Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

“তোমার চ্যালারা আমাকে অপহরণ করলে আমার পরিস্থিতি হাথ্রাসের মতো হতো”, কল্যাণের কুশপুতুল পোড়ানো হল!

1 min read

।। সুদীপা সরকার ।।

শ্রীরামপুর লোকসভা কেন্দ্রে তৃণমূল সাংসদ কল্যাণ ব্যানার্জি দেবী সীতা কে নিয়ে করা মন্তব্যে নিন্দার ঝড় উঠেছে বিভিন্ন মহলে। একটি জনসভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে তৃণমূল সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছিলেন সীতা মা রাম কে বলেছিলেন ভাগ্যিস আমাকে রাবণ হরণ করেছিল। তোমার চেলারা যদি আমাকে অপহরণ করতে তাহলে আমার পরিস্থিতি হাথ্রাস কাণ্ডের নির্যাতিতার মত হত।তারপর থেকেই কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় এর উপর অভিযোগ আসতে থাকে হিন্দু ধর্মের ভাবাবেগকে আঘাত করেছেন কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়। আজ শ্রীরামপুর লোকসভার শেওড়াফুলি উদয়ন সিনেমা সন্নিকটে জি টি রোড এর উপর শেওড়াফুলি মহিলা মোর্চার তরফ থেকে কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় ( Kalyan Bandopadhyay) বিরুদ্ধে প্রতিবাদ কর্মসূচি করে মহিলা মোর্চার নেত্রী রা।

কল্যান বন্দ্যোপাধ্যায়ের কুশপুতুল দাহ করলেন বিজেপি মহিলা মোর্চার কর্মীরা। শেওড়াফুলি মহিলা মোর্চা সভানেত্রী সোমা নন্দীর দাবি দেবি রূপে সীতা মা কে পূজা করা হয় সেই দেবীর উপর কুরুচিকর মন্তব্য করেছেন কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়। সীতা মা কে অপমান করা হয়েছে মানে সমগ্র নারী জাতিকে অপমান করা হয়েছে। তিনি হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন অবিলম্বে কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়( Kalyan Bandopadhyay) কে ক্ষমা চাওয়ার আবেদন করা হচ্ছে। যদি ক্ষমা না চান তাহলে প্রতিরোধ প্রতিবাদ কালীঘাটের চালা পর্যন্ত যাবে।আজ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় বিরুদ্ধে তাঁরা স্লোগান তোলেন নাম কল্যাণ কিন্তু হিন্দু জাতির কাছে উনি অকল্যাণ এই কল্যাণকে আমরা মানছি না মানবো না।প্রসঙ্গত হাথ্রাস কান্ড নিয়ে কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় একটি দলীয় জনসভায় রাম সীতার নাম জড়িয়ে বেকায়দায় পড়েছেন।

আরো পড়ুন : কুণাল ঘোষকে কী বললেন অর্জুন সিং, জানুন

তার এই মন্তব্যে বিজেপির যুব মোর্চার সদস্য গোলাবাড়ি থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে। আবার অন্যদিকে সীতা কে নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য’ করায় অযোধ্যার সাধু সন্ন্যাসীদের একটা বড় অংশ প্রতিবাদ শুরু করে দিয়েছেন। অনশন শুরু করেছেন অনেক সাধু। কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় ( Kalyan Bandopadhyay) বিরুদ্ধে হুমকি দিয়ে মহন্ত পরমহংস জানিয়েছেন তদন্ত না হলে ওই সাংসদের মাথা জিনি কাঁটবেন তাঁকে 5 কোটি টাকা তিনি দেবেন। কল্যান বন্দ্যোপাধ্যায়ের মন্তব্যের পর বেশ কিছু সংগঠন ও সাংসদের বিরুদ্ধে সরব হয়েছে। বেশ কিছু জায়গায় কল্যাণের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ চলছে। বরাবরই ঠোঁটকাটা কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর মন্তব্য নিয়ে অনেক সময় সমালোচনার ঝড় উঠে। তবে নির্বাচনের আগে তাঁর এই মন্তব্যের ফলে তৃণমূল কংগ্রেসের অস্বস্তি যে আবারও বাড়লো তা মনে করছেন অনেকে।