Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

মমতার সদুত্তর না পেলে কড়া ব্যবস্থা নিতেই পারে কমিশন

।। প্রথম কলকাতা ।।

ভোট প্রচারে গিয়ে তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যে বক্তব্য রেখেছেন তাতে নির্বাচন কমিশনের কাছে অভিযোগ জানিয়েছে বিজেপি। একটি অভিযোগ রয়েছে ধর্ম সংক্রান্ত বক্তব্য রাখার জন্য। অন্যটি কেন্দ্রীয় বাহিনীকে বাধা দেওয়ার কথা বলে প্ররোচনা দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে তাঁর বিরুদ্ধে। প্রথম নোটিশ পাওয়ার পর উত্তর দিতে হবে আজ শুক্রবারের মধ্যে।

সেইসঙ্গে এদিন দ্বিতীয় নোটিশ দেওয়া হয়েছে তাঁকে। এখন প্রশ্ন মমতা কী এই দুটি নোটিশের উত্তর দেবেন? বৃহস্পতিবার ডোমজুড়ের জনসভায় তিনি বলেন, “আমাকে দশটা নোটিস পাঠালেও উত্তরটা বদলাবে না, একই থাকবে।” অর্থাৎ তিনি নিশ্চিত ভাবে উত্তর দিচ্ছেন সেটা বলা যাচ্ছে না। যে কথা তিনি বলেছেন, সেটাই তাঁর “স্ট্যান্ড পয়েন্ট”, এটা বুঝিয়ে দিয়েছেন তিনি। মনে রাখতে হবে নির্বাচন কমিশনের হাতে প্রচুর ক্ষমতা রয়েছে।

সেক্ষেত্রে মমতার কাছ থেকে সদুত্তর না পেলে কড়া ব্যবস্থা নিতেই পারে কমিশন। এমনকী বাদবাকি পর্যায়ের নির্বাচনী প্রচার মমতা আর করতে পারবেন না, এমন নির্দেশ প্রয়োজনে দিতেও পারে কমিশন। তবে সবটাই নির্ভর করছে নোটিশের উত্তর মমতা কী দেন তার ওপর। মমতা একটা কথা বারবার বলে থাকেন, আমি ভাঙি কিন্তু মচকাই না। কেন্দ্রীয় বিজেপি নেতৃত্ব এবং নির্বাচন কমিশনের উদ্দেশ্যে এমন কথা তাঁকে বারবার বলতে শোনা গিয়েছে।

আরো পড়ুন : বাকি পাঁচ ভোটে তৃণমূলের ‘চাপ’ কেন?

যে ধারায় মমতা রাজনীতি করেন, তাতে তিনি চিঠির উত্তর দিচ্ছেন, কমিশন এবং কেন্দ্রীয় বাহিনীর সঙ্গে সহযোগিতা করছেন, এমনটা হলে নিচুতলার কর্মীদের কাছে অন্যরকম বার্তা যেতে পারে বলে রাজনৈতিক মহল মনে করছে। সেক্ষেত্রে সেই অংশ ভাবতে পারেন, তাঁদের দলনেত্রী হয়ত‌ ‘ বশ্যতা’ স্বীকার করে নিলেন।

বলাবাহুল্য তিন দশকের বেশি সময় ধরে এই ভূমিকায় মমতাকে দেখতে অভ্যস্ত নন তাঁরা। নিয়মকানুন মেনে তিনি উত্তর দেবেন, সেখানে তো অন্য কিছু মানে খোঁজার ব্যাপার নেই। কিন্তু মমতার রাজনৈতিক চলার পথ বলছে তিনি নিজের মতো করে এগিয়ে গিয়েছেন।

তাতে বহু সাফল্য এসেছে, আবার ব্যর্থতারও মুখোমুখি হতে হয়েছে তাঁকে। কিন্তু তিনি নিজেকে বদলাননি। এটাই তাঁর ইউএসপি। এই জায়গায় দাঁড়িয়ে দুটি নোটিশ নির্বাচন কমিশনের কাছ থেকে পাওয়ার পর মমতা কি সিদ্ধান্ত নেবেন, তার ওপর অনেক কিছু নির্ভর করছে।