক ত্রাণ কার্যক্রম চালিয়ে এখন শতভাগ সফলতা ত্রাণ কার্যক্রমে
মিলবে কিনা কিউ কেউ তা বলছেন।

দেশের বহু জায়গায় পানি বেড়ে তা মানুষের দুর্ভোগের কারণ হয়েছে, এটা অত্যন্ত সত্যি কথা। এমন পরিস্থিতির জন্য আমরা কোন পূর্বাভাস পেয়েছিলাম কিনা? তা হলে হয়তো পানি উঠে ক্ষয়ক্ষতির বিষয়ে
এবং ক্ষয়ক্ষতি নিরসনে কী করা উচিত, তা নিয়ে নতুনভাবে ভাবার সুযোগ সৃষ্টি হতে পারতো। সংশ্লিষ্টরা এমন আভাস একেবাওে শেষ মূহুর্তেই দিয়ে থাকেন যার কারনে আমাদেও আর করার কিছু থাকে না।
একথা সত্য যে করোনা ও বন্যার কারনে এবারের ঈদটা বিবর্ণই হবে। করোনার পর বন্যার প্রকোপ। এই দুয়ের প্রভাবে ঈদের খুশি এবার ম্লান। অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার ঈদের আনন্দেও প্রাক প্রস্তুতি একেবারেই আলাদা। করোনা ও বন্যার সাঁড়াশিতে এবার সবই অন্ধকার। ‘‘চারপাশে মৃত্যুর হাহাকার। বানভাসী ক্ষুধার্থ মানুষ।

এর মধ্যে উৎসব পালনের মানসিকতাই নেই। কোরবানীর হাঁটে আগের সেই জৌলুস নেই। আগের মতো গরু কেনার হিড়িক কমেছে। ওয়াজিব তাই কোরবানী দিতে হকে তাই যাদেও সামর্থ আছে তারা কোরবানী দিচ্ছেন। করোনার কারনে অনেকে চাকুরী হারিয়েছেন। ব্যবস্থায় লোকসান গুনে পথে বসেছেন অনেকে। এ অবস্থায় কোরবানী দেবার সামর্থী হারিয়েছে দেশের অনেক মানুষ। তাই এবারের ঈদটা অনেকটা ফিকেই হবে মনে হচ্ছে। মন ভালো না থাকলে উৎসবের অর্থ থাকে না। গত রোজার ঈদটাও অনেকটা আনন্দহীন ভয়ভীতির মধ্যে ঘরেই কেঁটেছে। এবার কোরবানীর ঈদটাও ঘরেই কেটে যাবে। শুধু করানাভাইরাসই নয়, এবার বিপদের উপর আরেক বিপদ হয়ে এসেছে বন্যা। যেভাবে পানি বাড়ছে তাতে ৮৮ কিংবা ৯৮ এর রূপ নিতে পারে বন্যা।

বন্যাদীর্ঘস্থায়ী হলে মহা সংকটে পরবে দেশের মানুষ। তাই এবারের ঈদ অন্যরকম এক পরিস্থিতিতে উদযাপন করতে হচ্ছে দেশবাসীকে। বিশেষ করে করোনাভাইরাসের কারণে যারা কাজ হারিয়েছেন। অনেকের ব্যবসা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় আর্থিক সংকটে আছেন। এর বাইরে যারা ‘দিন এনে দিন খায়’ তাদের অবস্থা আরও শোচনীয়। অনেকের কাছে টাকা না থাকায় গ্রামের বাড়িতেও ফিরতে পারেননি। এমন
আরও নানা ধরনের সংকটে আছে মানুষ। সবচেয়ে বড় ক্ষতি হচ্ছে জামাকাপড়ের ব্যবসায়। দোকানপাঠ খুললেও কেনাবেচা নেই। সবার কাজকর্ম বন্ধ। মানুষের হাতে টাকা নেই। কোরবানীই দিতে পারবে না আবার কাপড় তাতো প্রশ্নই ওঠে না। ঈদেও পর কি হবে? অর্থনীতির কি অবস্থা?

অনেকেই এখন বেকার হয়ে পরেছেন। দেশে নতুন নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে হবে। বিকল্প আমদানি-রফতানির ব্যবস্থা করতে হবে। প্রবাসী শ্রমিকদের নতুন বাজারের সুযোগ
খোঁজা অব্যাহত রেখে তাদের দক্ষতা বৃদ্ধি করতে হবে এবং দেশে তাদের জন্য স্বল্পমেয়াদি কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে হবে। আমাদের এখন প্রকৃতি এবং মানুষবান্ধব টেকসই মানবকল্যাণমূলক স্বনির্ভর অর্থনীতির দিকে এগিয়ে যেতে হবে- দক্ষতার সাথে যার নেতৃত্ব দেবেন আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী।
একমাত্র তিনিই পারবেন ১৯৭১-এর মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের মতো এ দেশের ধনী-গরিব, নারী-পুরুষ নির্বিশেষে আপামর জনসাধারণকে একত্র করে আর একটি যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়তে। যে যুদ্ধ হবে ‘অর্থনৈতিক যুদ্ধ’। এ যুদ্ধে আমাদেও জয়ী হতেই হবে। বাংলাদেশে এখনো ২২ শতাংশ মানুষ দারিদ্র্যসীমার নিচে বাস
করে। সংখ্যার হিসাবে প্রায় চার কোটি। মৌলিক চাহিদার অনেক কিছুই তাদের অপূর্ণ থেকে যায়। হাড়ভাঙা পরিশ্রমের বিনিময়ে কোনোরকমে খেয়ে-পরে বেঁচে থাকে। করোনা সংকট তাদের রোজগারের পথ বন্ধ করে দিয়েছে। সরকার যে পরিমাণ ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করছে, তাতে চাহিদার ২৫ শতাংশও মিটবে না। ৭৫ শতাংশ বঞ্চিত থেকে যাবে।

এ অবস্থায় কি করবে সরকার? অবিলম্বে সরকারের ত্রাণ পরিকল্পনায় আমূল পরিবর্তন আনতে হবে। যত দিন করোনা সংকট থাকবে, তত দিন কাজ হারানো সব অভাবী মানুষের কাছে চালসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যগুলো পৌঁছাতে হবে। ভারতের পশ্চিমবঙ্গ সরকার যদি প্রত্যেক মানুষকে ছয় মাস বিনা পয়সায় চাল দিতে পারে, আমরা কেন পারব না? করোনা যেমন সবাইকে আঘাত করেছে, তেমনি নারী-পুরুষ,
ধনী-গরিব নির্বিশেষে ঐক্যবদ্ধভাবে বন্যা ও করোনা পরবর্তী দুর্যোগ মোকাবিলা করতে হবে। বৈশ্বিক যে কোনো মহামারীকে পরাভূত করতে হলে প্রয়োজন দেশপ্রেমিক দক্ষ্য নেতৃত্ব, বুদ্ধিবৃত্তিক শাসনতন্ত্র ও সঠিক কর্মকৌশল প্রণয়ন। করোনা সংক্রমণরোধ ও মহামারীর পরে অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক ও সামাজিক বিপর্যয় ঠেকাতে আমাদেরকে স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘ্যমেয়াদি কৌশলগত কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ন ও সঠিক বাস্তবায়ন নিশ্চিত করতে হবে। খাদ্যঘাটতি মোকাবেলায়  কৃষি জমির সর্বোত্তম ব্যবহার নিশ্চিত হওয়া দরকার।  আধুনিক প্রযুক্তিনির্ভর ও অধিকতর  উৎপাদনশীল কৃষিতে আমাদের মনোযোগ বেড়েছে। একই সঙ্গে চাহিদা অনুসারে কৃষি পণ্যের আমদানি না বাড়িয়ে দেশীয় উৎপাদনে
মনোনিবেশ করা প্রয়োজন।

সর্বশেষ এটাই বলবো, আমরা যোদ্ধার দেশ। দেশের জন্য যুদ্ধ করে দেশ পেয়েছি। কলেরা-ডায়েরিয়া মহামারী সামনে ফেলে সফল হয়েছি। করোনা, বন্যকেও আমদের জয় করতে হবে। সব ভয়কেই দুরে সরিয়ে নির্ভয়ের বাংলাদেশ গড়তেই হবে আমাদের। বাংলাদেশ দরিদ্র দেশ হলেও সব দুর্যোগ, মহামারী উৎড়ে সফলতার মুখ দেখেছে। উন্নত দেশের স্বাদ পাচ্ছি আমরা। সকল ভয়কে কাটিয়ে বাংলাদেশ এগিয়ে যাবেই।

 লেখক : সাংবাদিক, কলামিষ্ট ও গবেষক।

এম/বি